ভাইরাল স্যাম্পল কালেকশন কি এতো সোজা

ডা. আব্দুন নূর তুষার

ফেসবুক ডায়েরি ১৫ এপ্রিল ২০২০, বুধবার

জেকেজি হেলথকেয়ার নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর শুরু করেছে বুথ বসিয়ে স্যাম্পল কালেকশন। তারা বলেছে তারা কোরিয়ান পদ্ধতিতে টেষ্ট করবে।

যে প্রতিষ্ঠান দিয়ে এই কাজ করানো হচ্ছে তাদের কখনো এধরনের অভিজ্ঞতা ছিল না। এর কাজ ছিল , প্রতিষ্ঠাতার নিজের বাড়ীর আশে পাশে / নির্বাচনী এলাকায় রোগী দেখার জন্য এক ডাক্তার বিশিষ্ট হেলথ ক্যাম্প করা।

কখনো ভাইরাল স্যাম্পলতো দুরের কথা , মলমুত্র স্যাম্পল নিয়ে পরীক্ষাগারে দেয়ার কোন প্রকল্প এরা করেন নাই।

যিনি এই কাজ করবেন তিনি কার্ডিয়াক সার্জন। দেশে এত এত এপিডেমিওলজিস্ট/ ভাইরোলজিস্ট থাকতে তাদের এই কাজে কাউকে সম্পৃক্ত করা হয় নাই।

শুধু তাই না. ডিজি নাকি সেখানে ঝটিকা সফর করেছেন। ১২ এপ্রিলে। তাদের প্রশিক্ষন ক্যাম্প কোথায়? তীতুমীর কলেজে। যাতে ডিজি সাহেব *ঝটিকা*রাস্তা পার হয়ে সেখানে যেতে পারেন। লকডাউনের মধ্যে তারা কিভাবে কাদের প্রশিক্ষন দিলেন?

অন্য কোন প্রতিষ্ঠানকে অনুমতি না দিয়ে এদের অনুমতি কেন দেয়া হলো?

যেসব জায়গায় আরটিপিসিআর মেশিন আছে সেখানেও অনুমতি না দিয়ে এদের অনুমতি দেয়ার মানে কি?

এরা এখন ইউটিউবে ভিডিও দিয়ে ভলান্টিয়ার খুঁজছে।
তারা স্যাম্পল কালেকশন করবে।

কয়েকদিন আগে মীরজাদি ফ্লোরা আপা ব্যাখ্যা করেছেন কেন তারা আরটিপিসিআর ছাড়া কোন টেস্ট করতে দিচ্ছেন না। তিনি এটাও বলেছেন যে বেসরকারী পর্যায়ে কিট আমদানী করে টেস্ট করলে ফলস নেগেটিভ হবে।

তাহলে এই কোরিয়ান মডেলে ওয়াক ইন টেস্ট কিভাবে হবে? কোন পদ্ধতিতে?

ভাইরাল স্যাম্পল কালেকশন কি এত সোজা? যাদের অভিজ্ঞতা নেই তারাও পারবে?

ভাইরাল স্যাম্পল কালেকশনের যে গাইডলাইন সেটা মেনে কি তারা স্যাম্পল পরিবহন করবে। কোন যানবাহনে করবে? সেটfর সেফটি গাইডলাইন কি?

কোরিয়াতে যে বুথ আর কেরালায় যে বুথ, সেটার সাথে এই ডেকোরটর দিয়ে সামিয়ানা খাটিয়ে বানানো বুথের কোন মিল আছে?

ফেসবুকে এদের ফলোয়ার ২০১৬ সাল থেকে শুরু করে এখন ২৮৫ জন।

করোনাভাইরাস নিয়ে এখনো ডিজি অফিসের রহস্যময় কাজকর্ম বন্ধ হচ্ছে না।

মানুষের দৃষ্টি সরিয়ে রাখতে তারা ডাক্তারদের সাময়িক বরখাস্তের নাটক বানিয়েছে।

মানুষকে ব্যস্ত রেখেছে একদিকে আর অন্যদিকে বিনামূল্যে টেস্ট নাম দিয়ে ভাইরাস ভালো করে ছড়ানোর ব্যবস্থা করেছে।
(লেখকের ফেসবুক টাইমলাইন থেকে নেয়া)

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Md.Nayyer Afroze

২০২০-০৪-২১ ০৩:২৭:৩৫

রাস্তায় একটা এক্সিডন্ট হলে কিছু মানুষ হাসপাতালে নিতে চেষ্টা করে আর কিছু মানুষ ভিকটিমের পকেট থেকে ওয়ালেট,মোবাইল ফোন এমনকি হাতের ঘড়ি খুলে নিয়ে নেশ। ঐ এক্সিডেন্ট তেদের জন্য একটা আশীর্বাদ তথা সুযোগ। করোনা মহামারিও কিছু মানুষের জন্য সেরকমই 'সুযোগ '।

হাসান

২০২০-০৪-১৫ ০৯:৪৭:২০

ডাক্তার তুষারকে এই দায়িত্ব দেয়া উচিৎ। শুধু ফেসবুকেই লিখেই খালাস। উনি কি করেছেন ডাক্তারদের জন্য বা সাধারন মানুষের জন্য?

খুদিরাম

২০২০-০৪-১৫ ০৮:৫০:২৬

এটা জয়বাংলার যুগগো দাদা৷!! এখানে সবকিছু হবে জয়বাংলা দিয়ে আর সব পদে থাকবে জয়বাংলার লোক। সে চোর নাকি বদমাশ সেটা বিবেচ্চ নয়। দেশটা নরক হলেও তাদের কি যায় আসে ?? তাদের অগাধ অর্থ আছে, আছে বিপদ আপদে যাওয়ার যায়গা৷ মাঝখান দিয়ে আমরা হাদারাম শেষমেশ খাবার না পেয়ে মরবো নয়তো করোনার খাবার হব !! হিরোক রাজা আজ বেচে থাকলে সেও লজ্জায় মাথা নোয়াতো।

খুদিরাম

২০২০-০৪-১৫ ০৮:৫০:১৪

এটা জয়বাংলার যুগগো দাদা৷!! এখানে সবকিছু হবে জয়বাংলা দিয়ে আর সব পদে থাকবে জয়বাংলার লোক। সে চোর নাকি বদমাশ সেটা বিবেচ্চ নয়। দেশটা নরক হলেও তাদের কি যায় আসে ?? তাদের অগাধ অর্থ আছে, আছে বিপদ আপদে যাওয়ার যায়গা৷ মাঝখান দিয়ে আমরা হাদারাম শেষমেশ খাবার না পেয়ে মরবো নয়তো করোনার খাবার হব !! হিরোক রাজা আজ বেচে থাকলে সেও লজ্জায় মাথা নোয়াতো।

মজিবুল হক

২০২০-০৪-১৫ ০৭:৩৫:৩৯

কিছু অল্প বিদ্যার পণ্ডিত নিজেতো কিছু জানেনা। যারা যানে তাদের থেকে শিখতেও রাজি না।

Elias Ahmed

২০২০-০৪-১৫ ০৭:২৪:৪৫

কেউ কি উনাকে বলবেন পন্ডিতি না কৱে এ সময়ে কিছু একটা কৱতে,মানুষেৱ পাশে দাঁড়াতে৷ওনাৱ মত অনেক স্পেসালাইজড ডাক্তাৱ দেশে আছে৷চুপ কৱে ঘৱে বসে থাকেন৷অন্তত আপনাৱ ভাইৱাসটা অন্য বীৱ ডাক্তাৱ ,নার্সদেৱ মাঝে ছড়াবে না৷

Shobuj Chowdhury

২০২০-০৪-১৫ ২০:০৬:০৩

Well, what else you gonna expect? As a doctor, how do you respond to the crisis? You even refuse to see the patients. Advice, provide comfort and treatment are out of question as if the victims are all evil. If there are any evils exits under this circumstances, the doctors of Bangladesh would be ranked top.

সাখাওয়াত হোসেন

২০২০-০৪-১৫ ০৬:৫৮:০৩

উনার কথা যদি সত্যি হয়, তাহলে আকাশ থেকে পড়া ছাড়া আর কোন উপায় নেই ।

আপনার মতামত দিন

ফেসবুক ডায়েরি অন্যান্য খবর



ফেসবুক ডায়েরি সর্বাধিক পঠিত