ফের অশান্ত দার্জিলিং

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৪ অক্টোবর ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:৪৬
বেশ কিছুদিন শান্ত থাকার পর  শুক্রবার দার্জিলিং ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।  বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার সভাপতি বিমল গুরুংকে ধরার জন্য সিকিম সীমান্তের জঙ্গলে পুলিশ অভিযান চালালে গুরুংপন্থিদের সঙ্গে পুলিশের গুলির লড়াই হয়েছে। আর গুরুংপন্থিদের গুলিতে  এক পুলিশ অফিসারের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও চার পুলিশ কর্মী। নিহত সাব ইন্সপেক্টর হলেন অমিতাভ মল্লিক, মাত্র ছয় মাস আগেই বিয়ে করেছিলেন। তার মৃত্যুতে উত্তর ২৪ পরগণার মধ্যমগ্রামে তার পরিবারে শোকের মাতম দেখা গেছে। মোর্চার পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে তাদের এক সমর্থকের মৃত্যু হয়েছে।
শুক্রবার দুপুরে নবান্নে এক সাংবাদিক সম্মেলনে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের এডিজি আইনশৃঙ্খলা অনুজ শর্মা বলেছেন, মোর্চা সভাপতি বিমল গুরুং তার কয়েকজন ঘনিষ্ঠকে সঙ্গে পাতলেবাসের কাছেই লুকিয়ে রয়েছেন খবর পাওয়ার পরই পুলিশ তাকে ধরতে লিম্বু বস্তিতে অভিযান চালায়। তবে গুরুংকে পালাতে দেবার জন্য তার অনুগামীরা পুলিশের উপর গুলি চালায়। পুলিশ সেখানে একটি অস্ত্র কারখানার হদিস পেয়েছে । সেখান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ৬টি এ কে ৪৭, একটি নাইন এমএম পিস্তল, ৫০০ কার্তুজ এবং বিস্ফোরক তৈরির মশলা।  গত আগষ্টে বিমল গুরুংসহ মোর্চার শীর্ষ নেতৃত্বের অনেকের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহীতার অভিযোগে আন-ল’ফুল অ্যাক্টিভিটিজ প্রিভেনশান অ্যাক্টে মামলা করা হয়েছে। এছাড়া গত ৮ জুন ভানু ভবনে রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠক চলাকালীন অশান্তি সংগঠিত করার  অভিযোগে গুরুংয়ের বিরুদ্ধে গত সেপ্টেম্বরে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি করা হয়েছে। জারি করা হয়েছে লুকআউট নোটিশ। এর আগে থেকেই অবশ্য গুরুং আত্মগোপনে রয়েছেন। অথচ গত বৃহষ্পতিবারই বিমল গুরুং স্থানীয় সাংবাদিকদের এক অডিও বার্তায় জানিয়েছিলেন যে,  ৩০ অক্টোবর তিনি দার্জিলিং ফিরে এসে সভা করবেন। তবে অনুজ শর্মা এদিন বলেছেন, যে করেই হোক বিমল গুরুংকে গ্রেপ্তার করা হবে। তল্লাশি চলছে। তিনি আরও অভিযোগ করেছেন, মাওবাদী ও  উত্তরপূর্ব ভারতের  বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে গুরুংয়ের যোগযোগ রয়েছে। সেখান থেকেই অস্ত্র এবং অর্থ জোগাড় করছেন। এদিকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করতে গোর্খা টেরিটোরিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশানের প্রশাসনিক বোর্ডের চেয়ারম্যান বিনয় তামাং শুক্রবারই কলকাতায় এসেছেন। আগামী সোমবার পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সঙ্গে পাহাড়ের দলগুলির বৈঠক হবে। এই বৈঠকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যেপাধ্যায় ত্রিপাক্ষিক বৈঠকের বিষয়ে সরকারের মত জানাবেন বলে আগের বৈঠকে জানিয়েছিলেন । এর আগে রাজ্য সরকার পাহাড়ের দলগুলির সঙ্গে দুই দফায় বৈঠক করেছেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন