রূপগঞ্জে মহাসড়কে উচ্ছেদ অভিযান

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) থেকে | ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
রূপগঞ্জে এশিয়ার হাইওয়ে সড়কের উভয় পাশে জমি দখল করে অবৈধভাবে গড়ে উঠা স্থাপনায় উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেছে সড়ক ও জনপদ অধিপ্তর নারায়ণগঞ্জ। সড়ক ও জনপদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাহবুবুর রহমান ফারুকীর নেতৃত্বের সোমবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার হাইওয়ে সড়কের কাঞ্চন সেতুর পূর্বপাড়  থেকে কেন্দুয়াপাড়া পর্যন্ত এ উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। অভিযানে সড়কের উভয় দিকে কমপক্ষে ২ শতাধিক বিভিন্ন অবৈধ স্থাপনা ভেঙে  জমি দখলমুক্ত করা হয়। এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপদ বিভাগ নারায়ণগঞ্জের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. সাখাওয়াত হোসেন শামীম বলেন, নিরাপদ সড়ক পরিবহন নিশ্চিত করনের লক্ষ্যে  মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশায়  সড়কের উভয় পাশে ১০ মিটারে মধ্যে কর্তৃপক্ষে অনুমতি ছাড়া কেউ কোন হাটবাজার ও বাণিজ্যিক স্থাপনা নির্মাণ করতে পারবে না। এছাড়া এশিয়ান হাইওয়ে(বাইপাস) সড়ক ৬ লেনে উন্নীত করার লক্ষ্যে সড়কের নিজ জমি উভয় পাশে দখলকৃত জমি দখলমুক্ত করার লক্ষ্যে এ উচ্ছেদ অভিযান শুরু করা হয়েছে। উচ্ছেদ অভিযানের ১৫ দিন আগে দখলদারদের বরাবর সওজের পক্ষ থেকে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। এ উচ্ছেদ  অভিযান চলমান থাকবে বলে তিনি আরো জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন, কাঞ্চন সেতুর টোলপ্লাজার প্রকল্প পরিচালক মো. কারিবুল ইসলাম, কাঞ্চন ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন কর্মকতা মো. আব্দুল মান্নান, ভোলাব তদন্ত কেন্দ্রের এসআই শফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সম্পর্ক ছিল মারিনি

কেন চাপের মুখে অর্থনীতি

গাম্বিয়ার প্রতি নৈতিক সমর্থন ১৪ সদস্যের বাংলাদেশ দল শুনানি পর্যবেক্ষণে

কতজন কিনতে পারছে টিসিবি’র পিয়াজ

চলচ্চিত্র সমাজকে সংস্কার করতে পারে

জমকালো আয়োজনে পর্দা উঠলো বঙ্গবন্ধু বিপিএল’র

বাদলের শূন্য আসন নিয়ে মহাজোটে টানাপড়েন

সচিবালয়ের আশেপাশে হর্ন বাজালে এক মাসের জেল

শুদ্ধি অভিযানে নাম আসা কাউকে ছাড় নয়

আলোচনায় মোহনের ‘মঙ্গল আসর’

ছাগলনাইয়ায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১

স্বর্ণালঙ্কারের লোভেই বরিশালে তিন খুন

দিবারাত্রির টেস্টের প্রস্তাব পাকিস্তানের!

পদ হারানো রাব্বানী চান নুরের পদত্যাগ

হাইডেলবার্গে আলী রীয়াজের অনুষ্ঠানে বাধা

গৃহবধূর চুল কর্তন: উল্লাপাড়া আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে কী অ্যাকশন নেয়া হয়েছে, জানতে চান হাইকোর্ট