নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও কুয়াকাটায় বন্ধ হচ্ছে না এনজিওর কিস্তি

কুয়াকাটা প্রতিনিধি

অনলাইন ২৪ মার্চ ২০২০, মঙ্গলবার, ১২:০৯ | সর্বশেষ আপডেট: ৪:০৮

প্রাণঘাতী করোনার আতঙ্কে ধীরে ধীরে সবকিছু বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু বন্ধ হচ্ছে না কুয়াকাটায় এনজিও’র কিস্তি। ২৩শে মার্চ পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক এনজিও’র কিস্তি নেয়া বন্ধ ঘোষণা করলেও তা মানছে না মাঠে থাকা এনজিও কর্মীরা। আজ সকালে কুয়াকাটা পৌরসভার ৩ ওয়ার্ডে দেখা যায় এই চিত্র।
আশার এনজিও কর্মীরা বাড়ি বাড়ি  ঘুরে টাকা তুলছেন। অনেকে কিস্তি দিতে অনীহা প্রকাশ করলেও মানছেন না তারা। আবার অনেকেই নাম প্রকাশ করছেন এই ভেবে যে, পরবর্তীতে নতুন লোনের সময় ঝামেলা করবে, টাকা পাবে না। তাই দরিদ্র মানুষগুলো কষ্ট হলেও বাধা দিচ্ছেন না।

টাকা তোলার মাঠকর্মী জাহিদ হোসেন বলেন, আমাদের উপরের নির্দেশে মাঠে এসে কিস্তি নিচ্ছি। যখন তারা নিষেধ করবে তখন আমরা আসবো না। আশার কুয়াকাটার ম্যানেজার জহির উদ্দিন বলেন, টাকার লোন নিচ্ছেন কিস্তি দিবে এটাই তো নিয়ম। তারা আবার লোন নিবে। আর সরকারিভাবে এখনও পর্যন্ত কোনো নির্দেশ পাইনি আমরা পাইলেই বন্ধ করে দেয়া হবে।
এ ব্যাপারে কলাপাড়া নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মো. শহিদুল ইসলাম দৈনিক মানবজমিনকে বলেন সরকারিভাবে সম্পূর্ণ নিষেধ আছে। কোনো এনজিও’র কিস্তি তোলা যাবে না পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত। এরকম অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Imon

২০২০-০৩-২৫ ১১:৫২:২৬

আমরা সবাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানাই, আমাদেরকে সব ধরনের এন জি ওর কিস্তি দুই তিন মাসের জন্য বন্ধ রাখা হক।

Al amin

২০২০-০৩-২৫ ০০:৪৭:২৯

এই সব কিস্তি বন্ধ করা হউক সাথে এঞ্জিও

আনোয়ার হোসেন মেম্বার

২০২০-০৩-২৪ ০৩:২৪:১৪

ওদের কে গন্তব্যে দোলাই দেওয়া উচিত

আপনার মতামত দিন



অনলাইন অন্যান্য খবর

দায়িত্ব হস্তান্তর ও যৌথসভায় ডিইউজে’র নেতৃবৃন্দ গণমাধ্যম কর্মীদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও ঝুঁকি ভাতাসহ ৯ দফা দাবি

২৯ মার্চ ২০২০

গণমাধ্যম কর্মীদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা সরঞ্জাম ও ঝুঁকি ভাতা প্রদান এবং বাংলা নববর্ষের ...



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত