করোনা নিয়ে ৮টি অপারেশন

ডা. সফর আলীকে নিয়ে আতঙ্কে দৌলতপুরবাসী

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি

এক্সক্লুসিভ ৫ জুলাই ২০২০, রোববার

ডা. সফর আলীকে নিয়ে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরবাসী চরম আতঙ্কে রয়েছেন। শরীরে করোনা পজেটিভ নিয়ে দিনভর দৌলতপুর উপজেলার বিভিন্ন ক্লিনিকে অপারেশন করার কারণে এ রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় সকলে আতঙ্কে রয়েছেন। ডা. সফর আলী গোপালগঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত থাকলেও দৌলতপুরে বিভিন্ন ক্লিনিকের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ রয়েছেন তিনি। করোনা পজিটিভ নিয়ে বৃহস্পতিবার দিনভর দৌলতপুর উপজেলার বিভিন্ন ক্লিনিকে ৮টি সিজার অপারেশন করেছেন। তার অপারেশনের মাধ্যমে ৮টি প্রসূতি ও সন্তানসহ ওই সব পরিবারের সকলে ডা. সফর আলীর সংস্পর্শে এসে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়ায় সকলেই করোনা আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠায় রয়েছেন।
শামীম নামে এক ভুক্তভোগী জানান, ডা. সফর আলী শরীরে করোনাভাইরাস নিয়ে বৃহস্পতিবার দিনভর দৌলতপুরের বিভিন্ন ক্লিনিকে অপারেশন করেছেন। এর ফলে ডা. সফর আলীর মাধ্যমে দৌলতপুরে সর্বত্র করোনা ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। রাজন নামে অপর এক ব্যক্তি জানান, ডা. সফর আলী বৃহস্পতিবার দৌলতপুর হাসপাতাল গেট সংলগ্ন মায়ের হাসি ক্লিনিক, সজীব ক্লিনিক ও শান্তি ক্লিনিকে অপারেশন করেছেন। এছাড়াও ঝাউদিয়া বাজার ও আল্লারদর্গাসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে অপারেশন করে করোনা রোগ ছড়িয়েছেন।
বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আনা জরুরি বলে মন্তব্য করেন তিনি।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক চিকিৎসক জানান, ডা. সফর আলী কর্মস্থল ফাঁকি দিয়ে দৌলতপুরে বিভিন্ন ক্লিনিকে অপারেশন করে বেড়ান। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার দৌলতপুরে ৮টি অপারেশন করেছেন। যা দৌলতপুরবাসীর জন্য উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার বিষয়।
এ বিষয়ে ডা. সফর আলী জানান, করোনা পজেটিভ সংবাদ পাওয়ার পর অপারেশন বন্ধ করে দিয়েছি। শরীরে কোনো করোনা উপসর্গ ছিল না। বর্তমানে বাড়িতে লকডাউন অবস্থায় রয়েছি। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে ডা. সফর আলীর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। গোপালগঞ্জ জেলায় কর্মরত থাকলেও অধিকাংশ সময়ই তিনি দৌলতপুরে অবস্থান করেন।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

রিপন

২০২০-০৭-০৬ ০০:২৯:৩৫

এই দুঃসমেয়ে যখন সবাই মানুষকে বিপদে ফেলে পালায়, মানুষ চিকিৎসা পায় না, সেখানে ডা. সফর আলি অক্লান্ত পরিশ্রম করে মানুষকে চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন, মিসটার সফর আলিকে পুরষ্কৃত করা উচিৎ। করোনা ছড়ানোর জন্যে দায়ী চিনের বিরুদ্ধে টুঁ শব্দটিও নেই, অথচ মানুষের দুঃসময়ে পাশে থাকার জন্যে এই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আদাজল খেয়ে নেমেছো, তোমরা কেমন মানুষ? মানুষ, না পশু? ডাক্তারবাবু জরুরি ওই অপারেশনগুলো না করলে দৌলতপুরবাসী কি ক্রিটিক্যাল পেশেন্ট প্রসূতিকে চিনে নিয়ে গিয়ে বেইজিং হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতো?

আপনার মতামত দিন

এক্সক্লুসিভ অন্যান্য খবর

মহাসড়কের পাশে বানভাসিরা

‘কহন যেন ছাপড়ার উপর গাড়ি উইঠ্যা পড়ে’

২৯ জুলাই ২০২০

বিজয়নগরে বেহাল সড়ক

২৯ জুলাই ২০২০

ভিজিএফ চালের স্লিপ জাল করে ধরা খেলো ইউপি সদস্য

২৯ জুলাই ২০২০

হতদরিদ্র সাগরী খাতুন ভিজিএফ চালের স্লিপ পেয়ে গতকাল দুপুরে চাল নিতে আসেন ঝিনাইদহ সদরের হলিধানী ...



এক্সক্লুসিভ সর্বাধিক পঠিত