লালমোহনে প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধ ৯ শিক্ষক কর্মচারীর বেতন

লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধি

বাংলারজমিন ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার

ভোলার লালমোহন উপজেলার হেলিপ্যাড নিম্ন-মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারীদের ৩ মাসের বেতন ভাতা বন্ধ করে রেখেছেন ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল হালিম চৌধুরী। আইনের তোয়াক্কা না করে আবদুল হালিম গত নভেম্বর ও ডিসেম্বর ২০১৯ এবং জানুয়ারি ২০২০ মাসের বেতন ভাতা বন্ধ রেখেছেন। এতে মানবেতর জীবনযাপন করছেন ওই বিদ্যালয়ের ৯ শিক্ষক-কর্মচারী। বিদ্যালয়টির পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা তার আত্মীয়স্বজন হওয়ার কারণে সে কাউকেই পাত্তা দিচ্ছেন না। তিনি মানছেন না উপজেলা নির্বাহী আফিসার, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও একাডেমিক সুপার ভাইজারের আদেশও। এ যেন এক রাম রাজত্ব! এমনকি হালিম চৌধুরী তার বাবা মায়ের দেয়া নাম উপেক্ষা করে কোর্টের মাধ্যমে নিজের নামের সঙ্গে চৌধুরী লাগিয়ে নিজেকে সর্বত্র চৌধুরী বলে পরিচয় দেন। আবার তিনি কখনো নিজেকে অধ্যক্ষও পরিচয় দেন। জানা যায়, গত বছরের ৯ই ডিসেম্বর তারিখে হেলিপ্যাড নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী মো. জাকারিয়াকে তার বাসায় ডেকে নিয়ে প্রধান শিক্ষক হালিম চৌধুরী এলোপাতাড়ি কিলঘুষি ও লাথি দিয়ে জখম করে।
এ সময় জাকারিয়ার চিৎকারে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে লালমোহন সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে লালমোহন থানায় অফিস সহকারী জাকারিয়া প্রধান শিক্ষক হালিম চৌধুরীর বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করেন। ডায়েরি নং ৫৭০। তারিখ ১২/১২/২০১৯। থানায় ডায়েরি করার কারণে প্রধান শিক্ষক হালিম চৌধুরী ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বিলে স্বাক্ষর না করার কারণে পরদিন ১০ই ডিসেম্বর বিদ্যালয়ের সকল সহকারী শিক্ষক-কর্মচারীরা প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ১০টি অনিময়ের অভিযোগ এনে লালমোহন উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাবিবুল হাসান রুমির বরাবর দাখিল করেন। এরপর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হালিম চৌধুরীকে তার কার্যালয়ে ডাকেন। তবে সাক্ষাৎ না করার কারণে নির্বাহী অফিসার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও একাডেমিক সুপার ভাইজার মদন মোহন মণ্ডলকে তদন্ত করে রিপোর্ট প্রদানের নির্দেশ দেন। একাডেমিক সুপার ভাইজার সরজমিন তদন্ত করে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগের সত্যতা প্রমাণ পাওয়া যায় মর্মে নির্বাহী অফিসার বরাবর গত ২৯শে ডিসেম্বর তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।
এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল হালিম চৌধুরী বলেন, বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার কারণে শিক্ষকরা বেতন পাচ্ছেন না। তবে নতুন কমিটি হলে শিক্ষক-কর্মচারীরা বেতন পাবেন। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাবিবুল হাসান রুমি বলেন, ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারীদের দেয়া অভিযোগের তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেছে। যার ফলে ৩০/১২/২০১৯ তারিখে ০৫.১০.০৯৫৪. ০০.০০১.০১.১৯-৮০২ নং স্মারকে জেলা প্রশাসক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে। এখন এ ঘটনার সমাধান দিবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।

আপনার মতামত দিন



বাংলারজমিন অন্যান্য খবর

বান্দরবানে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু

৫ এপ্রিল ২০২০

বান্দরবানে বিদুৎস্পৃষ্টে রোববার সকালে বাবু বড়ুয়া (২০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয়রা ...

মানবজমিন টেকনাফ প্রতিনিধির মায়ের ইন্তেকাল

৫ এপ্রিল ২০২০

মানবজমিন টেকনাফ প্রতিনিধি আমানউল্লাহ কবিরের মাতা রোববার বিকাল ৫ টায় নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্না-লিল্লাহ... ...

পটুয়াখালীতে ঝড় ও বজ্রপাতে ৩ জন নিহত

৫ এপ্রিল ২০২০

আকস্মিক কাল বৈশাখী ঝড়ে পটুয়াখালীতে ৩ জন নিহত ও অপর একজন আহত হয়েছে। দুপুর ২টা ...

ভিডিওবার্তায় ভাগ্য খুললো মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের

৫ এপ্রিল ২০২০

কক্সবাজারের চকরিয়ায় চরম অর্থ কষ্টে থাকা মুক্তিযোদ্ধা  মাষ্টার হুমায়ুন কবিরের মেয়ের একটি ভিটিও বার্তায় ভাগ্য ...

নোয়াখালীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হামলা, গুলিবিদ্ধ ৪

৫ এপ্রিল ২০২০

নোয়াখালীর সদর উপজেলায় পূর্ব শক্রতার জের ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ...



বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত