সাঁওতাল পল্লীতে দুর্বিষহ জীবন

পিয়াস সরকার, রংপুর (মিঠাপুকুর) থেকে

দেশ বিদেশ ২৯ মে ২০২০, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:০৮

একবেলা চারটা ভাত পাচিতো আরেকবেলা নাই। কেমনে দিনট্যা কাটে। ভুগা প্যাটোত থাকলে দিনট্যাও যাবার চায় না। রাইতোত নিন্দও ধরে না। কাকো কিচু কবারো পারো না বাহে। মুই বুড়া মানুষ। কায়ো কিচু দিলে খাও। বেটি কয়টা ট্যাকা পাটাচিল, সেই ট্যাকা দিয়াই খায়া না খায়া দিন কাটাচো।
এভাবেই দুঃখের কথা বলছিলেন, প্রায় ৮০ বছর বয়স্কা সুমুতি এক্কা।
রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার দুলাহাপুর গ্রাম। দারিদ্রপীড়িত এলাকাটিতে ৮০টি সাঁওতাল পরিবারের বাস। যাদের মাঝে সনাতন ধর্মাবলম্বী ৬০টি পরিবার ও খ্রীস্টান পরিবার ২০টি। দারিদ্রতার সঙ্গে লড়াই করে কোনরকম টিকে আছে পরিবারগুলো। কিন্তু করোনার ছোবলে দিশেহারা হয়ে পড়ছেন তারা।

ভবেশ কুজুর জানান, করোনা যখন শুরু হলো সবাই বাইরে যাওয়া বন্ধ করে দিলেন। কিন্তু দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলোর বিপত্তি বেড়ে গেলো। এমনিতেই তখন চারদিকে কাজের অভাব। তার ওপরে টুকটাক কাজ বন্ধ। আশেপাশে কোনরকম জমি থেকে শাক লতা পাতা খেয়ে বেঁচে ছিলেন তারা।

তার স্ত্রী লিমা কুজুর জানান, এমনি অবস্থা দিনে তারা একবার ভাত খেলে আরেকবেলা না খেয়ে থাকতেন। আর পরদিন যে আরেক মুঠো ভাত পাবেন তার কোন নিশ্চয়তা ছিলো না।

দরিদ্র পল্লীটি প্রায় ২ মাস যেন এক দুঃস্বপ্নের মাঝে ছিলো। ধান পাকার পর একটু স্বস্তি ফিরেছে পল্লীটিতে। ধান কাটার কাজ পাচ্ছেন তারা এখন নিয়মিত। আবেশ মার্ডি বাড়ির উঠানে ধান শুকানোর কাজ করছিলেন। তিনি জানান, মেয়েরা দৈনিক ধান কেটে পান ৩শ’ থেকে সাড়ে ৩শ’ টাকা। পুরুষরা পান ৪শ’ থেকে সাড়ে ৪শ’ টাকা। কাজ করতে হয় সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। মাঝে দুপুরে একটু খাবারের জন্য বিশ্রাম পান। আর খাবার সরবরাহ করেন জমির মালিকরাই।

বৃদ্ধ অর্জুন মর্ম ও তার বোন সুর বালা বাঁশের কাজ করছিলেন বাড়ির উঠানে। তাদের কাছে যাবার আগে থেকেই আলোচনা ছিলো করোনার কালে আয় হারানো নিয়ে। তারা বাঁশ দিয়ে ডালি, কুলা, পাটি, বেড়া, ছাদ ইত্যাদি তৈরি করেন। অর্জুন মর্ম জানান, আগে প্রতি হাটে (সপ্তাহে দুদিন হাটবার) ৫ থেকে ৭ হাজার টাকার জিনিস তৈরি করে বিক্রির অর্ডার পেতেন। যা থেকে এক হাটে লাভ হতো ১২শ’ থেকে ১৫শ’ টাকা। কিন্তু করোনা আসার পর থেকে প্রতি হাটে হাজার টাকার মালামাল তৈরির অর্ডারো মিলছে না।

উঠানে বসেছিলেন প্যারালাইজড মোডি মার্ডি। একটি ভাঙ্গাচুড়া চেয়ারে বসা। অভাবের চিত্র চেয়ার ও পোশাকে স্পষ্ট। কাদো কাদো কণ্ঠে জানান, এই অভাবে বেঁচে থাকাটাই দায় হয়ে দঁাঁড়িয়েছে। ক্ষুধা পেটে কাটে সবসময়। ক্ষুধা লাগলেও বলতে পারেন না পরিবারের লোকজনদের। বলেন, শরীলত এমন বিষ (ব্যথা) উঠে বাহে। দমটা আটকে যায়। তাও কাকো কওনা। খাবার জোটে না কোটে থাকি ওষুদ আনি দেবে?

পাশেই ছোট বাচ্চাকে ভাত খাইয়ে দিচ্ছিলেন তাপসী কৃষ পাল। পাতে একটু সাদা ভাত ও পাট শাক। বলেন, এই ভাতটুকু পাওচি এলা এটাই ভাগ্য। আগোত একনাও পাও নাই। খাবার শেষে ছেলেকে গামছায় পিঠে বেঁধে পল শুকানোর কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। তিনি জানান, বিভিন্ন ধানের জমি থেকে এই পলগুলো সংগ্রহ করেছেন। এগুলো শুকানোর পর গরুর খাবারের জন্য সংগ্রহ করবেন। কদিন পর জমিতে ফের ধান রোপন করা হলে গুরুর খাদ্য সংকট থেকে বাঁচানোর জন্যই এতো কষ্ট।

পল্লীটির লোকেদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, করোনার সময়ে এই দরিদ্র গ্রামটিতে সহযোগিতা পেয়েছেন অল্প কিছু মানুষ। পুতুল মাহালী তিনি এই পল্লীর মুখ্য। তিনি বলেন, কিছু কিছু সাহায্য এসেছে। কিন্তু তা যথেষ্ট না। করোনার সময় সাহায্য পেয়েছেন আনুমানিক ১০ পরিবার। এছাড়াও ১০ টাকা কেজির সাহায্যেও চাল পেয়েছেন অনেকে। তবে শেষ কথা এই সাহায্য যথেষ্ট নয়। আমাদের কোন রকম টিকে থাকার জন্য হলেও এর কয়েকগুণ সাহায্য প্রয়োজন। আর এই অবস্থায় ধানকাটার সময় না আসলে না খেয়েই মারা যেতো অনেকে।

পল্লীর ঘরগুলো ছোট ছোট। বলা যায়, কোন রকম মাথা গোজার ঠাঁই। পরিবারের সদস্য অনেক। অধিকাংশরই লেখাপড়া প্রাথমিক পর্যায় পর্যন্ত। তবে এই পল্লীর নয়ন মার্ডি কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে রসায়নে অধ্যয়নরত। তিনি বলেন, আমাদের এখানের প্রধান সমস্যা দারিদ্রতা। প্রত্যেকেই সন্তানকে লেখাপড়া শেখাতে চান কিন্তু পেটে ক্ষুধা থাকলেতো আর লেখাপড়া হয়না।
তিনি আরও বলেন, আমরা পল্লীতে প্রায় ১শ’ বছর ধরে আছি। এখানে বাঙালীদের সঙ্গে একত্রে শান্তিতেই আছি। তবে তারা দারিদ্রতাকে দুর করে এগিয়ে যাচ্ছে আমরা পারছি না। এই দারিদ্রতা এতোটাই জেঁকে বসেছে আমরা আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতিটুকুও ধরে রাখতে পারছি না। একটু খেয়ে পরে বাঁচাটাই যেন আমাদের একমাত্র লক্ষ্য।

আপনার মতামত দিন

দেশ বিদেশ অন্যান্য খবর

রাজধানীতে আবাসন ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা

৮ আগস্ট ২০২০

রাজধানীর ভাটারার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় আবাসন ব্যবসায়ী  আবুল খায়ের (৫১) নামের একজনকে  নৃশংসভাবে পিটিয়ে হত্যা ...

মাহবুব আলী খানের ৩৬তম মৃত্যুবার্ষিকীর স্মরণসভা অনুষ্ঠিত

৮ আগস্ট ২০২০

 সাবেক নৌবাহিনী প্রধান রিয়ার এডমিরাল মাহবুব আলী খানের ৩৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল ...

সরকারি কর্মকর্তাকে ৯টা-৫টা অফিস করতে হবে

৭ আগস্ট ২০২০

সরকারি সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীকে আগের মতো সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত অফিস করতে হবে। করোনা ...

ভার্চুয়াল ও শারীরিক উপস্থিতিতে আদালত পরিচালনার সিদ্ধান্ত

৭ আগস্ট ২০২০

ভার্চুয়াল ও শারীরিক উপস্থিতি উভয় ধরনের আদালত পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফুলকোর্ট সভা। গতকাল বিকাল ৩টা  ...

সকল সংক্রামক রোগের চেয়ে বেশি মানুষ মরবে তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে: গবেষণা

৫ আগস্ট ২০২০

বিশ্বজুড়ে নীরবে বেড়ে চলেছে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে মৃত্যুর সংখ্যা। পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে না ...

গ্রামীণ আমেরিকায় আড়াই কোটি ডলার অনুদান

৩১ জুলাই ২০২০

জনহিতৈষী ম্যাকেঞ্জি স্কটের কাছ থেকে অনুদান হিসেবে আড়াই কোটি ডলার পেয়েছে গ্রামীণ আমেরিকা ইনকরপোরেশন। ২৮শে ...

শেখ হাসিনা নেতৃত্বের আসনে থাকলে দেশ এগিয়ে যাবে -ওবায়দুল কাদের

২৭ জুলাই ২০২০

 আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, করোনার এই মহামারিতে দেশের চলমান উন্নয়নে কিছুটা বাধা ...

করোনা: মৃত্যু বাড়ছে, শনাক্ত কমছে

২৭ জুলাই ২০২০

দেশে গত কয়েকদিনে করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত কমলেও বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। গত তিনদিনের রিপোর্ট পর্যালোচনা ...



দেশ বিদেশ সর্বাধিক পঠিত