চমেক হাসপাতালে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে

বাংলারজমিন ১৩ জুলাই ২০২০, সোমবার

 করোনা রোগীদের চিকিৎসায় হাই ফ্লো ন্যাজাল দিতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়েছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। আর তার আগমনকে ঘিরে ছাত্রলীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষে ডাক্তার-পুলিশসহ ১৭ জন আহত হয়েছেন। রোববার (১২ই জুলাই) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল তখন চমেক হাসপাতাল ছেড়ে চলে যান। আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিমও উপমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন। চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম ভুইয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনায় আহতদের মধ্যে পাঁচলাইশ থানার এসআই খালেক, ডিবির দুই পুলিশ সদস্য ও আমি রয়েছি। এছাড়া ৫-৬ জন ডাক্তার রয়েছেন। আহতরা সবাই হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন।
জহিরুল ইসলাম ভুইয়া জানান, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল রোববার সকালে চমেক হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় দুটি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোল দিতে আসেন। চমেক হাসপাতালের পরিচালকের হাতে এসব তুলে দিয়ে চলে যান তিনি। এরপর হাসপাতালে ছাত্রলীগের একপক্ষ শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল, আরেক পক্ষ মেয়র আ জ ম নাছিরের নামে পাল্টাপাল্টি স্লোগান দেয়। এক পর্যায়ে দুই নেতার অনুসারীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হন। আহতদের মধ্যে নওফেলের অনুসারী হিসেবে পরিচিত খোরশেদ বিন মেহেদী, ইমন সিকদার, অভিজিৎ দাস, ফাহাদুল ইসলাম, হুজাইফা বিন কবির, কনক দেবনাথ, সাজেদুল ইসলাম ও মিনহাজ রহমানের নাম পাওয়া গেছে। অন্যদিকে মেয়র আ জ ম নাছিরের অনুসারী হিসেবে পরিচিত সানি হাসনাত প্রান্তিক, ডা. ফয়সাল আহমেদ, ডা. মাসুম বিল্লাহ মাহিন, মাহতাব বিন হাসিম ও ডা. নুর মোহাম্মদ তানজিম আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। চমেকের ৫৮তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ইমন শিকদার বলেন, শিক্ষা উপমন্ত্রী হাসপাতাল পরিদর্শনে আসছেন শুনে আমরা ৭-৮ জন মিলে নেতাকে রিসিভ করি। সেখানে গিয়ে দেখি মেয়র মহোদয়ের অনুসারী ৩০-৩৫ জন আগে থেকেই আছেন। তারা শুরুতে আমাদের সাথে ধাক্কাধাক্কি করে। পরে নেতা চলে যাওয়ার পর অতর্কিতভাবে তারা আমাদের ওপর হামলা করে। এই হামলা পূর্বপরিকল্পিত ছিল। আগেও শিক্ষা উপমন্ত্রী হাসপাতালে এলে তারা একই রকম ঘটনা ঘটিয়েছিল। অন্যদিকে আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান বলেন, আমাদের ৫৭ তম ব্যাচের যেসকল ছাত্র চিকিৎসক হয়েছেন তাদের শপথ অনুষ্ঠান ছিল আজ। মন্ত্রী মহোদয় আসার পর আমাদের পক্ষ থেকে তাকে রিসিভ করা হয়। তবে দুঃখের বিষয় তিনি ইদানীং মেডিকেলে এলে উনার পেছনে হত্যা ও অস্ত্র মামলার আসামিসহ একাধিক মামলার আসামি ঘোরাফেরা করে। হাবিবুর রহমান দাবি করেন, মন্ত্রী চলে যাওয়ার পরে আমাদের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ঘিরে রেখে কয়েকজন মেডিকেল শিক্ষার্থী ও বহিরাগত সন্ত্রাসী আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা করে। এতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতিসহ ৫-৬ জন ডাক্তার আহত হয়েছেন।

আপনার মতামত দিন

বাংলারজমিন অন্যান্য খবর

মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র থেকে বিতাড়িত হয়ে

রাস্তায় সন্তান প্রসব

১২ আগস্ট ২০২০

গাইবান্ধায় মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ঠাঁই না পাওয়ায় রাস্তায় সন্তান প্রসব করেছেন এক প্রসূতি। ...

ওসি প্রদীপকে পরামর্শ দিয়ে অনুতপ্ত আল্লাহ বক্‌শ

১২ আগস্ট ২০২০

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যাকাণ্ডের পর বরখাস্ত হওয়া টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে টেলিফোনে ...

সোনাইমুড়ীতে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা

১২ আগস্ট ২০২০

 নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করে পালিয়েছে ঘাতক স্বামী আবু তাহের। গত সোমবার দিবাগত ...

রাস্তা পাকাকরণের দাবিতে বিক্ষোভ

১২ আগস্ট ২০২০

 নরসিংদীর রায়পুরায় আমিরগঞ্জ ইউনিয়ন দক্ষিণ মির্জানগরের শাওড়াতলী বাজার হতে শিমুলতলী বাজার হয়ে মাছিমনগর খেয়াঘাট পর্যন্ত ...

গোপালপুরে শিয়ালের কামড়ে আহত ৫

১২ আগস্ট ২০২০

টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার হাদিরা ইউনিয়নের হরিদেব বাড়ি, দরবারপুর ও চাতুটিয়া গ্রামবাসী শিয়ালের কামড় আতঙ্কে অতিবাহিত ...

ঝালকাঠিতে চার মাদক ব্যবসায়ী আটক

১২ আগস্ট ২০২০

 ঝালকাঠিতে গত দুইদিনে এক নারীসহ চারজন ইয়াবা ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ।  গত সোমবার মধ্যরাতে রাজাপুর ...



বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত