টাকার ‘অভাবে’ ডিপাইকে কিনতে পারছে না বার্সেলোনা

স্পোর্টস ডেস্ক

খেলা ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:৫৮

গত মৌসুমে স্ট্রাইকার সঙ্কট ভালই ভুগিয়েছে বার্সেলোনাকে। লুইস সুয়ারেজের বয়সের সঙ্গে কমেছে গতি, ক্ষিপ্রতা। বার্সেলোনা উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের জায়গায় নিতে চেয়েছিল লাওতারো মার্তিনেজকে। সেটা এখনো পর্যন্ত পরিণতি পায়নি। সে সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। দ্বিতীয় পছন্দের স্ট্রাইকার মেমফিস ডিপাইকে নেয়ার আগ্রহ দেখিয়েছিল কাতালানরা। এই ডাচ স্ট্রাইকার নাকি মৌখিক সম্মতিও দিয়েছেন বলে খবর প্রকাশিত হয় নেদারল্যান্ডস সংবাদমাধ্যমে। অলিম্পিক লিঁওর অন্যতম সেরা তারকা মেমফিস ডিপাই।
ফরাসি ক্লাবটির সভাপতি জানিয়ে দিলেন, ডিপাইকে কেনার টাকা নেই বার্সেলোনার। তাই আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দেয়নি কাতালান ক্লাবটি।

‘২৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বার্সেলোনায় আসছেন’ এমন খবর ছড়িয়ে পড়ে ডাচ ও স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমে। এরপরই মুখ খুললেন অলিম্পিক লিঁও সভাপতি জাঁ মিশেল অলাস। তিনি বলেন, ‘বার্সেলোনা সভাপতি আমাকে বলেছেন, তারা করোনা মহামারিতে আর্থিকভাবে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ডিপাইয়ের জন্য বার্সেলোনা তাই কোন প্রস্তাব পাঠাবে না।’

বার্সেলোনার নতুন ডাচ কোচ রোনাল্ড কোম্যান খুব করেই চেয়েছিলেন ডিপেইকে। সে সম্ভাবনা একরকম শেষ করে দিয়েছেন লিঁও সভাপতি। মার্তিনেজের এজেন্টও সোমবার জানিয়ে দিয়েছেন, ইন্টার মিলানেই থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার। কোম্যান দায়িত্ব নেয়ার পরপরই লুইস সুয়ারেজকে জানিয়ে দেন, তুমি আমার পরিকল্পনায় নেই। ক্লাব খোঁজা শুরু করে দেন উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারও। জুভেন্টাসে সুয়ারেজের যোগ দেয়া এক রকম চূড়ান্তই হয়ে গিয়েছিল। স্প্যানিশ রেডিও ‘আরএসি-১’ জানিয়েছে গ্রীষ্মকালীন দলবদলে জুভেন্টাসে যাওয়া হচ্ছে না সুয়ারেজের। কেননা ইতালির সিটিজেনশিপ জটিলতা। বৈবাহিক সূত্রে স্পেনেরও নাগরিক সুয়ারেজ। তিনি দুই দেশের পাসপোর্টধারী হওয়ায় ইতালির সিটিজেনশিপ পেতে হলে একটা প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। সেই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার আগেই শেষ হয়ে যাবে দলবদলের সময়সীমা (৫ই অক্টোবর)। ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্তর্ভূক্ত দেশগুলোর নাগরিকরা পাসপোর্ট ছাড়াই এক দেশ থেকে অন্যদেশে ভ্রমণ করতে পারেন। স্থায়ীভাবে বসবাসেও জটিলতা নেই। তবে দ্বৈতনাগরিকত্ব থাকলে সিটিজেনশিপ পেতে আমলাতান্ত্রিক বিভিন্ন নিয়ম-কানুনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। যা সময়সাপেক্ষ। সুয়ারেজের সঙ্গে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত চুক্তি রয়েছে বার্সেলোনার।

চলমান গ্রীষ্মকালীন দলবদলে সুয়ারেজের জুভেন্টাসে যোগ দেয়া না হলে লাভটা বার্সেলোনারই। মার্তিনেজ ও ডিপাইকে পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। আনসু ফাতি, ফ্রান্সিসকো ত্রিনকাও, পেদ্রিদের মতো তরুণদের সঙ্গে অভিজ্ঞ সুয়ারেজ থাকায় আক্রমণভাগে বৈচিত্রের সঙ্গে শক্তিও বাড়াবে বার্সেলোনার। ক্লাবে নতুন আসা মিরালেম পিয়ানিচের পরিচয় পর্ব অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার সুয়ারেজের বিষয়ে কথা বলেছেন বার্সেলোনার টেকনিক্যাল সেক্রেটারি রামোন প্লানেস। তিনি বলেন, ‘দলবদল শেষ হতে এখনো কিছুদিন বাকি। এর মধ্যে অনেক কিছুই হতে পারে। সুয়ারেজ গত কয়েকবছরে অসাধারণ পারফর্ম করেছে। সে আমাদের অনেক সাফল্যও এনে দিয়েছে। এটা ঠিক যে, নতুন কোচ এসেছেন। তিনি অনেক কিছুতেই পরিবর্তন এনেছেন। খেলোয়াড় এবং তাদের চুক্তির ব্যাপারে আমাদের সর্বোচ্চ সম্মান রয়েছে।’

আপনার মতামত দিন

খেলা অন্যান্য খবর

জুভেন্টাস ছাড়লেন হিগুয়েন

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

নিজেদের অবস্থানে অনড় বিসিবি

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

সামাজিক দূরত্ব মানতে গিয়ে ৩৭ গোল হজম!

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

ফুটবলটা আর যাই হোক, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খেলা যায় না। অন্যথায় পরিণতি কী হতে ...



খেলা সর্বাধিক পঠিত