আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা

প্রথম পাতা

মানবজমিন ডেস্ক | ১২ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৩২
রোহিঙ্গা গণহত্যা নিয়ে মিয়ানমারকে অভিযুক্ত করে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ বিচারিক সংস্থা আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে মামলা করেছে গাম্বিয়া। এ নিয়ে সোমবার একটি বিবৃতি দিয়েছে  গাম্বিয়ার আইনজীবীরা। গাম্বিয়া ওই মামলাটি করেছে ইসলামিক দেশগুলোর সংস্থা ওআইসির পক্ষ থেকে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, দেশটির বিচার মন্ত্রী আবুবকর তামবাদউ। এ খবর দিয়েছে আল-জাজিরা।
ওই মামলায় আন্তর্জাতিক বিচার আদালতকে অবিলম্বে মিয়ানমারের আগ্রাসী আচরণ বন্ধে আদেশ দেয়ার আবেদন জানানো হয়। ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নৃশংস অভিযান পরিচালনা করে। পরবর্তীতে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশ একে গণহত্যা হিসেবে আখ্যায়িত করে।
সে সময় মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হামলার মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে প্রায় সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা। তাদের মুখ থেকে জানা যায় ভয়াবহ গণহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন ও বসতবাড়ি পুড়িয়ে দেয়ার কথা।
গাম্বিয়া ও মিয়ানমার দু’দেশেই ১৯৪৮ সালের জেনোসাইড কনভেনশনে স্বাক্ষরকারী দেশ। এই কনভেনশনে স্বাক্ষরকারী দেশগুলো শুধু গণহত্যা থেকে বিরত থাকা নয় বরং এ ধরনের অপরাধ প্রতিরোধ এবং অপরাধের জন্য বিচার করতে বাধ্য। মামলার পর হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, মূলত জেনোসাইড কনভেনশন লঙ্ঘনের অভিযোগে মামলাটি হয়েছে। সংস্থার এসোসিয়েট ইন্টারন্যাশনাল জাস্টিস ডিরেক্টর পরম প্রীত সিংহ বলেছেন, গাম্বিয়ার আইনি পদক্ষেপ বিশ্বের সর্বোচ্চ আদালতে একটি আইনি প্রক্রিয়ার সূচনা করলো যেটা প্রমাণ করতে পারে যে, রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের নিষ্ঠুরতা  জেনোসাইড কনভেনশন লঙ্ঘন করেছে।  যেসব বেসরকারি সংস্থা এ উদ্যোগকে সমর্থন করছে তাদের মধ্যে আছে নো পিচ উইদাউট জাস্টিস, ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর কনস্টিটিউশনাল অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস, দি ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন ফর হিউম্যান রাইটস, গ্লোবাল জাস্টিস সেন্টারে ও হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতো সংস্থাগুলো।
লন্ডনভিত্তিক গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) গাম্বিয়া ৪৬ পাতার একটি আবেদনপত্র জমা দিয়েছে, যাতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধনযজ্ঞ চালানোর সুসপষ্ট অভিযোগ আনা হয়েছে। এতে গাম্বিয়ার ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসাতু তোরে বলেন, আমার এই ছোট দেশের রয়েছে বিশ্বজুড়ে মানবাধিকারের জন্য বড় একটি কণ্ঠ। ওই মামলায় গাম্বিয়াকে সমর্থন দিয়েছে ওআইসির অন্তর্ভুক্ত ইসলামিক দেশগুলো। এ নিয়ে প্রথম শুনানি হবে এ বছরের ডিসেম্বর মাসে।
এর আগে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী আবুবাকার মারি তামবাদু গণহত্যার দায়ে মিয়ানমারকে আইনের আওতায় আনতে আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে মামলা করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। ইরাসমাস বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সেমিনারে তামবাদু জানিয়েছিলেন, আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে এই মামলা করার জন্য আমি আইনজীবীদের নির্দেশনা দিয়েছি। মামলার সবরকম প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। আমি জানি, মিয়ানমারের নাগরিকরা কতটা অসহায় হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। কক্সবাজার পরিদর্শনকালে তাদের করুণ দশা দেখেছি। রুয়ান্ডায় চালানো গণধর্ষণ, হত্যা এবং গণহত্যার গন্ধ রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো নিপীড়নেও পেয়েছি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

তৃণমূল কংগ্রেস আর একটা স্বাধীনতার আন্দোলন করবে

শ্রদ্ধা ও চোখের জলে মাহফুজুর রহমান খানকে শেষ বিদায়

সুরতহাল রিপোর্টে রুম্পার শরীরের বিভিন্নস্থানে জখম, সহপাঠীদের বিক্ষোভ, দোষীদের শাস্তি দাবি

জাগপা’র সভাপতি হলেন তাসমিয়া প্রধান

খেলতে বাধা দেয়ায় থানায় শিশুর অভিযোগ

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সারাদেশে যুবদলের বিক্ষোভ কাল

৩ ইইউ শক্তির চিঠি প্রত্যাখ্যান, ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি জারি রাখবে ইরান

ঘুষসহ সিভিল এভিয়েশনের কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

‘বিএনপির অস্থিরতা সৃষ্টি ক্ষমার অযোগ্য’

রুম্পার মৃত্যু ঘিরে রহস্য

‘বিএনপি স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের অংশ, আচরণেই প্রমাণ করে’

‘প্রকল্প নির্মাণের সময় পরিবেশের ক্ষতি নিয়ে আমরা কেউ ভাবিনা’

বিস্মিত ফখরুল

শ্বেত ভাল্লুকের দখলে রুশ গ্রাম

দিনে নূরের সংবাদ সম্মেলন, রাতে ‘কোপানোর’ হুমকি

ভুটানকে ১০ উইকেটে হারালো সৌম্যরা