অমর একুশ নিয়ে প্রবাসীদের ভাবনা ও স্বপ্ন

প্রবাসীদের কথা

রাকেশ রহমান | ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার
আমি প্রবাসী বাংলাদেশি। বাংলা আমার মায়ের ভাষা। আমি বাংলায় কথা বলি সুদূর প্রবাসেও। কিন্তু বাংলাভাষা আমার এখানে রাষ্ট্র ভাষা নয়। দেখা যায় সারাদিন অফিসের কাজে থাকলে বাংলা বলা লেখা ও পড়া হয়না বললেই চলে। আমি বা আমরা বাকি সময় পরিবারের সাথে ও দেশের মানুষের সাথে বাংলায় কথা বলি কারণ বলতে হবে, বলার প্রয়োজন তাই।
সারা পৃথিবীর বুকে যেই ভাষার ত্যাগের জন্য বছরে একদিন একটি দিবস পাওয়া গিয়েছে সেই বাংলা ভাষার কদর নেই আমাদের কাছেই।বাংলা ভাষা ও ৫২ সালের ভাষা আন্দোলন আজ কবি সাহ্যিতিক ও লেখকদের কাছে সীমাবদ্ধ হতে চলেছে।
এত দামী বিশ্বখ্যাত ভাষা আমাদের বাংলাভাষা আজ তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। পাশাপাশি অমর একুশ আজ দু চার দশটা অনুষ্ঠানের মতই একটি অনুষ্ঠানে রুপান্তরিত হতে চলেছে। জানিনা দেশের মানুষ প্রবাসীদের মতন এত দেশটাকে ভালোবাসে কিনা? হয়তো আমরা প্রবাসীরা দেশের মানুষের থেকে অনেক উওম জীবন যাবন করছি। প্রবাসে একটি নিরাপদ সচ্ছল জীবন যা হয়ত দেশের মানুষকে আগ্রহ দেয় প্রবাসী হওয়া জন্য ।
আমরা প্রবাসীরা নিয়মের ভিতর থাকতে থাকতে কখন যে আমরা প্রবাসীরা নিয়মতান্ত্রিক হয়ে গিয়েছি তার প্রমাণ মিলে কেউ বাংলাদেশে বেড়াতে গেলে।
আমরা প্রবাসীরাই বহিঃবিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষের কাছে বাংলাদেশ, বাংলা ভাষার কথা, ৭১'র মুক্তিযুদ্ধের কথা, আমাদের দেশের ঐতিহ্যের কথা, আমাদের খাবার, পোশাক, ভাইয়ে ভাইয়ের প্রেম সব তুলে ধরে দেশটাকে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি। আমরা এক একজন প্রবাসীরা এক একজন বাংলাদেশের পতাকা ও বাংলাদেশের পরিচিতি মান সম্মান বহন করছি নিজ নিজ চরিত্রের বহিপ্রকাশের মাধ্যমে। আমাদের বাংলাদেশের ভাইদের এই দিক গুলো নিয়ে ভাবতে হয় না, কারন সবাই বাংলাদেশি সুতরাং কাকে পরিচয় করিয়ে দিবে নিজের দেশ বাংলাদেশের সাথে। আমরা ভদ্রতা ও নিজের পরিশ্রম,  মেধা, সততা দিয়ে নিজের জীবনেই প্রতিষ্ঠিত হচ্ছি না বরং পাশাপাশি গোটা দেশটাকে সুপরিচিত করছি বহিঃবিশ্বের বিভিন্ন দেশে।
প্রবাসেও যে আমাদের দেশের নাম কলঙ্কিত হচ্ছে না তা নয় তবে পরিমানটা কম। অপর দিকে এত কষ্টে পাওয়া রাষ্টভাষা বাংলা যেই ভাষার জন্য কত প্রাণ দিতে হয়েছে, সেই ভাষা অর্জন করা জাতি আজ কতই না অপরাধের সাথে জড়িয়ে পড়েছে এবং ভাষার যা অপ্রব্যাবহার তা বলে বা লিখে শেষ করা যাবে না। পৃথিবীর বুকে জীবন দিয়ে ভাষা অর্জনের জন্য আজ আমরা যত না সম্মানিত তার থেকে নিজেদের অপকর্মের জন্য বেশি ঘৃনীত জাতি বা দেশ হিসেবে পরিচিত হচ্ছি।  
বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বাংলাভাষার জন্য বিভাগও খুলার আগ্রহ প্রকাশ করার পরও আমাদের দেশের কোন চেষ্টা না থাকায় আজও চালু হয়নি। হতে পারে আমার দেশ বাংলাদেশ গরীব হতে পারে আমাদের দেশের বহুমুখি সমস্য রয়েছে থাকতেই পারে। আমরা আন্দোলন করে জীবন দিয়ে নিজের ভাষা জয় করেছি, আমরা যুদ্ধ করে বিজয় নিয়ে স্বাধীন দেশের মানচিত্র এনেছি।
আমরা বাংলাদেশে যারা আছি তারা দেশটাকে ভালোবেসে প্রবাসীদের মতন করে যদি নিজে সৎ, আর্দশের আলোকে অন্যকে ভালোবেসে এক ভালেবাসার বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে এগিয়ে যেতে পারতাম তাহলে কতোই না ভালো হতো।
প্রবাসীদের অধিকাংশদের চোখে মুখে একটাই ভাবনা আহারে আমাদের দেশে যদি এটা করা যেতো আহারে আমাদের দেশে যদি বিদেশের মত করে ওটা করা যেতো কতোই না ভালো লাগতো দেশের মানুষগুলো খুব আরামে থাকতো।
এই ভাবনা গুলোর শুভ উদায় যদি হত পাশাপাশি সারাবিশ্বে আরো ব্যপক আলোচিত হত আমাদের ভাষা বাংলা তাহলে অন্তর থেকে আমরা গোটা জাতি তৃপ্তি পেতাম ও গর্বিত হতাম। অমর একুশে ফেব্রুয়ারী আমাদেরকে সেই সম্মান এনে দিবে, সেই কামনাই প্রবাসীদের।
লেখক: ইটালি প্রবাসী

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন