হাসিনা-ম্যাক্রন বৈঠক

বাণিজ্য সহযোগিতা বাড়াতে ঐকমত্য

শেষের পাতা

দীন ইসলাম, প্যারিস থেকে | ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৯
বাণিজ্য, অর্থনীতি ও অন্যান্য অগ্রাধিকার ক্ষেত্রে সহযোগিতার সুযোগ-সুবিধা অনুসন্ধানে একটি যৌথ কমিশন গঠনে সম্মত হয়েছে ঢাকা ও প্যারিস। ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। বৈঠক শেষে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক বলেন, বৈঠকে উভয় নেতা অত্যন্ত আন্তরিক ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট দ্বিপক্ষীয় ও বৈশ্বিক বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করেন। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, বৈঠকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু জলবায়ু পরিবর্তনসহ পাঁচটি বিষয়ে আলোচনা হয়। সচিব বলেন, দুই নেতার আলোচনায় রোহিঙ্গা ইস্যু এবং সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশের অব্যাহত অগ্রগতির প্রসঙ্গটিও উঠে আসে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ফরাসি প্রেসিডেন্টকে বলেন, ‘আপনার নেতৃত্বের প্রতি বাংলাদেশের মানুষের অত্যন্ত আগ্রহ ও আন্তরিকতা রয়েছে।’ এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাংলাদেশের সমর্থনে ফরাসি সরকার ও জনগণ বিশেষ করে ফরাসি ঔপন্যাসিক আঁদ্রে মালরো’র ভূমিকার কথা স্মরণ করেন।
শহীদুল হক বলেন, যৌথ কমিশন গঠনের ধরন পরবর্তীতে ঠিক করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফরাসি প্রেসিডেন্টকে তার সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। ফরাসি প্রেসিডেন্ট আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন এবং আগামী বছরের শুরুর দিকে তার দক্ষিণ এশিয়া সফরের সময় বাংলাদেশ সফরে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ফরাসি প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশে বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীরা অধিকতর সম্পৃক্ততার সুযোগ পাবেন এমন অগ্রাধিকার খাতগুলোতে সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে তার আগ্রহ প্রকাশ করেন। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার জ্বালানি, অবকাঠামো, ওষুধ শিল্প, আইসিটি ও বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং শক্তিশালী আঞ্চলিক সহযোগিতার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে।
২০১৫ সালের ১২ই ডিসেম্বর জাতিসংঘের জলবায়ু বিষয়ক সম্মেলনের ২১তম অধিবেশনে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি গৃহীত হয়। ওই চুক্তির দুই বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত ওয়ান প্ল্যানেট সম্মেলনে বিশ্ব নেতারা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ এবং তা অর্জনে উদ্ভাবনী ও বাস্তবায়নযোগ্য উদ্যোগ গ্রহণের বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হবে। প্যারিসে অনুষ্ঠেয় সম্মেলনে হাই লেভেল সেগমেন্টে প্রধানমন্ত্রীসহ আমন্ত্রিত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা অংশ নেবেন। বিশ্বের এসব নেতারা কার্বন নিরপেক্ষতা জোট; কয়লা পরিত্যাগ জোট; উন্নয়ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের যৌথ ঘোষণা; জলবায়ু প্রতিবেদন পেশ এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণে সরকারি- বেসরকারি নতুন জোট; প্যারিস চুক্তির আলোকে পরিবেশগত, সামাজিক ও সুশাসন নিশ্চিতকরণের সার্বভৌম তহবিল গঠন জোট; কার্বন মূল্যমান নির্ধারণ জোট; জলবায়ু সহনশীলতা ও অভিযোজন বিষয়ে নতুন অঙ্গীকার গ্রহণকারী দেশসমূহের জোটে সুনির্দিষ্ট উদ্যোগ নিয়ে সম্মেলনে বিভিন্ন দেশের নেতারা আলোচনা করবেন। এর বাইরে নানা ইস্যুতে বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানরা আলোচনা করতে পারেন। এর আগে সবশেষ ২০১১ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফ্রান্স সফর করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী আজ ঢাকার উদ্দেশে প্যারিস ছাড়বেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন