বাহুবলে মসজিদ কমিটি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ২

শেষের পাতা

বাহুবল (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৪৯
বাহুবলের মুগকান্দি মসজিদ কমিটি ও ইমাম পরিবর্তনের জের ধরে সংঘর্ষে ২ জন নিহত ও পুলিশসহ শতাধিক লোক আহত হয়েছে। আহতদের বেশির ভাগই হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে গা-ঢাকা দিয়েছে। নিহতরা হলো, মুগকান্দি গ্রামের কবির মিয়া লন্ডনী (৫৫) ও একই গ্রামের মতিন মিয়া (৫০)। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল সকাল ৬টার দিকে। আগের দিন  বাদ জুমা একই ঘটনার জের ধরে সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়। সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ১০০ রাউন্ড শর্টগানের গুলি এবং ২৫ রাউন্ড টিআর সেল নিক্ষেপ করে।
ঘটনার পরপর পুলিশ বিভিন্ন স্থান থেকে ৮ জনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বাহুবল উপজেলার সাতকাপন ইউনিয়নের মুগকান্দি জামে মসজিদের কমিটি গঠন ও ইমাম পরিবর্তনকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। একপক্ষ বর্তমান ইমাম ফরিদ আখঞ্জীর পরিবর্তন চায়। অপরপক্ষ ওই ইমামের পক্ষে অবস্থান নেয়। এ অবস্থায় গত শুক্রবার জুমার নামাজে সাতকাপন ইউপি চেয়ারম্যান মুগকান্দি গ্রামের আবদাল মিয়া আখঞ্জী গ্রুপের সোহেল মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের মুশাহিদ মেম্বার গ্রুপের শফিক মাস্টারের বাক-বিতণ্ডা হয়। এ বাক-বিতণ্ডার জের ধরে বাদজুমা উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় দু’ঘণ্টা স্থায়ী সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়।
এর জের ধরে গতকাল সকাল ৬টার দিকে উভয়পক্ষ দ্বিতীয় দফা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। দু’ঘণ্টা স্থায়ী সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশ ১০০ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও ২৫ রাউন্ড টিআর সেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষে পুলিশসহ শতাধিক লোক আহত হয়। আহতদের মাঝে গুরুতর মুগকান্দি গ্রামের কবির মিয়া লন্ডনী (৫৫) কে বাহুবল হাসপাতাল এবং একই গ্রামের মতিন মিয়া (৫০) কে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। আহতরা হলেন-আজাদ (২৬), সুহেল মিয়া (৩০), সেলিম আখঞ্জী (৩০), মহিবুর রহমান (২৫), সমাই মিয়া (৩৫), রুনু মিয়া (৫০), সানু মিয়া (৬০), সিজিল মিয়া (২৮), নূর উদ্দিন (১৮), নূর মিয়া (৬০), আরশ মিয়া আখঞ্জী (৫৫), তোফায়েল (২৫), বাবুল মিয়া (৩৫), রুবেল (১৮), কাছন মিয়া (৫০), সুজন আখঞ্জী (২৭), সোহান আখঞ্জী (২২), জাহাঙ্গীর মিয়া (৬০), জাহিদ মিয়া (২৮), মমিন মিয়া (২৭), জুনাব আলী (৫০), রাজিব (১৩) ও রাফিন (১৫), মো. জসিম (৩৮), মোছাব্বির আখঞ্জী (২০), রাজন মিয়া (২২), আনোয়ার মিয়া (৫৫), এএসআই সুহেল শাহ (৩৩), কনস্টেবল জাহিদ খান (২৬) ও আনোয়ার হোসেন (২০) প্রমুখ।
এ ব্যাপারে বাহুবল মডেল থানার এসআই মফিদুল হক জানান, সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে ১০০ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও ২৫ রাউন্ড টিআর সেল নিক্ষেপ করা হয়। ঘটনার পরপর বিভিন্ন স্থান থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে ৮ জনকে আটক করা হয়েছে।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Equus asinus

২০১৭-০৮-১৩ ০৪:৩২:৪৯

London e poycar garommmmmm...shame

আপনার মতামত দিন

মসজিদে গুলি ছোড়ার পর পাল্টে গেল এক মার্কিনীর জীবন

দৃশ্যপট একই

আয় বৈষম্য বাড়ায় চাপে মধ্যবিত্ত

নকলা উপজেলা চেয়ারম্যানের লাশ উদ্ধার

রিভিউর প্রস্তুতি

বাংলাদেশির বীরত্বে ধর্ষকদের হাত থেকে রক্ষা পেলো ইতালীয় তরুণী

ঢাবিতে ‘ঘ’ ইউনিটের প্রশ্ন ফাঁস?

সিলেট টার্মিনালে গুলিবর্ষণ নিয়ে পাল্টাপাল্টি

রোহিঙ্গা স্রোত থামছে না

বড় দুই দলেই প্রার্থীর ছড়াছড়ি

সামান্য বৃষ্টিতেই ডুবেছে চট্টগ্রাম

টানা বৃষ্টিতে নগরজুড়ে দুর্ভোগ

নিম্নমানের কাগজে ছাপা হচ্ছে বিনা মূল্যের পাঠ্যবই

দিনে গড়ে দেড় হাজার মামলা

‘বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখার ষড়যন্ত্র চলছে’

পাকিস্তানের ষড়যন্ত্রে রোহিঙ্গাদের উপর আক্রমণ: মতিয়া চৌধুরী