রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে ভারতের সমুদ্র সীমান্ত বন্ধ, স্থলসীমান্তে কড়াকড়ি

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:২৪
ফাইল ছবি
রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে স্থল ও সমুদ্র সীমান্তে কঠোর নজরদারি শুরু করেছে ভারত। রোহিঙ্গারা ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করতে পারে এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে এ পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটি। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক খবরে বলা হয়, বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত দিয়ে রোহিঙ্গাদের  অনুপ্রবেশের চেষ্টা কঠোরভাবে ঠেকাতে দিল্লির উর্দ্ধতর্ন মহল থেকে স্পষ্ট নির্দেশনা পেয়েছে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ। ওদিকে, ইন্ডিয়া টুডে জানিয়েছে, সমুদ্র সীমান্ত সিল করে দিয়েছে ভারতীয় কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী। 
এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে  বলা হয়, উপর মহলের নির্দেশনা মোতাবেক ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ঝুঁকিপূর্ণ স্থানগুলো শনাক্ত করেছে বিএসএফ। তারা পশ্চিমবঙ্গে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের যে কোন চেষ্টা প্রতিহত করতে প্রস্তুত। বিএসএফ সাইথ বেঙ্গলের আইজি পিএসআর আনাজানেয়ুলু ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেন, ‘আমাদের যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তা স্পষ্ট।
সেটা হলো- তাদের কঠোরভাবে মোকাবিলা করা। আমরা তাদের শনাক্ত করবো এবং পুশব্যাক করবো। আমরা সকল সংস্থার সঙ্গে সমন্বয়মূলক বৈঠক করেছি। অনুপ্রবেশ রুখে দেয়ার জন্য সীমান্ত এলাকার দূর্বল স্থানগুলো শনাক্ত করেছি।’ 
বিএসএফ সূত্রগুলো জানিয়েছে, বিগত সপ্তাহজুড়ে বিএসএস কর্মকর্তা ও নয়া দিল্লির উর্দ্ধতর্নদের সঙ্গে এ নিয়ে কয়েক দফা আলোচনা হয়েছে। এরপর কলকাতায় কয়েক দফা বৈঠক হয়। মঙ্গলবার কলকাতায় সাউথ বেঙ্গল সদরদপ্তরে বিএসএফ কমান্ডেন্টদের বৈঠকে তাদের পদক্ষেপ দেয়ার নির্দেশনা স্পষ্ট করা হয়। এর আগে বলা হয়েছিল, রোহিঙ্গাদের গ্রেপ্তার করে রাজ্য পুলিশের কাছে হস্তান্তর করতে। কিন্ত, এবার তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে পুশ ব্যাক করতে। 
ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার সম্প্রতি দেশটির সুপ্রিম কোর্টে একটি এফিডেভিট দাখিল করেছে। এতে সরকার পশ্চিমবঙ্গে সীমান্ত নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে। এতে সরকার রোহিঙ্গাদেরকে ভারতের জন্য ‘নিরাপত্তা হুমকি’ বলে আখ্যা দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী অবশ্য, বলেছেন, তিনি রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের অবস্থান সমর্থন করেন। তিনি এও বলেছেন, ‘সকল রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নয়।’  
ওদিকে, ইন্ডিয়া টুডের খবরে বলা হয়, রোহিঙ্গারা সমুদ্রপথে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করতে পারে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। এই সতর্কবার্তার পর সমুদ্র সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী। গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, রোহিঙ্গার বাংলাদেশের সমুদ্র এলাকা বা মিয়ানমারের সমুদ্র এলাকা দিয়ে আন্দামান ও নিকোবার দ্বিপ থেকে প্রবেশ করতে পারে। 
সরকারের সিনিয়র এক সূত্র ইন্ডিয়া টুডেকে বলেছেন, সমুদ্রসীমায় নজরদারি তৎপরতার মধ্যে রয়েছে নজরদাবি বিমান, হভারক্রাফট ও নজরদারি টহল জাহাজ। 
এখন পর্যন্ত কোন অনুপ্রবেশ চেষ্টা দেখা যায় নি বলে খবরে বলা হয়। তবে, প্রহরা জোরদার করা হয়েছে আর উচ্চ সতর্কতায় আছে নিরাপত্তা বাহিনীগুলো।   

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘অভিযোগ কাল্পনিক ও বানোয়াট’

মইনকে আশ্বস্ত করেছিলেন প্রণব

ব্লু হোয়েল গেম জায়েজ নয়

শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন চায় জেপি

রোহিঙ্গাদের দেখতে আসছেন জর্ডানের রানী

পেপ্যাল ‘জুম’ সার্ভিস বাংলাদেশে

হাওরে সরকারি প্রকল্পে লুটপাট হয়েছে

প্রার্থী নিয়ে নির্ভার আওয়ামী লীগ-বিএনপি

গণমাধ্যম-সশস্ত্র বাহিনীর সম্পর্ক নিয়ে সেমিনার

সিলেটে ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত, সেক্রেটারিসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

খালেদা জিয়ার পুরো জবানবন্দি

বরিশালে বিচারকের ভূমিকায় বেঞ্চ সহকারী, তোলপাড়

গাজীপুরে প্রাক্তন তিন সেনা সদস্যসহ ৪জন গ্রেপ্তার

খান আতা ইস্যুতে এফডিসিতে চলচ্চিত্র পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

আদালত অঙ্গনে খালেদার আইনজীবীদের হাতাহাতি

বন্যায় ৩০ শতাংশ ধান উৎপাদন কম হতে পারে