বিক্ষোভ দেখালে পশ্চিমবঙ্গে রেশন দোকান বন্ধের সিদ্ধান্ত সরকারের

কলকাতা প্রতিনিধি

ভারত ২ মে ২০২০, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:৩৩

লকডাউনের জেরে পশ্চিমবঙ্গে কর্মহীন কোটি কোটি মানুষের এখন একমাত্র ভরসা রেশনের খাদ্যসামগ্রী। কিন্তু এই রেশন সামগ্রী বন্টন নিয়ে শুরু থেকেই নানা দুর্নীতির অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। কোথাও খাদ্য সামগ্রী কম দেওয়া হচ্ছে, কোথাও রেশনের খাদ্য সামগ্রী চুরি করা হচ্ছে। এমন নানা অভিযোগে রাজ্যের নানা প্রান্তে সাধারণ মানুষ প্রতিদিনই বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন। তবে পরিস্থিতি সামাল দেবার পরিবর্তে সরকার বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধেই আঙ্গুল তুলেছেন। সিদ্ধান্ত হয়েছে, রেশন নিয়ে জেলায় জেলায় বিক্ষোভ ঠেকাতে রেশন দোকানই সাময়িক ভাবে বন্ধ রাখা হবে। শুক্রবার সরকারি এক নির্দেশে বলা হয়েছে, এবার থেকে রেশন নিয়ে কোথাও বিক্ষোভ হলে সাময়িক ভাবে বন্ধ থাকবে দোকান। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবার দোকান খোলা হবে।
সূত্রের খবর, রাজ্য সরকার নিযুক্ত হাই পাওয়ার কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সরকারের মতে, বহু জায়গায় পরিকল্পনা করে রেশন বণ্টন নিয়ে অশান্তি তৈরি করছে বিজেপি। গত বুধবার সাংবাদিক বৈঠকে একই দাবি করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় স্বয়ং। তিনি দাবি করেছিলেন এ ব্যাপারে তার কাছে বিজেপি নেতাদের অডিও ক্লিপিংস রয়েছে। বিজেপি নেতাদের অভিযোগ, রাজ্য সরকার কেন্দ্রীয় সরকারের দেয়া চাল-ডাল দিচ্ছেন না। উল্লেখ্য, রাজ্য সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ছয় মাস রাজ্যের প্রায় ৮ কোটি মানুষকে রেশনের মাধ্যমে  বিনামুল্যে খাদ্যসামগ্রী দেয়া শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই ভারত সরকারও বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী দেবার ঘোষণা দিয়েছে। তবে রাজ্যেও খাদ্যমন্ত্রী জ্যেতিপ্রিয় মল্লিক দাবি করেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা অনুযায়ী রাজ্যকে চাল-ডাল সরবরাহ করছে না। তবে প্রশ্ন উঠেছে, রেশন কম পেলে কি বিক্ষোভ দেখানোর অধিকার নেই মানুষের। কোথাও যদি মানুষ ন্যায্য কারণে বিক্ষোভ দেখান তাহলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করার বদলে কি রেশন দোকানটাই বন্ধ করে দেওয়া কতটা যুক্তিযুক্ত।

আপনার মতামত দিন

ভারত অন্যান্য খবর



ভারত সর্বাধিক পঠিত