খালেদার জামিন আবেদন ফের খারিজ

স্টাফ রিপোর্টার

অনলাইন ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৩:২৩ | সর্বশেষ আপডেট: ৪:৩০

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়েছে হাইকোর্ট। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ দুপুরে এ আদেশ দেয়। জামিন আবেদনে নতুন কোন কারণ না পাওয়ায় কথা জানিয়ে হাইকোর্ট তা খারিজ করেছেন।

হাইকোর্টের আদেশে বলা হয়েছে, খালেদা জিয়া একজন বন্দী ও দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। একজন সাধারণ মানুষের মতো সুযোগ, সুবিধা একজন বন্দী পেতে পারেন না। তবে খালেদা জিয়া উন্নত চিকিৎসার জন্য সম্মতি দিলে  মেডিকেল বোর্ডকে দ্রুত তা দিতে বলেছেন হাইকোর্ট। বোর্ড চাইলে তাদের সদস্যসংখ্যা বাড়াতে পারবে।

হাইকোর্টের আদেশে হতাশা প্রকাশ করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন। তিনি বলেছেন, এ আদেশে আমরা ক্ষুব্ধ। জামিন আবেদনটি আদালতের বিবেচনায় নেয়া উচিত ছিল।
আমরা আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব।
এরআগে সকালে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভিসি’র পাঠানো রিপোর্ট আদালতে দাখিল করা হয়। এতে বলা হয়, খালেদা জিয়া ডায়বেটিস, হাইপার টেনশন, অ্যাজমা, বাতজ্বর ও কাঁশিসহ ব্যাক পেইনে ভুগছেন।  অ্যাডভ্যান্সড ট্রিটমেন্ট দেয়ার বিষয়ে তার মতামত জানতে চেয়েছিলো সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড। কিন্তু তিনি অ্যাডভ্যান্সড ট্রিটমেন্ট গ্রহণের বিষয়ে কোনো সম্মতি দেননি।
রিপোর্ট উপস্থাপনের পর খালেদা জিয়ার আইনজীবী মওদুদ আহমদ বলেন, খালেদা জিয়া কেন অ্যাডভ্যান্সড ট্রিটমেন্টে সম্মতি দেননি সেটা জানা দরকার। হয়ত এই ট্রিটমেন্ট গ্রহণে তার জীবন শঙ্কায় পড়তে পারে। এই দিক বিবেচনায় হয়ত তিনি অনুমতি দেননি। তার আরেক আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, আমাদের আইনজীবীদের মধ্যে এ বিষয়টি নিয়ে পরামর্শ করা দরকার। এ জন্য বিষয়টি রোববার আদেশের জন্য দিন ধার্য করেন।

আদালত বলেন, আপনারা মেডিকেল রিপোর্ট চেয়েছিলেন, আমরা সেই রিপোর্ট তলব করেছি। রিপোর্ট আদালতে এসেছে। এখন ওই রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে আমরা পরবর্তী আদেশ দেব। জবাবে জয়নুল আবেদীন বলেন, আমাদের একটি সম্পূরক আবেদন রয়েছে। আমরা আবেদনটি আপনার আদালতে দিতে চাই।পরে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, খালেদা জিয়ার এই রোগগুলো দীর্ঘদিন ধরেই আছে। যখন কোনো বন্দি কারাগারে থাকেন তখন সরকারেরও তার বিষয়ে উদ্বেগ থাকে। এ পর্যায়ে কোনো সম্পূরক আবেদন দেয়ারও সুযোগ নেই। পরে আদালত দুপুরে আদেশ দেবেন বলে জানান।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

লগি বৈঠা - আদালতের আ

২০২০-০২-২৭ ২১:০৫:২০

আদালতে মিসেস জিয়াকে সশরীরে হাজির করে তাঁর মুখ থেকেই আদালতের পরিষ্কার জানা উচিত ছিল মারাত্মক অসুস্থ রোগিণী তিনি কেন উন্নত চিকিৎসা নিতে চাইবেন না, "উন্নত চিকিৎসা" কথাটি কোন্ অর্থে সরকার তাঁর কাছে উপস্থাপন করেছিল? - পিজি-তে উন্নত চিকিৎসা? নাকি, অন্যত্র উন্নত চিকিৎসা? পিজি-তে উন্নত চিকিৎসার মানে কী, তা' রাস্তার ধারের মুটে মজুরও জানে, গাঁটের পয়সা খরচা করে ওরা কেউই পিজি-তে যেতে চায় না, তারচে' কাছে ধারের হাতুড়েকে দিয়েই সমস্যা সেরে নেয়াকে ঢের শ্রেয় জ্ঞান করে, তা সে যে কারণেই হোক। আদালতের আচরণটি আদালতসুলভ হয় নি। কোথায় যেন ইচ্ছেকৃতভাবে চোখ বুঁজে থাকার, জেগে জেগে ঘুমোনোর লক্ষণ ফুটে ওঠে।

জাফর আহমেদ

২০২০-০২-২৭ ০৩:২০:৫৮

খালেদা জিয়ার কাহিনি জেলের ভিতর শেষ, আর না হয় যদি মুক্তি পেতে চান তাহলে শেখ হাসিনার কাছে ক্ষমা চেয়ে পেরেলে মুক্তি। তাছাড়া এই মেরুদন্ড হীন নেতাদের দিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলা সম্ভব নয়।

Feroz

২০২০-০২-২৭ ০২:৪৫:৪৩

Nothing to say!

আপনার মতামত দিন



অনলাইন অন্যান্য খবর

ঝালকাঠিতে ব্যবসায়ীর ডিলারশিপ বাতিল

২ এপ্রিল ২০২০

ঝালকাঠিতে টিসিবির মাল কালোবাজারে বিক্রি করার উদ্দেশ্যে মজুদ করায় ৩ ডিলারকে ২৮ হাজার টাকা জরিমানা ...



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



করোনায় মৃতব্যক্তির লাশ নিয়ে আসেন শুধু চালক

‘চার ভাই মি‌লে নে‌মে প‌ড়েন অ‌চেনা ব্য‌ক্তির লাশ দাফ‌নে '