একটি ‘পাঠাও’ অভিজ্ঞতা ও জয়ের গল্প

চলতে ফিরতে

সিরাজুস সালেকিন | ৩১ অক্টোবর ২০১৭, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:২১
গত ১৫ অক্টোবরের ঘটনা। আমার অফিসিয়াল এসাইনমেন্ট ছিল আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশনে। ইসির সঙ্গে সংলাপে বসেছিল বিএনপি। একইদিনে ঢাকাস্থ রংপুর বিভাগ সাংবাদিক সমিতির (আরডিজেএ) নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম উত্তোলন ও জমার শেষ সময়। ওইদিন ইসিতে আমার কাজ শেষ হয় বেলা ৩টা ১৫ মিনিটে। আর ওইদিকে মনোনয়ন জমার শেষ সময় বেলা ৪টায়। তোপখানায় আরডিজেএ অফিসে অবস্থানরত আমার বন্ধু ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের স্টাফ রিপোর্টার আকতারুজ্জামান একের পর এক ফোন দিয়ে যাচ্ছে। সময় ফুরিয়ে যাচ্ছে। মনোনয়ন ফরম পূরণ করতে হবে। ইসিতে অবস্থানরত পরিচিত যারা বাইক ব্যবহার করেন তাদের কাউকে পেলাম না। টেনশন বাড়ছে। এসময় আকতারুজ্জামান পরামর্শ দিলেন, পাঠাও কল করুন।

আমার ফোনে পাঠাও ইনস্টল করা ছিল। কিন্তু কোনোদিন ব্যবহার করিনি। রাইড রিকুয়েস্ট করলাম। একজন রাইডার কানেক্ট হয়ে আবার ডিসকানেক্ট হয়ে গেলেন। চরম দুশ্চিন্তার মধ্যে পড়লাম। আবার চেষ্টা করলাম।

এবার জয়নাল আবেদিন নামে একজন রাইডার কানেক্ট হলেন। তিনি নিজে ফোন করে জানালেন ৫ মিনিট সময় লাগবে। তার কথামতো আগারগাঁওয়ে মূল রাস্তায় দাঁড়ালাম। দশ মিনিটের মাথায় পিক আপ লোকেশনে আসলেন তিনি। সর্তকর্তার সঙ্গে আমাকে নিয়ে রাইড শুরু করলেন। মাঝ রাস্তায় ফার্মগেটে আনসার সদস্য অহেতুক আটকানোর চেষ্টা করে। জয়নাল ভাইয়ের কৌশলে পার পেয়ে যাই। ঠিক বিশ মিনিটের মাথায় অর্থাৎ ৩টা ৪৫ মিনিটে আমার গন্তব্য তোপখানায় আরডিজেএ অফিসে পৌঁছে যাই। যেখানে বাসে করে যেতে সাধারণত এক থেকে দেড় ঘন্টা, কখনও কখনও দুই ঘন্টা লেগে যায়। প্রোমো কোড থাকায় ১৩০ টাকা ভাড়ার অর্ধেক ৬৫ টাকা পরিশোধ করি। আর নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই কাক্সিক্ষত মনোনয়ন ফরম উত্তোলন করে জমা দিই। গতকাল ছিল আরডিজেএ’র দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন। ভোটারদের রায়ে আমি এই সংগঠনের ক্রীড়া ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক পদে জয়লাভ করি। জীবনের প্রথম নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছি শুধুমাত্র বিকল্প একটি পরিবহন ব্যবস্থার কারণে।

জীবিকার সন্ধানে ঢাকায় যারা বাস করেন তাদের প্রধান শত্রু হচ্ছে যানজট। বিশ্বব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী, রাজধানীতে যানজটের কারণে দৈনিক ৩২ লাখ কর্মঘন্টা নষ্ট হয়। পরিসংখ্যানই বলে দেয় ভোগান্তির পরিমাণটা কেমন। আর যারা গণপরিবহণের ওপর নির্ভর করে চলে তাদের দুর্ভোগ অবর্ণনীয়। রাইড শেয়ারিং সার্ভিসের কারণে এই দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমবে বলে মনে হচ্ছে। তবে পুরো বিষয়টি একটি নীতিমালার আওতায় আসলে সাধারণ ব্যবহারকারীদের জন্য কল্যাণকর হবে। আশা করি সরকার দ্রুত নীতিমালার কাজ শেষ করে এই সার্ভিসকে বৈধতা প্রদান করবে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

চারদিকে তখন আতঙ্ক

ফ্যামিলি ভিসা নিরাপত্তার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়- ট্রাম্প

নিউ ইয়র্কে সন্ত্রাসী হামলাকারী আকায়েদের বাড়ি চট্টগ্রামে

প্যারিসে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

নিউ ইয়র্কে বোমা হামলাকারী বাংলাদেশী আকায়েদ উল্লাহ আইএসের অনুসারী, দায় স্বীকার আইএসের

শাহজালালে বিপুল পরিমান আমদানী নিষিদ্ধ ঔষুধসহ আটক ১

নব্য জেএমবির দুই সদস্য গ্রেপ্তার

‘রাজকোষ চুরি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক’

রোহিঙ্গা নির্যাতন: মিয়ানমারের মহামূল্যবান রত্ন শিল্পে আঘাত

‘এটা আমার জন্য বড় একটি ব্যাপার’

২০ লাখ পাউন্ড ঘুষ কেলেঙ্কারিতে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী ও সাবেক ডেপুটি-মেয়রের নাম

পাচার অর্থ ফেরতে নানা জটিলতা

ম্যানহাটন হামলায় আটক ব্যক্তি বাংলাদেশি?

২৯ রোহিঙ্গা নারীর মুখে ধর্ষণযজ্ঞের বর্ণনা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ত্রাণ বিতরণ এক সপ্তাহ স্থগিত

বাকেরগঞ্জে সাবেক এমপি মাসুদ রেজার ভাই গুলিবিদ্ধ