রেবেকার টিকে থাকার গল্প

বাংলারজমিন

এস আলম তুহিন, মাগুরা থেকে | ১৬ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার
২৮ বছরের সংসার রেবেকার। স্বামী আবদুল হালিম যখন যাত্রীবাহী পরিবহনের সুপারভাইজার ছিলেন কিংবা দুবাই প্রবাসী। তখন সংসার ছিল সচ্ছলতায় ভরা। ২ বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামী গুরুতর আহত হওয়ায় সেই সচ্ছলতার বদলে সংসার ঘিরে ধরে চরম দারিদ্র্য। সংসারের সব বোঝা তখন ভর করে রেবেকার কাঁধে। তখন থেকেই রেবেকার সকাল হয় মাগুরার বিভিন্ন সবজি ক্ষেত থেকে পাইকারি দরে সবজি কেনার তাগিদ নিয়ে। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে রেবেকা ছোটেন সবজি ক্ষেতে। যেখানে পাইকারি দরে কেনেন লাউ, কফি, কুমড়া, পেপেসহ নানা সবজি।
প্রতি রবি ও বৃহস্পতিবার মাগুরার নতুন বাজার-হাটে এগুলো বিক্রি করেন তিনি। বাকি দিনগুলোতে পিকআপ বোঝাই সবজি নিয়ে যান গাজীপুর, ঢাকার মিরপুর, স্লুইসগেট, আবদুল্লাহপুর কাঁচাবাজারে। আর দশজন পুরুষের মতোই পাইকারের এই কাজটি তিনি করছেন সফলভাবে দু’বছর ধরে। রেবেকা জানান, তার বাবার বাড়ি মাগুরা সদর উপজেলার বেরইল পলিতা গ্রামে। আঠাশ বছর আগে বিয়ে হয় সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার সুবেদবাজারের আবদুল হালিমের সঙ্গে। তাদের সংসারে রয়েছে ১ ছেলে ২ মেয়ে। বিয়ের পর দীর্ঘদিন স্বামীর বাড়িতে সংসার করেছেন রেবেকা। ২ বছর আগে ফরিদপুরের কানাইপুরে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে প্রায় অচল হয়ে পড়েন পরিবহন শ্রমিক স্বামী আবদুল হালিম। সেই থেকে সংসারের দায়িত্ব রেবেকার কাঁধে। মূলত দুর্ঘটনার পরই রেবেকা সিলেট ছেড়ে মাগুরায় চলে আসেন। মাগুরার শিবরামপুরে আরেফিন সালেহিন বিনা ভাড়ায় তাদের থাকতে দিয়েছেন। সেখানেই আছেন পঙ্গু স্বামী ও ছেলে মেয়েদের নিয়ে। রেবেকা জানান, তার নিজের কোনো পুঁজি নেই। ব্যবসার লেনদের ভালো থাকায় সবাই বিশ্বাস ক’রে তাকে বাকিতে সবজি দেন। পরে বিক্রি করে তাদের টাকা শোধ করেন। তার সবজি কেনাবেচা মুলত দৈনিক ভিত্তিক। এ কারণে খুব একটা পুঁজির প্রয়োজন হয় না। পাশাপাশি সব কাজ নিজেই করেন বিধায় লাভ ভালো হয়। মাগুরায় যে দু’দিন তিনি সবজি বিক্রি করেন সে ক’দিন গড়ে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা আয় হয় তার। ঢাকার পাইকারি বাজারে গেলে ১৫০০ থেকে ২০০০ টাকা লাভ থাকে। রেবেকা বলেন, ‘কাজের ক্ষেত্রে নারী পুরুষ কোনো ভেদাভেদ নেই। মনের মধ্যে সাহস রাখি। রাতবিরাতে কখনোই কোনোদিন সমস্যা হয়নি বরং সমস্যায় পড়লে পুরুষরাই এগিয়ে আসেন। রেবেকা আরো জানান, সকাল থেকে রাত অবধি ব্যবসায়িক কাজের ফাঁকে স্বামী, ছেলে-মেয়ের দেখাশোনার কাজ করতে হয় সমানভাবে। সামলাতে হয় রান্নার কাজ। শিবরামপুরের কৃষি উদ্যোক্তা ফেরদৌস আহমেদ দিদার রেবেকা প্রসঙ্গে বলেন, খুব ভোরে আমার সবজি ক্ষেত থেকে লাউসহ বিভিন্ন সবজি সংগ্রহ করেন রেবেকা। পাশাপাশি অন্যান্য ক্ষেত থেকে একইভাবে সবজি সংগ্রহ করেন। তিনি একজন সফল ক্রেতা ও বিক্রেতা। সব সময় ভালো মানের সবজি তিনি ভালো দামে কেনেন। তার কেনা সবজি ভালো হওয়ায় বাজারের ক্রেতাদের আগ্রহ অনেক বেশি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

নিহত তরুণীর পরিচয় মিলেছে

আদালতে ‘বিশৃঙ্খলা’ সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার: আইনমন্ত্রী

শপথ নিলেন জামায়াতের নতুন আমির

কায়সার কামাল কারাগারে

টিসিবি'র পিয়াজ বিক্রি করতে হেলমেট পরতে হয় না, তাই...

সিলেট আওয়ামী লীগে নতুন নেতৃত্ব

‘আপিল বিভাগে এমন অবস্থা আগে কখনো দেখিনি ’

প্রতিবন্ধীরা যেন পরনির্ভরশীল না থাকে: প্রধানমন্ত্রী

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তদন্ত শুরু

রোববার থেকে সারাদেশের বারে আইনজীবীদের অবস্থান

যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে হুয়াওয়ের নতুন আইনি চ্যালেঞ্জ

ধর্ষণ, বিভৎসতা: মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন অগ্নিদগ্ধ ধর্ষিতা

রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয়রা সংখ্যালঘুতে পরিণত হয়েছে: টিআইবি

মালদ্বীপকে ৬ রানে গুটিয়ে দিলো বাঘিনীরা

‘একটি নয়, তিনটি টুপি জঙ্গিরা কারাগার থেকে এনেছিলো’

আপিল বিভাগে নজিরবিহীন বিক্ষোভ (ভিডিও)