ধর্ষণ তদন্ত থেকে অ্যাসাঞ্জের অব্যাহতি

এক্সক্লুসিভ

মানবজমিন ডেস্ক | ২০ মে ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৪১
সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান আসাঞ্জকে ধর্ষণের তদন্ত থেকে অব্যাহতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সুইডেন। আসাঞ্জের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা বাতিল করতে স্টকহোম ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে আবেদন করেছেন দেশটির পাবলিক প্রসিকিউশন পরিচালক ম্যারিয়ান এনওয়াই। এ খবর দিয়েছে বিবিসি। খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর ঠেকাতে ২০১২ সাল থেকে লন্ডনে অবস্থিত ইকুয়েডরের দূতাবাসে অবস্থান করছেন অ্যাসাঞ্জ। তার ভয় ছিল তাকে সুইডেনে পাঠানো হলে, সেখান থেকে তাকে যুক্তরাষ্ট্রে হস্তান্তর করা হবে। সেখানে পাঠানো হলে যুক্তরাষ্ট্রের হাজার হাজার সামরিক ও কূটনৈতিক গোপন তথ্য ফাঁস করার দায়ে বিচারের সম্মুখীন হতে পারেন।
তবে লন্ডনের দ্য মেট্রোপলিটান পুলিশ সার্ভিস জানায়িছে, অ্যাসাঞ্জ যদি ইকুয়েডরের দূতাবাস ত্যাগ করে তাহলে সময়মতো আদালতে আত্মসমর্পণ না করার দায়ে তাকে গ্রেপ্তার করার আদেশ জারি রয়েছে।
শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনের আগে প্রসিকিউটর কার্যালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, পাবলিক প্রসিকিউশনের পরিচালক ম্যারিয়ান এনওয়াই আজ জুলিয়ান আসাঞ্জের বিরুদ্ধে ধর্ষণের সন্দেহে প্রাথমিক তদন্ত না চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। জুলিয়ান আসাঞ্জ একেবারে শুরু থেকেই তার বিরুদ্ধে আনা ধর্ষণের অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছেন। তবে তিনি দূতাবাস ছেড়ে বের হলে যুক্তরাজ্যের পুলিশ বাহিনী তাকে গ্রেপ্তার করতে পারে এবং যুক্তরাষ্ট্রে তাকে হস্তান্তর করা হতে পারে। তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের তদন্ত বন্ধ হওয়ার ঘোষণা আসার পর উইকিলিকস টুইট করেছে, এখন সব ফোকাস যুক্তরাজ্যের দিকে। টুইটে আরো বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র থেকে অ্যাসাঞ্জকে হস্তান্তরের কোনো পরোয়ানা যুক্তরাজ্য পেয়েছে কিনা এ বিষয় যুক্তরাজ্য নিশ্চিতও করেনি আবার অস্বীকারও করেনি। লন্ডনের মেট্রোপলিটান পুলিশ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, গুরুতর এক অপরাধের দায়ে ইউরোপিয়ান এক গ্রেপ্তারি পরোয়ানার উপর ভিত্তি করে তারা তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়েছেন। বিবৃতিতে আরো বলা হয়, এখন পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটেছে এরবং সুইডেনের কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে তাদের তদন্ত  থামিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে অ্যাসাঞ্জ এখনো ‘ওয়ান্টেড’ই রয়েছেন। গত মাসে অ্যাসাঞ্জের সুইডেনের আইনজীবী পার স্যামুয়েলসন তার মক্কেলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা উঠিয়ে নিতে আদালতে আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি মার্কিন এটর্নি জেনারেল জেফ সেশনের এক উক্তি উদ্ধৃত করেন যেখানে সেশন আসাঞ্জের গ্রেপ্তারকে একটি অগ্রাধিকার বলে আখ্যায়িত করেছিলেন। বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেয়া এক বক্তব্যে স্যামুয়েলসন বলেন, এর মানে হলো আমরা এখন এই যুক্তি দেখাতে পারি যে যুক্তরাষ্ট্রের এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার ইচ্ছা রয়েছে। এ কারণেই আমরা গ্রেফতারি পরোয়ানা বাতিল করার কথা বলেছি যাতে অ্যাসাঞ্জ ইকুয়েডরে যেতে পারেন এবং রাজনৈতিক আশ্রয় উপভোগ করতে পারেন।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষণের দাবি

এখনও আসছে রোহিঙ্গারা, সমঝোতা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

৯০ টাকা ছাড়ালো পিয়াজের কেজি

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি মামুলি ব্যাপার

‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’

চিরঘুমে লোকসংগীতের মহীরুহ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বন্যার ক্ষতি পোষাতে দরকার ১০০ কোটি টাকা

জিম্বাবুয়ের নতুন প্রেসিডেন্টের শপথ

দুই দলেই হেভিওয়েট প্রার্থী

দরিদ্রদের জন্য বিচারের বাণী নীরবে কাঁদে

৭ই মার্চ ভাষণের স্বীকৃতিতে দেশব্যাপী শোভাযাত্রা আজ

সম্মতিপত্র প্রকাশের দাবি বিএনপির

ঘরে ঘুরে দাঁড়ালো চিটাগং

মিশরে মসজিদে জঙ্গি হামলা, নিহত কমপক্ষে ২৩০

‘শেষ মুহূর্তে হলে সরকার সমঝোতায় আসবে’

রবি-সোমবার সব সরকারি কলেজে কর্মবিরতি