তরুণরাও যে পারে সেটাই প্রমাণ করবো: ইশরাক

স্টাফ রিপোর্টার

শেষের পাতা ২১ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:২৭

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন বলেছেন, সরকারদলীয় প্রার্থী আমার বয়স নিয়ে সমালোচনা করে। আমি তরুণ সমাজকে বলবো, আপনারা আমার সঙ্গে থাকবেন, আমাকে ভোট দেবেন। আমরা দেখিয়ে দেবো তরুণরাও পারে। গতকাল একাদশ দিনের প্রচারণা সময় এসব কথা বলেন তিনি। এদিন রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সামনে থেকে প্রচারণা শুরু করেন ইশরাক। সেখান থেকে শাহবাগ, রমনা, শাহজানপুর, পল্টন ও মতিঝিল থানাধীন সেগুনবাগিচা, বেইলি রোড, সিদ্বেশ্বরী, মৌচাক, পশ্চিম মালিবাগ, গুলবাগ, শান্তিনগর হয়ে পল্টন এলাকায় দুপুর পর্যন্ত প্রচারণা চালান তিনি। নামাজ ও মধ্যাহ্ন বিরতি পর পল্টন থেকে টিএনটি কলোনি ও এজিবি কলোনি এলাকায় একাদশ দিনের গণসংযোগ ও প্রচারণা শেষ করেন বিএনপির এই মেয়র প্রার্থী। প্রচারণায় বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী ও সমর্থক অংশ নেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন প্রমুখ।

এদিকে প্রচারণার প্রথম দিন থেকেই কয়েক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন ইশরাক হোসেন।
সেখানে কর্মী সমর্থকরা ধানের শীষে ভোট চাওয়ার পাশাপাশি কারাবন্দি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে স্লোগান দিচ্ছেন। এসময় তারা ‘খালেদা জিয়ার ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই’, ‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে’, ‘মাগো তোমার একটি ভোটে খালেদা জিয়া মুক্তি পাবে’ বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন কর্মী সমর্থকরা।
ইশরাক হোসেন বলেন, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে ছাত্রসমাজ অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিল। তরুণরাই তাদের বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিলো স্বাধীনতা অর্জনের জন্য। তাই যারা তরুণদের বয়স নিয়ে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে, আমরা তাদের দেখিয়ে দিতে চাই আমরা তরুণরাও নেতৃত্ব দিতে পারি।
জীবন দিয়ে হলেও জনগণের অধিকার আদায়ে সংগ্রাম চালিয়ে যাবেন উল্লেখ করে বিএনপির এই মেয়র প্রার্থী বলেন, আজকে আমার বাবা নাই। আমি বলতে চাই এই নগরবাসী আমার অভিভাবক, আপনারাই আমার অভিভাবক। আপনারা যদি আমার পাশে থাকেন ইনশাল্লাহ কোনো বাধা-বিপত্তি আমি মানবো না। একমাত্র আল্লাহ ছাড়া আমি কোন মানব সন্তানকে ভয় করি না। প্রয়োজনে রক্ত দিবো, জীবন দিবো কিন্তু আপনাদের অধিকার আদায়ের জন্য শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত কাজ করে যাবো।

ভোটারদের উদ্দেশ্যে ইশরাক হোসেন বলেন, গত ১৩ বছর ধরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আর নয় বছর ধরে সিটি করপোরেশনে তাদের মেয়র। কিন্তু সিটি করপোরেশনে কোন উন্নতি আমরা দেখতে পাইনি। তারা কোনো পরিবর্তন আনতে পারে নাই। আগামীতে তারা কোনো পরিবর্তন আনতে পারবে বলে আমরা মনে করছি না। আমাদের এই ঢাকা শহর ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য বসবাসের অযোগ্য হয়ে গেছে। সারা পৃথিবীতে সবচেয়ে অযোগ্য শহর গুলোর তালিকার মধ্যে ঢাকা উপরের দিকে রয়েছে। তাই আমরা বলবো, সামনে পহেলা ফেব্রুয়ারি একটা সুবর্ণ সুযোগ আপনাদের সামনে। আপনারা ভোটকেন্দ্রে যাবেন পরিবর্তনের জন্য, এ শহর কে বাঁচানোর জন্য। আপনারা ধানের শীষে ভোট দিবেন। ভোটের মাধ্যমে আমরা পরিবর্তন ঘটাবো এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো আর জনগণের অধিকার জনগণকে ফিরিয়ে দেবো ইনশাআল্লাহ

এ সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন সাবেক সফল মেয়র সাদেক হোসেন খোকার সুযোগ্য সন্তান। আমি ঢাকার মেয়র ছিলাম, সাদেক হোসেন খোকা ঢাকার মেয়র ছিলেন। তখন ঢাকার এই পরিণতি ছিলো না। ঢাকা একটি গোছানো শহর ছিলো। তাই আমি বলবো, ইশরাক একজন যোগ্য প্রার্থী। আপনারা তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। সিটি করপোরেশন পরিচালনায় আমার যে অভিজ্ঞতা ও সাদেক হোসেন খোকার যে অভিজ্ঞতা তা সমন্বয় করে ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন এর মাধ্যমে একটি সুন্দর শহর গড়ে তুলবো।

আপনার মতামত দিন



শেষের পাতা অন্যান্য খবর

আগের রূপে চুড়িহাট্টা

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা

কী সিদ্ধান্ত নেবে চার বিশ্ববিদ্যালয়

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

চুড়িহাট্টা ট্র্যাজেডির এক বছর

কোথায় মিলবে সেই প্রিয়মুখ

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আঞ্চলিক যোগাযোগে ‘সম্ভাবনা’ দেখছে নেপাল

ঢাকার সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে টাস্কফোর্স

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



চুড়িহাট্টা ট্র্যাজেডির এক বছর

কোথায় মিলবে সেই প্রিয়মুখ

আঞ্চলিক যোগাযোগে ‘সম্ভাবনা’ দেখছে নেপাল

ঢাকার সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে টাস্কফোর্স