পাকিস্তানে মাজার হামলা: সেনাবাহিনীর পাল্টা অভিযানে নিহত ৪০ ‘সন্ত্রাসী’

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, শুক্রবার
পাকিস্তানে একটি মাজারে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর দেশটির সেনাবাহিনীর পাল্টা হামলায় কমপক্ষে ৪০ জন ‘সন্ত্রাসী’ নিহত হয়েছে। হামলার প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান প্রতিবেশী আফগানিস্তানের সঙ্গে নিজেদের সীমান্ত পারাপার বন্ধ করে দিয়েছে। কাবুলের প্রতি ৭৬ জন ‘সন্ত্রাসীর’ বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছে দেশটি। পাকিস্তান বলছে, ওই সন্ত্রাসীরা আফগান ভ’খ-ে লুকিয়ে আছে। পাকিস্তানে ওই মাজার হামলা ২০১৪ সালের পর দেশটিতে হওয়া সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা। হামলায় নিহত হয়েছ ৮০ জন। আহত হয়েছে শতাধিক। দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর সেহওয়ানে বৃহস্পতিবার একটি মাজারে জড়ো হওয়া অনুসারীদের টার্গেট করে আত্মঘাতি হামলাটি চালানো হয়। হামলার দায় নিয়েছে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা।
১৩৫৬ সালে নির্মিত ওই মাজারটি ছিল সৈয়দ মুহাম্মদ উসমান মারওয়াদি। এই সুফি দার্শনিক ও কবি লাল শাহবাজ কালান্দার নামে বেশি পরিচিত। তাকে পাকিস্তানে ব্যাপক সম্মানের চোখে দেখা হয়। শুক্রবার পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী বলেছে, আফগানিস্তানকে অবশ্যই ৭৬ জন লোকের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে হবে। পাকিস্তানের বক্তব্য, এরাই হামলার সঙ্গে জড়িত।
আল জাজিরাকে বিভিন্ন নিরাপত্তা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হামলার পরপর রাতভর চালানো নিরাপত্তা অভিযানে নিহত হয়েছে কমপক্ষে ৩৯ জন সন্দেহভাজন জঙ্গি। বৃহস্পতিবারের ওই হামলাটি ছিল পাকিস্তানের সাম্প্রতিক ইতিহাসে সবচেয়ে রক্তাক্ত হামলাগুলোর একটি। সোমবার থেকে দেশটিতে বিভিন্ন হামলায় কমপক্ষে ৯৯ জন নিহত হয়েছে। এগুলোর বেশিরভাগ হামলার দায় নিয়েছে পাকিস্তানি তালিবান ও এর বিভিন্ন অংশ। সোমবার পূর্বাঞ্চলীয় শহর লাহোরের এক সমাবেশে এক আত্মঘাতি বোমা হামলায় ১৩ জন নিহত হয়েছে। বুধবার একটি সরকারী কার্যালয়ে আত্মঘাতি হামলা চালানো হয়। পেশওয়ারে সরকারী কর্মচারীদের ওপর আরেক আত্মঘাতি হামলায় ৬ জন নিহত হয়। মঙ্গলবার বেলুচিস্তান প্রদেশের রাজধানী কোয়েট্টায় বোমা নিষ্ক্রিয় করতে গিয়ে দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন।

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

samsul lslam

২০১৭-০২-১৭ ০৯:৩০:২৫

য্যে ভাবে উৎপত্তি সে ভাবে,

আপনার মতামত দিন