সরকার প্রমাণ করতে না পারলে পদত্যাগ করতে হবে: মওদুদ

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১১ ডিসেম্বর ২০১৭, সোমবার
বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তার পরিবার বিদেশে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার পাচারের বিষয়টি প্রমাণ করতে না পারলে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। গতকাল তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী আতাউর রহমান খানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মওদুদ আহমদ বলেন, আমাদের মহাসচিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমা চাইতে বলেছেন। আমি বলব যদি বিদেশে অর্থ পাচার প্রমাণ করতে না পারেন তাহলে এ সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। খালেদা জিয়া সম্পর্কে মিথ্যা কাল্পনিক কথা বলে দেশের সংকটের দিকে থেকে মানুষের দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরানোর অপচেষ্টা চলছে। ১২০০ কোটি ডলারের কথা এত দিন বলেননি কেন? বাংলাদেশের মানুষ এ ধরনের কথা বিশ্বাস করে না।
মওদুদ বলেন, সরকারের জনপ্রিয়তা এখন শূন্যের কোঠায়। সরকার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছে। সরকার উন্নয়নের কথা বলে কিন্তু গণতন্ত্রের কথা বলে না। গণতন্ত্রের কথার নামে একতন্ত্রের কথা বলে। অন্য দল বা অন্য শ্রেণির কথা সরকার বলে না। উন্নয়নের পূর্বশর্ত সুশাসন। সংসদে, বিচার বিভাগে কোথাও সুশাসন নেই। এ সরকারের ব্যর্থতা হলো সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে না পারা। সদ্য পদত্যাগ করা প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বিষয়ে মওদুদ আহমদ বলেন, প্রধান বিচারপতিকে সরে  যেতে হয়েছে, এ ধরনের ঘটনা আগে কখনো ঘটেনি।
প্রধান বিচারপতি বিচার বিভাগকে স্বাধীন করতে চেয়েছিলেন বলে এভাবে তাকে সরে যেতে হয়েছে। অথচ সরকার বলে বিচার বিভাগ স্বাধীন। তিনি অভিযোগ করেন, বর্তমান বিচারপতিরা ভয়ভীতি নিয়ে বিচারকাজ পরিচালনা করছেন। রায় দিলে তাঁদের পরিণতি প্রধান বিচারপতির মতো হয় কি না, তা নিয়ে তাঁরা শঙ্কিত।
অনুষ্ঠানে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যার শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন,  চেয়ারপারসন উপদেষ্টা জয়নাল আবেদীন ফারুক, ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি দেওয়ান  মো. সালাউদ্দিন, সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবির, ইব্রাহিম রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
খালেদা জিয়ার অর্থ পাচারের তথ্য বানোয়াট: সৌদি বিএনপি
এদিকে প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এবং তার দুই পুত্রের বিরুদ্ধে সৌদি আরব ও কাতারে বিপুল পরিমাণ অর্থ পাচার সংক্রান্তের যে বক্তব্য দিয়েছেন তা মিথ্যা ও বানোয়াট বলে মন্তব্য করেছে সৌদি আরব বিএনপি। শনিবার জেদ্দার একটি হল রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সৌদি আরব শাখা সভাপতি আহমেদ আলী মুকিব। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন,  বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কল্পিত পাচারকৃত সম্পদের বর্ণনা এবং কল্পিত সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত কল্পিত সম্পদ সম্পর্কে যে বক্তব্য প্রদান করেছেন তা সর্বৈব মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। কাল্পনিক দুর্নীতির এসব কাহিনীর মূল উদ্দেশ্য দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করা এবং রাজনৈতিকভাবে তাকে জনগণের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা মাত্র। এসব তথ্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভিত্তিহীন।  তিনি আরও বলেন,  আরবভিত্তিক চ্যানেলগুলির বরাত দিয়ে গ্লোবাল ইন্টিলিজেন্স নেটওয়ার্ক এবং কানাডার টিভি ঞযব ঘধঃরড়হধষ চ্যানেল এই সংবাদ দিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতারা জানান, ঞযব ঘধঃরড়হধষ নামে কানাডায় কোন টিভি চ্যানেল নেই। অনুরূপভাবে গ্লোবাল ইন্টিলিজেন্স নেটওয়ার্ক নামে কোন গণমাধ্যম খুঁজে পাওয়া যায় না।
তিনি বলেন, স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সাথে সকল ভ্রাতৃপ্রতিম মুসলিম দেশ সমূহের সাথে বিশেষ করে সৌদি আরবের সাথে জিয়া পরিবারের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক যা আজও অটুট রয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া প্রতি বছর রাজ পরিবারের সম্মানিত মেহমান হয়ে ওমরা বা হজ্জ করতে আসেন। আগামী নির্বাচনে নিশ্চিত ভরাডুবি জেনে ও জিয়া পরিবারের জনপ্রিয়তায় ভয় পেয়েই  সরকার এই সব অসত্য তথ্য পরিবেশন করছেন বলে মন্তব্য করেন তারা।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দলটির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সৌদি আরব বিএনপির উপদেষ্টা আব্দুর রহমান, সৌদি আরব বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মীর মনিরুজ্জামান তফন, সহ-সভাপতি কেফায়ত উল্লাহ কিসমত।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন