মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক নিবিড় করতে চায় চীন

এক্সক্লুসিভ

মানবজমিন ডেস্ক | ২৪ নভেম্বর ২০১৭, শুক্রবার
আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তা জোরদার করতে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক আরো নিবিড় করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে চীন। চীনের সেনাবাহিনীর একজন সিনিয়র জেনারেল সে দেশে সফররত মিয়ানমারের সেনাপ্রধানকে এমনটিই জানিয়েছেন। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। চীন এবং মিয়ানমারের মধ্যকার কূটনৈতিক এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক কয়েক বছর ধরেই বেশ জোরদার। বিশেষ করে, তেল ও গ্যাসের মতো কৌশলগত খাত নিয়ে দুই দেশের ঘনিষ্ঠতার ফলে এ সমপর্ক আরো জোরদার হয়েছে। এ জন্য, মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর 
চালানো নির্যাতনের ঘটনায় সারা পৃথিবী যখন এর বিরুদ্ধে সোচ্চার, সেখানে চীন কোনো রাখঢাক না রেখেই মিয়ানমারের পক্ষ নিয়েছে।
মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে ৬ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে পার্শ্ববর্তী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। পরিস্থিতির ভয়াবহতায়, বুধবার যুক্তরাষ্ট্র প্রথমবারের মত মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের উপর চালানো অভিযানকে জাতি নির্মূল অভিযান বলে আখ্যায়িত করেছে। দিয়েছে নৃশংসতায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট অবরোধ আরোপ করার হুমকিও।
অন্যদিকে, চীনের কেন্দ্রীয় মিলিটারি কমিশনের মুখ্যকর্তা লি ঝউচাং সে দেশে সফররত মিয়ানমারের সিনিয়র জেনারেল মিন অং হিলাংকে বলেছেন, চীনের উত্তরোত্তর উন্নয়ন এবং সমৃদ্ধির ফলে মিয়ানমারের সামনে একটি বিশাল সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমানের ক্রম পরিবর্তনশীল এবং জটিল আঞ্চলিক নিরাপত্তা পরিস্থিতেকে মাথায় রেখে, চীন মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে কৌশলগত সমপর্ক আরো জোরদার করতে চায়। আরো বলেন, চীন দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে যোগাযোগ আরো বাড়াতে চায়। নিবিড় করতে চায় প্রশিক্ষণ এবং প্রযুক্তি সংক্রান্ত আদানপ্রদান। প্রতিবেশী দুই দেশের সীমান্তে শান্তি এবং স্থিতি বজায় রাখতে এর কোনো বিকল্প নেই।
দুই দেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং সে দেশের সংখ্যালঘু বিদ্রোহীদের মধ্যকার বিবাদে উষ্মা প্রকাশ করেছে চীন। কয়েক বছর ধরে চলতে থাকা ওই সংঘর্ষে কখনো কখনো হাজারো গ্রামবাসী চীনে পালিয়ে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে। অবশ্য নিজেদের দেয়া ওই বিবৃতিতে রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে সরাসরি কোনো ধরনের আলোকপাত করেনি চীন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন