আমার দেশের প্রেস খুলে দেয়ার দাবিতে মানববন্ধন

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, শনিবার
ছাপাখানা খুলে দেয়ার দাবিতে মানববন্ধন করেছে আমার দেশ পরিবার। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনে পত্রিকাটির সম্পাদক মাহমুদুর রহমান বক্তব্য রাখেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক ইলিয়াস খানের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএফইউজের সভাপতি শওকত মাহমুদ, সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, আমার দেশের নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ   আবদাল আহমদ, বিএফইউজের ভারপ্রাপ্ত   মহাসচিব মোদাব্বের হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, আমার দেশের বার্তা সম্পাদক জাহেদ চৌধুরী, কৃষিবিদ নেতা শামীমুর রহমান শামীম প্রমুখ। মানববন্ধনে মাহমুদুর রহমান বলেন, আমি প্রথম দফায় এক বছর এবং দ্বিতীয় দফায় একটানা প্রায় চার বছর জেল খেটে জামিনে মুক্ত হয়েছি। জেল-জুলুম নির্যাতনে আমি ভয় পাই না। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, মানুষের অধিকার, দেশের স্বার্থ এবং গণতন্ত্র মানবাধিকারের পক্ষে আমি আছি এবং থাকবো।
কবি ও প্রাবন্ধিক ফরহাদ মজহার বলেন, লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আজ মাহমুদুর রহমানকে সঙ্গে নিয়ে রাজপথে দাঁড়িয়েছি। নাগরিক ও মানবাধিকার এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য সব মিডিয়াকে বৃহত্তর মৈত্রী গড়ে তুলতে হবে। শওকত মাহমুদ বলেন, আমার দেশের অপরাধ পত্রিকাটি দেশের স্বার্থ, গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের পক্ষে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করেছে। রুহুল আমিন গাজী বলেন, দেশের মানুষ আজ আমার দেশ পড়া থেকে বঞ্চিত। তারা আমার দেশ পড়তে চায় এবং দেশের  প্রকৃত খবর জানতে চায়।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অস্ট্রেলিয়া গেলেন প্রধান বিচারপতির স্ত্রী সুষমা সিনহা

মৌলভীবাজারে শোকের মাতম

বিয়ানীবাজারের খালেদের দুঃসহ ইউরোপ যাত্রা

১১ দফা প্রস্তাব নিয়ে ইসিতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ

‘প্রধান বিচারপতি ফিরে এসেই কাজে যোগ দিতে পারবেন’

খালেদা জিয়া ফিরছেন আজ

ব্লু হোয়েলের ফাঁদে আরো এক কিশোর

তিন ইস্যু গুরুত্ব পাবে সুষমার সফরে

প্রি-পেইডে সুবিধা বেশি আগ্রহ কম

ভারত থেকে ৩৭৮ কোটি টাকার চাল কিনছে সরকার

ছাত্রলীগ কর্মী মিয়াদ খুন নিয়ে উত্তপ্ত সিলেট

ইস্যু হতে পারে সমস্যার পাহাড়

দ্বিতীয়বার সংসার না করায় খুন

যেভাবে পালিয়ে আসছে রোহিঙ্গারা, ড্রোন থেকে নেয়া ভিডিও

সিলেটে কাল থেকে পরিবহন ধর্মঘট

ফুটবলকে বিদায় জানালেন কাকা