পরকীয়া? অভিনেত্রীকে অপমান, রহস্য

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন ৩১ মে ২০২০, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১:২৭

পাকিস্তানে একজন অভিনেত্রীকে অপমান করায় তিন নারীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। উজমা খান নামে সুপরিচিত ওই অভিনেত্রীর বাড়িতে গিয়ে তাকে অবমাননা করেন ওই তিন নারী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এর ফুটেজ পোস্ট হওয়ার পর তা ভাইরাল হয় এবং অভিনেত্রী উজমা খান একটি মামলা করেন। এর পরই পুলিশ তৎপর হয়। এর আগে বিষয়টি নিয়ে পাকিস্তানের মিডিয়া কোনো রাঁ করে নি। কারণ, যে তিন নারী উজমা খানকে অপমান করেছেন তার মধ্যে একজন পাকিস্তানের একজন ধনকুবেরের কন্যা। পাকিস্তান থেকে সাংবাদিক এম ইলিয়ান খান এক প্রতিবেদনে এসব কথা লিখেছেন অনলাইন বিবিসিতে।
এতে বলা হয়, ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা যায় ওই তিন নারী ও তাদের সঙ্গে থাকা প্রায় ডজনখানেক সশস্ত্র প্রহরী লাহোরে উজমা খানের বাসায় প্রবেশ করছেন।
তারা ওই বাসার সহায় সম্পদ ভাঙচুর করছেন। অভিনেত্রী উজমা খান ও তার বোনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। অপমান করছেন। উজমা খান একজন সেলিব্রেটি হওয়া সত্ত্বেও এবং এতবড় ঘটনা ঘটে গেলেও এ নিয়ে খুব কমই সরব হয়েছে পাকিস্তানি মিডিয়া। এর কারণ হতে পারে, ওই ঘটনায় জড়িত দু’জন নারী পাকিস্তানের সবচেয়ে শক্তিধর প্রপার্টি ম্যাগনেট মালিক রিয়াজের কন্যা। ফলে মিডিয়া তার ভয়ে মুখ খোলেনি। এ ঘটনা থেকে নিজের দূরত্ব বজায় রেখেছেন মালিক রিয়াজ। তিনি এর সঙ্গে জড়িত নন বলে জানিয়েছেন। তবে তার কোনো মেয়ে এ নিয়ে প্রকাশ্যে কোনো কথা বলেন নি। পুলিশি রিপোর্টে নাম উল্লেখ আছে এমন আরেকজন নারী আমেনা উসমান মালিক কথা বলেছেন।
আরেকটি ভিডিওতে তিনি তার একশনের পক্ষে কথা বলেছেন। তার দাবি তার স্বামীর সঙ্গে গোপন প্রণয় আছে অভিনেত্রী উজমা খানের। মূল ধারার মিডিয়ায় এ নিয়ে খুব সামান্য রিপোর্ট থাকলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সয়লাব এই নাটকীয়তায়। মূল ঘটনাটি ঘটেছে ঈদের ঠিক আগের রাতে শনিবার। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ কিছু ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে বুধবার পুলিশ ঘোষণা দেয় তারা তদন্ত করছে। অভিনেত্রী উজমা খানের বাসভনে প্রবেশ করে তাকে ও তার বোনকে প্রহার এবং বাসভবনের সম্পদ ভাঙচুরের ঘটনায় পুলিশ তিন নারী ও তাদের প্রহরীদের বিরুদ্ধে মামলা নিয়েছে। একটি ভিডিওতে দেখা যায়, একজন নারী উজমা খানকে তার স্বামী উসমান মালিকের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। যে নারী তাকে এভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন তার নাম আমেনা উসমান মালিক। তিনি মালিক রিয়াজের শ্যালকের ভাতিজি হতে পারেন। পুলিশি রিপোর্টে অভিযোগ করা হয়েছে, আমেনার সঙ্গে ওই বাড়িতে প্রবেশ করেছিলেন মালিক রিয়াজের দুই কন্যা আম্বার ও পাশমিনা মালিক।
আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায়, ওই তিন নারী উজমা খান ও তার বোন হুমা খানকে নির্যাতন করছেন এবং হয়রান করছেন। বাসার ভিতর ভাঙা গ্লাস ও ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা জিনিসপত্র দেখা যায়। মেঝেতে দেখা যায় রক্ত ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। এ সময় এক নারী উজমা খান ও তার বোনকে পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই দিয়ে অপহরণের হুমকি দিচ্ছিলেন। এই আইএসআইয়ের বিরুদ্ধে গুমের অভিযোগ আছে। তবে তারা সেই অভিযোগ অস্বীকার করে।
তৃতীয় ভিডিওতে উজমা খান ও তার বোনকে বেশ হতাশাগ্রস্ত দেখা যায়। তারা জানান, তারা সবেমাত্র এতেকাফ শেষ করেছেন। সঙ্গে সঙ্গে ওই ঘরে প্রবেশ করেন ওই তিন নারী ও তাদের প্রহরীরা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। তারা বলছেন, যদি উসমান খানের সঙ্গে উজমা খানের প্রেমের সম্পর্ক থাকে তাহলে তারা কেন উজমা খানের ওপর চড়াও হচ্ছেন, উসমান খানের ওপর কেন নয়?
ওই বাড়িতে প্রবেশের একটি ভিডিও ফুটেজ ভাইরাল হওয়ার পর আমেনা উসমান মালিক প্রকাশ্যে কথা বলা শুরু করেন। কিন্তু তিনি নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ে কিছু বলেন নি। এমনকি তার সঙ্গে অন্য কে কে ছিলেন তা নিয়েও কথা বলেন নি। উজমা খান সম্পর্কে তিনি বলেন, বার বার আমি আমার ১৩ বছরের বৈবাহিক সম্পর্ককে রক্ষা করার জন্য ওই মেয়েকে সতর্ক করেছি বার বার। তার বাড়িতে এটাই আমার প্রথম যাওয়া নয়। মালিক রিয়াজ হোসেনের সঙ্গে আমার স্বামী উসমান মালিকের কোনো সম্পর্ক নেই। সে মালিক রিয়াজের কোনো নিকট আত্মীয়ও নয়। এসব বলাবলি হচ্ছে মালিক রিয়াজের সম্মানকে হানি করার জন্য। আমি এরই মধ্যে আমার স্বামীকে ছেড়ে এসেছি। তবে এ নিয়ে উসমান মালিক কোনো কথা বলেন নি।

কি বলছেন উজমা খান
ওই তিন নারী ও তাদের ব্যক্তিগত প্রহরীদের বিরুদ্ধে অনধিকার প্রবেশ, আহত করা, সম্পদের ক্ষতি করা, কমপক্ষে ৫০ লাখ রুপির মূল্যবান সম্পদ নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ করেছেন উজমা খান। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে তার আইনজীবী মিয়া আলি আশফাকের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন উজমা খান। সেখানে তার আইনজীবী বলেন, উসমান মালিক ও উজমা খানের মধ্যে দু’বছর ধরে বন্ধুত্ব। তবে তার সঙ্গে ডিসেম্বরেই সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন উজমা খান। তা সত্ত্বেও উসমান মালিক তার বাসায় বিভিন্ন সময় আসা-যাওয়া করতে থাকেন। উজমা খান ও উসমান খানের ফোনকল ও ম্যাসেজ তার ফোনে সেফ করা আছে। তা আমরা আদালতে উপস্থাপন করবো। আমিনা মালিক অভিযোগ করেছেন, তিনি উজমা খানের বাসায় যে সম্পদ ভাঙচুর করেছেন তা তার স্বামীর। তার এ বক্তব্যও প্রত্যাখ্যান করেন ওই আইনজীবী। তিনি দাবি করেন, উজমা খান ও তার বোনের নিরাপত্তা প্রয়োজন। তাদের জীবন এখন ঝুঁকিতে। মামলায় যাদের নাম রয়েছে অবিলম্বে তাদেরকে গ্রেপ্তারের দাবি জানান তিনি।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

বিশেষজ্ঞের সতর্কতা

অনেক বছর মার্কিনিদের মাস্ক পরতে হবে

৮ জুলাই ২০২০



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



২৩৯ বিজ্ঞানীর দাবি

করোনাভাইরাস বায়ুবাহিত