ভোটাররা ভোট দিতে পারলে বিজয় সুনিশ্চিত: তাবিথ

স্টাফ রিপোর্টার

শেষের পাতা ২১ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:১২

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেছেন, নয় মাসে যানজট নিরসন করতে দেখা যায়নি, এখন তিন  মাসে কী করতে পারবেন সেটা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। গতকাল ১১তম দিনে প্রচারণাকালে এসব কথা বলেন তিনি। এদিন সকাল সাড়ে ১০টায় মিরপুর বাইতুল মোশাররফ জামে মসজিদের সামনে থেকে প্রচারণা শুরু করেন তাবিথ আউয়াল। এরপর ৭ নং ওয়ার্ডে পানির ট্যাংকি মোড়, হাজী রোড, শিয়ালবাড়ী রোড, ৬নং ওয়ার্ডে প্রশিকা শিয়ালবাড়ী মোড় থেকে শুরু হয়ে মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয় (রূপনগর শাখা), দুয়ারীপাড়া কাঁচাবাজার, মিরপুর শিল্পাঞ্চল প্রচার চালান তিনি। সেখান থেকে ৩ নং ওয়ার্ডে জুটপট্টি রোড, উদয়ন স্কুল রোড, ১১নং কাঁচাবাজার, ৫নং ওয়ার্ডের নাভানা টাওয়ার থেকে বাইশতলা, সাংবাদিক প্লট, কালশীরোড ও আধুনিক হাসপাতাল মোড় পর্যন্ত গণসংযোগ করেন। এছাড়াও ২নং ওয়ার্ডের জাগরনী ক্লাব হয়ে কালশী মসজিদ, মুসলিম বাজার, এ ব্লক, ১২নং বিআরটিসি বাসডিপো পর্যন্ত গতকালের নির্বাচনী প্রচার শেষ করেন বিএনপির এই প্রার্থী।

এদিন বিপুলসংখ্যক কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় লিফলেট বিতরণ ও ভোট চান তাবিথ আউয়াল। এ সময় হাজার হাজার নেতা-কর্মী ‘খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, ধানের শীষে ভোট চাই’, ‘ভোট দিবেন কিসে, ধানের শীষে’, ‘ভোট দিবেন হাসিয়া, ধানের শীষ দেখিয়া’ ইত্যাদি স্লোগানে পুরো এলাকা মুখরিত করে তোলেন। প্রচারাণায় আরো উপস্থিত ছিলেন, স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সদস্য সচিব মো. শাহজাহান, বরকত উল্লাহ বুলু, তাবিথের বাবা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসিন আলী, যুবদল উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম মিল্টন, বিএনপি নেতা এস এ সিদ্দিকী সাজু প্রমূখ।


রাজধানীর যানজটের বিষয়ে তাবিথ আউয়াল বলেন, প্রতি মাসেই ট্রাফিক উন্নত হচ্ছে। এক বছরের মাথায় একটা চলমান ঢাকা আমরা (মেয়র নির্বাচিত হলে) গড়ে তুলতে পারবো। এখন ঢাকায় মাত্র চার কিলোমিটারে গাড়িগুলো চলে, আমরা সেটাতে আট কিলোমিটারে অতিক্রম করতে পারবো এক বছরের আগেই।
নির্বাচন পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, নিয়মিত পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। আজকে পরিস্থিতি শান্ত। নির্বাচন কমিশনকে বলবো- ওনারা যেন শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতি বজায় রাখতে চেষ্টা করেন। কারণ ওনারা প্রমাণ করেছেন যে, একটা নতুন তারিখ দিয়ে সকলের জন্য গ্রহণযোগ্য তারিখ নির্ধারণ করা যায়। আশা করি, ওনারা আগামী নির্বাচনটাও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য করবেন।

ধানের শীষে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন উল্লেখ করে তাবিথ বলেন, আমরা প্রচারে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আমাদের সাথে জনসম্পৃক্ততা বাড়ছে, আমরা দেখছি জনমত আমাদের পক্ষে রয়েছে, সাধারণ জনগণ আমাদের পক্ষে রয়েছেন। আমরা মনে করি, পরিস্থিতি ১লা ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এ রকম থাকলে, ভোটাররা ভোট দিতে পারলে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত।
এ সময় স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান বলেন, বিনা ভোটে নয়, মানুষের ভোটে নির্বাচিত হতে চায় বিএনপি। আপনারা ১লা ফেব্রুয়ারি ভোট দিতে কেন্দ্রে যাবেন।
যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, মৌসুমী পাখির মতো আমরা আপনাদের কাছে আসিনি। অনেক প্রার্থী আছে ভোটের সময় আসে, নানা ধরনের প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু ডেঙ্গু দমন করতে পারে না, আর্বজনা সরাতে পারে না।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

সুলতান

২০২০-০১-২৩ ০৩:৪৪:৩১

ত্রুটি পুর্ন নির্বাচন যদি হয়। তার পর যদি হেরে যান তখন কি হার মেনে নিবেন?

আপনার মতামত দিন



শেষের পাতা অন্যান্য খবর

করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৭৭০

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

মায়ের দাফনেও থাকতে পারছে না সন্তানেরা

গ্যাসের আগুনে পুড়লো পুরো পরিবার

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

করোনায় বাড়ছে আদা রসুনের দাম

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

প্রথম আলো সম্পাদকের জামিন

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

চসিক নির্বাচন

এবার ধানের শীষের প্রার্থী নিয়ে জল্পনা

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

করোনা : বাড়ছে মৃত্যুর কাফেলা

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত