তদন্ত শুরু, আইএসের দায় স্বীকার

প্যারিসে ফের সন্ত্রাসী হামলা

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২২ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার
ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের স্যঁজ এলিজিতে এক সন্ত্রাসী হামলায় বৃহসপতিবার এক পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন দুজন। পরে পুলিশের গুলিতে হামলাকারী নিহত হয়। নিরাপত্তা সংস্থার কাছে ওই হামলাকারীর নাম আগে থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে নথিভুক্ত ছিল। তবে কর্তৃপক্ষ তার নাম এখনও প্রকাশ করেনি। হামলার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যের জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।
ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কয়েক দিন আগে এ হামলা হলো। এ খবর দিয়েছে ফ্রান্স ২৪ ও আল জাজিরা।
খবরে বলা হয়, ফরাসী প্রসিকিউটাররা আনুষ্ঠানিকভাবে হামলার তদন্ত শুরু করেছেন। এ তদন্তকে সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক তদন্ত হিসেবে উল্লেখ করা হয়। ফরাসী প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওঁলাদ ওই হামলার ঘটনা ‘সন্ত্রাসবাদ’ তদন্ত হিসেবে নেয়া সঠিক বলে উল্লেখ করেন। পর্যবেক্ষকরা অনেক দিন ধরেই রোববারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ফ্রান্সে এ ধরনের রক্তাক্ত হামলার আশঙ্কা করছিলেন। ২০১৫ সালের পর বেশ কয়েকবার সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে ফ্রান্সে। নতুন করে এই সহিংসতার ফলে ভোটাররা নিরাপত্তাকেই প্রধান অগ্রাধিকার হিসেবে বেছে নেবেন।
প্যারিসের স্থানীয় সময় বৃহসপতিবার রাত ৯টার দিকে প্যারিসের বিশ্ববিখ্যাত প্রশস্ত পথ (ব্যুলেভার্ড) স্যঁজ এলিজিতে একটি পুলিশ ভ্যানের ওপর স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গুলি করতে থাকে হামলাকারী। এর পরপরই সেখানে অবস্থানরত পর্যটক ও পরিদর্শকরা প্রাণভয়ে দৌঁড়াতে শুরু করেন। আরেক বিশ্বখ্যাত স্থাপনা আর্ক দ্য ট্রিওমস থেকে কয়েকশ’ মিটার দূরে এ হামলার ঘটনাস্থল। এক পুলিশ কর্মকর্তাকে হত্যা ও তার দুই সহকর্মীকে আহত করে পালানোর সময় পুলিশের পাল্টা গুলিতে সে নিহত হয়।
নিজেদের বার্তা সংস্থা আমাকে আইএস এক বিবৃতির মাধ্যমে হামলার দায় স্বীকার করে। বিবৃতিতে বলা হয়, হামলাকারী ছিল ‘ইসলামিক স্টেটের একজন যোদ্ধা’। ৩৯ বছর বয়সী ফরাসি ওই হামলাকারী আগে থেকেই সন্ত্রাসবাদবিরোধী পুলিশের কাছে পরিচিত ছিল। হামলার পর প্যারিসের পূর্ব পাশের শহরতলীতে তার ঠিকানায় পুলিশ অভিযান চালিয়েছে। ২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনটি হত্যাচেষ্টার দায়ে তাকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।
ফ্রান্স ২৪-এর খবরে বলা হয়, ফরাসি আসন্ন নির্বাচনে এ হামলার ফল এখনও সপষ্ট নয়। রোববার প্রথম দফার ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হবে। তবে হামলার পর উগ্র ডানপন্থি নেত্রী ম্যারিন ল্যঁ পেন, মধ্যপন্থি ইমানুয়েল ম্যাক্রন ও কেলেঙ্কারিতে পর্যদুস্ত রক্ষণশীল ফ্রাঁসোয়া ফিলন তাদের নিজ নিজ প্রচারাভিযান বাতিল করেছেন।
এখন পর্যন্ত বিভিন্ন জনমত জরিপে দেখা যাচ্ছে, ভোটাররা সন্ত্রাসবাদ বা নিরাপত্তার চেয়ে বেকারত্ব ও তাদের ব্যয়-সক্ষমতা নিয়ে বেশি উদ্বিগ্ন। তবে বিশ্লেষকরা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, সহিংস ঘটনা ঘটলে এ পরিস্থিতি পালটে যেতে পারে।
দক্ষিণাঞ্চলীয় মার্সেইয়ে দুই সন্দেহভাজনকে অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ আটক করার দুদিন পর এ হামলা ঘটলো। ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওঁলাদ নির্বাচনের সময় পূর্ণ সতর্কাবস্থার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি নিহত পুলিশ সদস্যের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।
এদিকে হামলার কথা সংবাদমাধ্যমে আসার পরপরই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মন্তব্য করেন, মনে হচ্ছে আরেকটি সন্ত্রাসী হামলা! কী বলবেন আপনারা? এটা শেষই হচ্ছে না। জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল তার সহমর্মিতা জানিয়েছেন।
 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘অভিযোগ কাল্পনিক ও বানোয়াট’

মইনকে আশ্বস্ত করেছিলেন প্রণব

ব্লু হোয়েল গেম জায়েজ নয়

শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন চায় জেপি

রোহিঙ্গাদের দেখতে আসছেন জর্ডানের রানী

পেপ্যাল ‘জুম’ সার্ভিস বাংলাদেশে

হাওরে সরকারি প্রকল্পে লুটপাট হয়েছে

প্রার্থী নিয়ে নির্ভার আওয়ামী লীগ-বিএনপি

গণমাধ্যম-সশস্ত্র বাহিনীর সম্পর্ক নিয়ে সেমিনার

সিলেটে ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত, সেক্রেটারিসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

খালেদা জিয়ার পুরো জবানবন্দি

বরিশালে বিচারকের ভূমিকায় বেঞ্চ সহকারী, তোলপাড়

গাজীপুরে প্রাক্তন তিন সেনা সদস্যসহ ৪জন গ্রেপ্তার

খান আতা ইস্যুতে এফডিসিতে চলচ্চিত্র পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

আদালত অঙ্গনে খালেদার আইনজীবীদের হাতাহাতি

বন্যায় ৩০ শতাংশ ধান উৎপাদন কম হতে পারে