সিলেটে স্বামীর মাদক আস্তানায় স্ত্রী বিক্রেতা

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার
সিলেটের স্বামীর মাদক রাজ্য পরিচালনা করতো স্ত্রী সাবিহা। স্বামী শাহীন মিয়া দক্ষিণ সুরমার চিহ্নিত একজন মাদক ব্যবসায়ী। সিলেট নগরীর ভার্থখলা স্বর্ণালী-বি ব্লকের একটি বাসায় বসবাস করে শাহীন চালাতো মাদক ব্যবসা। অবস্থা চরম পর্যায়ে গেলে প্রতিবাদী হয়ে উঠেন সাধারণ মানুষ। শুক্রবার তারা ওই মাদক আস্তানা থেকে বের হওয়ার সময় আটক করেন আরেক ইয়াবা ব্যবসায়ী মোক্তার মিয়াকে। শেষে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ মোক্তারের জবানবন্দি মতো প্রায় দেড়ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে ৩০৫ পিস ইয়াবাসহ সাবিহাকে আটক করে।
আটকের পর সাবিহাও পুলিশের কাছে মাদক ব্যবসার কথা স্বীকার করে। পুলিশ জানায়- শাহীন ইয়াবা ব্যবসায়ী। সে পাইকারিভাবে ইয়াবার চালান তার আস্তানায় নিয়ে আসতো। এরপর স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করতো। শুক্রবার নিজ আস্তানাতেই ছিল শাহীন মিয়া। কিন্তু মোক্তার ধরা পড়ার খবরে সে বাসা থেকে পালিয়ে যায়। এরপর ইয়াবার চালান লুকিয়ে রেখেছিল সাবিহা। পুলিশ দেড় ঘণ্টার অভিযানে এই ইয়াবার চালান আটক করে। ভার্থখলা স্বর্ণা সংঘের সদস্যরা জানান- ইয়াবা ব্যবসায়ী শাহীন সম্পর্কে এলাকার লোকজন ওয়াকিবহাল ছিলেন। তারা শাহীনের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে একাধিকবার পুলিশকে অবগত করেন। কিন্তু দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। শুক্রবার বিকেলে ছাতক থানার জাউয়া কোনাপাড়া গ্রামের মাদক ব্যবসায়ী মোক্তার মিয়া মাদক বিক্রেতা শাহীনের বাসা থেকে ইয়াবা ক্রয় করে বের হয়ে যাওয়ার সময় ভার্থখলা স্বর্ণালী সংঘের লোকজন ৩৫ পিস ইয়াবাসহ তাকে আটক করেন। পরে তাকে পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি মিসবাহ উদ্দিন আহমদের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। মিসবাহ উদ্দিন মোক্তারকে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে দক্ষিণ সুরমা পুলিশ ফাঁড়ি একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। এ সময় পুলিশ মোক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জানতে পারে শাহীনের মাদক ব্যবসা সম্পর্কে। পরে শাহীনের ৩ তলা বিশিষ্ট বিলাশ বহুল বিল্ডিং বিভিন্ন রুমে ১ ঘন্টা ২০ মিনিট অভিযান চালিয়ে শাহীনের রুম থেকে ১ লাখ ৩৩ হাজার ৫ শত টাকা, ৩০৫ পিস ইয়াবা ও ইয়াবা খাওয়ার সরঞ্জাম উদ্ধারে। অভিযানে নেতৃত্ব দেন দক্ষিণ সুরমা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ কামাল উদ্দিন আহমদ সরকার ও এ.এস.আই সুদীপ্ত শেখর ভট্টাচার্য। মাদক ব্যবসায়ীদের ধরিয়ে দেয়ার জন্য দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশের পক্ষ থেকে ভার্থখলা স্বর্ণালী সংঘের নেতৃবৃন্দকে অভিনন্দন জানান। অভিযানের সময় উপস্থিত ছিলেন ২৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম শিরুল, ভার্থখলা স্বর্ণালী সংঘের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শিপল চৌধুরী, সদস্য আবদুল হাই শ্যামল, আবদুস সালাম সাহেদ, দিলওয়ার হোসেন, জামিল আহমদ, দুলাল, ফাহিম, আহমদ সাফায়েত, তাজুল ইসলাম, ইয়াহইয়া ইমন, নাহিন প্রমুখ। স্বর্ণালী সংঘের সদস্যরা জানান- শাহীনের মাদকের আস্তানায় পরিচালনা করতো তার স্ত্রী সাবিহা বেগমও। মাদক ব্যবসায়ীরা বাসায় এসে সাবিহার কাছ থেকে ইয়াবা ক্রয় করে। মহানগর পুলিশের পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে- মাদক ব্যবসার অভিযোগে তারা মোক্তার মিয়া ও মিয়ার স্ত্রী সাবিহা বেগমকে গ্রেপ্তার করেছে। তবে- মাদক ব্যবসায়ী শাহীন ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে। সিলেট মহানগর অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মূসা জানান, শাহীনের ঘর তল্লাশি করে ৩০৫ পিস ইয়াবা, ৬টি মোবাইলসেট, নগদ ১ লাখ ৩৩ হাজার ৫শ’ টাকা উদ্ধার করা হয়। আইন অনুযায়ী আসামি ও উদ্ধারকৃত মালামাল সম্পর্কে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে মাদক ব্যবসায়ীদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভারতে তিন তালাক বিরোধী খসড়া আইনে সরকারের অনুমোদন

বিরোধীরা আসলেই কাগুজে বাঘ: মোজাম্মেল হক

গাংনী বিএনপি কার্যালয়ে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ

মহান বিজয় দিবস আজ

চট্টলার সিংহপুরুষের বিদায়

রাজধানীতে বৃদ্ধা ও শিশু খুন

বাংলাদেশ জন্ম নিয়েছিল একটা আদর্শ নিয়ে

সবক্ষেত্রে চাই গুণগত সেবা

বিশ্বকাপে নিষিদ্ধ হতে পারে স্পেন!

কাদের-মওদুদকে ঘিরেই স্বপ্ন দু’দলের

শেষমুহূর্তে তৎপর বিএনপি

ট্রাম্প প্রশাসনের ধর্মীয় পক্ষপাতিত্ব

ইউপিডিএফ ভাঙার নেপথ্যে

মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে দুইয়ে শেখ জামাল

সারা দেশে বিএনপির প্রতিবাদ কর্মসূচি ১৮ ডিসেম্বর

যেভাবে অপহরণকারীদের হাত থেকে মুক্ত হলেন সিলেটের ব্যবসায়ী মুন্না