সাহিত্যিক নবনীতা দেবসেন প্রয়াত

কলকাতা প্রতিনিধি

দেশ বিদেশ ৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার

সাহিত্যিক নবনীতা দেবসেন প্রয়াত হয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় দক্ষিণ কলকাতায় নিজ  বাসাতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। দুই কন্যা অন্তরা ও নন্দনাসহ অগণিত গুনমুগ্ধ পাঠক রেখে তিনি বিদায় নিয়েছেন। দুরারোগ্য ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েও শেষদিন পর্যন্ত দৃঢ় মনোবল ধরে রেখেছিলেন নবনীতা। নিয়মিত লেখালেখিও করে গিয়েছেন। রাধারানি দেবী ও নরেন্দ্রনাথ দেবের কন্যা নবনীতার জন্ম কলকাতাতেই ১৯৩৮ সালের ১৩ই জানুয়ারি। নবনীতা ছিলেন কবি, ঔপন্যাসিক ও ভ্রমণ কাহিনীর লেখক।
অনেক রূপকথাও লিখেছেন তিনি। অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল ১৯৫৯ সালে। ১৯৭৬ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। নবনীতা ছিলেন একাধারে শিক্ষাবিদও। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাহিত্য বিভাগের তিনি ছিলেন জনপ্রিয় অধ্যাপক। পড়িয়েছেন বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়েও। ১৯৯৯ সালে তিনি পেয়েছিলেন সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার। ২০০০ সালে পেয়েছিলেন ভারতের রাষ্ট্রীয় সম্মান ‘পদ্মশ্রী’। ১৯৫৯ সালে প্রকাশিত হয় তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘প্রথম প্রত্যয়’। আর ১৯৭৬ সালে প্রকাশিত হয় প্রথম উপন্যাস ‘আমি অনুপম’। সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় লেখালেখিতে নবনীতা ছিলেন সিদ্ধহস্ত। তিনি দীর্ঘদিন ‘রামকথা’ নিয়ে কাজ করছেন। সীতার দৃষ্টিভঙ্গি থেকে তিনি রামকথার বিশ্লেষণ করেছেন। ‘চন্দ্রাবতী রামায়ণ’ তার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ। নবনীতা দেবসেনের মৃত্যুতে সাহিত্য জগতে শূন্যতা সুষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন লেখক-শিল্পীরা।
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শোকবার্তায় লিখেছেন, বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ নবনীতা দেবসেনের প্রয়াণে সাহিত্য জগতে এক অপূরণীয় ক্ষতি হল। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকেও তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয়েছে।

দেশ বিদেশ অন্যান্য খবর

বাজার সম্প্রসারণে জার্মান বিনিয়োগ পেলো ওয়ালটন

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণে বিশ্বের দ্রুত অগ্রসরমান ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ড হিসেবে ওয়ালটনের পাশে দাঁড়াচ্ছে জার্মান বিনিয়োগ এবং ...

ট্রাম্পকে অভিশংসনের দুটি আর্টিকেল অনুমোদন কংগ্রেসে

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন প্রক্রিয়ায় দুটি অভিযোগ বা আর্টিকেল অনুমোদন করেছে কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের ...

ক্ষমতা না-ও ছাড়তে পারেন মাহাথির মোহাম্মদ

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

 ২০২০ সালের পরেও ক্ষমতায় থেকে যেতে পারেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ। কাতারের রাজধানী দোহা’য় ...

সুদানের ক্ষমতাচ্যুত বশিরের রায় ঘোষণা

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

প্রায় ত্রিশ বছর পর ক্ষমতাচ্যুত সুদানের শাসক ওমর আল বশিরের বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা ...

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল সফরে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যের সতর্কতা

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

 নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনকে কেন্দ্র করে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে চলমান সহিংস বিক্ষোভের প্রেক্ষিতে ভ্রমণ সতর্কতা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ...

বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইনে ঢাকা-দিল্লির ‘স্বর্ণালী’ সম্পর্ক কেঁপে উঠেছে

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে ‘ট্রাবল-ফ্রি’ বা ঝামেলামুক্ত হিসেবে দেখে ভারত, যেখানে বহুবিধ সমস্যা রয়েছে। এমনকি বলা ...

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের জীবনাদর্শ অনুসরণ করতে হবে: ঢাবি ভিসি

১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন,শহীদ বুদ্ধিজীবীদের জীবনাদর্শ অনুসরণ করে উদার, অসাম্প্রদায়িক ও ...





পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mohammed Abdul Malek

২০১৯-১২-১৬ ০৮:৫২:০৫

সেই সময় হানাদার বাহিনী কারা ছিল?

আপনার মতামত দিন

দেশ বিদেশ সর্বাধিক পঠিত