সিলেটে গ্রেপ্তার হওয়া শাফায়েত আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের সদস্য

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে

দেশ বিদেশ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার

 নিষিদ্ধ ঘোষিত আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের সদস্য সিলেটের শাফায়েত আহমদ চৌধুরী। ঢাকায় গ্রেপ্তার হওয়া তিন জঙ্গির কাছ থেকে তার খোঁজ পায় র‌্যাব। এরপর বুধবার রাতে সিলেটের বাসা ঘেরাও করে তাকে আটক করে। তবে, পরিবারের সদস্যরা তার কর্মকাণ্ডের সম্পর্কে অবগত নয়। গ্রেপ্তারের সময় তার কাছ থেকে জেহাদি বই, জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ পত্রসহ তারা কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এদিকে, গ্রেপ্তারের পর তাকে র‌্যাব-২ এর সদস্যরা ঢাকায় নিয়ে গেছেন। রাত ১০টার দিকে শাফায়েতকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রায় দুই ঘণ্টা তার বাসায় র‌্যাব অভিযান চালায়।
সিলেটের কোতোয়ালি থানার ওসি সেলিম মিয়া জানিয়েছেন, র‌্যাবের ওই অভিযানের খবর তারা প্রথমে জানতেন না। খবর পেয়ে পুলিশ ফোর্স পাঠান। এ সময় র‌্যাব ওই বাসা থেকে একজনকে আটক করে নিয়ে গেছে। শাফায়েত আহমদ চৌধুরীর পিতা কাওছার আহমদ চৌধুরী সাবেক ব্যাংকার। তাদের মূল বাড়ি জকিগঞ্জ উপজেলার গণিপুরে। তারা নগরীর সাগরদিঘিরপাড় এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছে। শাফায়েতের পিতা একজন ধার্মিক মানুষ। তিনি তাবলীগ জামাত করেন। বর্তমানে তিনি তাবলীগ জামাতের সাথীদের নিয়ে চিল্লায় রয়েছেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বুধবার রাতে র‌্যাবের একটি টিম নগরীর সাগরদিঘিরপাড়ের মণিপুরীপাড়া সৈয়দপুরি গলির ৭৪-৩ নম্বর বাসা ঘেরাও করে। এ সময় কয়েক জন র‌্যাব সদস্য বাসার ভেতরে প্রবেশ করেন। অভিযানের সময় শাফায়েত একাই বাসায় ছিল। তার মা ও বোন বাইরে ছিলেন। বিকাল থেকে শাফায়েতের ওপর নজর রাখছিলেন গোয়েন্দারা। ঢাকায় প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে প্রথমে তার অবস্থান খুঁজে বের করেন। পরে এশার নামাজের পর শাফায়েত যখন বাড়িতে ঢোকে তখন র‌্যাব সদস্যরা তার বাসা ঘেরাও করেন। ভেতর থেকে তাকে আটক করেন। আটকের পর প্রায় এক ঘণ্টা তার বাসায় তল্লাশি চালানো হয়। অভিযানের সময় তার কাছ থেকে ১৫টি জেহাদি বই, জঙ্গিদের ট্রেনিং ম্যানুয়েল, পাসপোর্ট, একটি মোবাইলফোন, ল্যাপটপসহ বিভিন্ন ধরনের উস্কানিমূলক লিফলেট উদ্ধার করা হয়। অভিযানে থাকা র‌্যাব কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আটককৃত শাফায়েত আহমেদ চৌধুরী নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসারুল ইসলাম ও আনসারুল্লাহ বাংলাটিমের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত। ঢাকায় আটককৃত ৩ জঙ্গির কাছ থেকে পাওয়া তথ্যমতে তার ওপর কড়া নজর রেখেছিল র‌্যাব। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে তার গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করে গতকাল অপারেশন চালানো হয়। অভিযানকালে তার ল্যাপটপ ও মোবাইলফোন তল্লাশি করে জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত থাকার সরাসরি প্রমাণ পাওয়া গেছে। ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ম্যাসেঞ্জার গ্রুপের মাধ্যমে তারা নাশকতার পরিকল্পনা করছিল। সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্র শাফায়েত পরিবারের সঙ্গে সিলেটে বসবাস করতো। সে বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতো। আর বাকি সময় নিজ বাসাতেই থাকতো। নামাজের সময় হলে মসজিদে গিয়ে নামাজ পড়তো। জঙ্গি সম্পৃক্ততার খবরে তাকে নিয়ে এলাকায় আতঙ্ক তৈরি হয়। এদিকে, ঢাকার জঙ্গি কানেকশনে সিলেটে শাফায়েতের আগে আরো কয়েকজনের সম্পৃক্ততা ছিল। নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আল্লাহর দলের ৯ সদস্যকে ১৫ দিন আগে সিলেট থেকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায় ঢাকা পুলিশের এন্টি টেরোরিজম ইউনিটের সদস্যরা। ঢাকায় গ্রেপ্তার হওয়া আল্লাহর দলের সদস্যদের মুখ থেকে সিলেটে তাদের অবস্থান নিশ্চিত হওয়া যায়।

আপনার মতামত দিন



দেশ বিদেশ অন্যান্য খবর

চসিক নির্বাচন

মেয়র পদে বিএনপি’র ৬ নেতার মনোনয়ন সংগ্রহ

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

শাহবাগে আইনজীবী সহকারীদের বিক্ষোভ, আইনমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আইনজীবী সহকারী কাউন্সিল (ল-ক্লার্ক) নামের আইন পাস ও নিজেদেরকে ল-ক্লার্ক হিসেবে আইনগতভাবে স্বীকৃতির দাবিতে সুপ্রিম ...

খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে সরকারের করার কিছু নেই-ওবায়দুল কাদের

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে সরকার বা আওয়ামী লীগের করার কিছু নেই বলে ...

সুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২০-২০২১ সেশনের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ১১ ও ১২ ...

ঢাকার আলোচনায় বক্তারা

আইসিজের রায় মানতে মিয়ানমারকে বাধ্য করতে হবে

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০



দেশ বিদেশ সর্বাধিক পঠিত