‘রোহিঙ্গাদের জোরপূর্বক বিতাড়ন মানবতাবিরোধী অপরাধ’

এক্সক্লুসিভ

মানবজমিন ডেস্ক | ১৬ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:২২
মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক পরিসরে ‘পদ্ধতিগত সহিংসতা’ হয়েছে। যার ফলে তারা দেশত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছে। তাদের জোরপূর্বক এই বিতাড়ন মানবতা বিরোধী অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। বৃহসপতিবার রোহিঙ্গা নির্যাতন নিয়ে পূর্ণমাত্রার তদন্তের অনুমোদন দিয়ে এমনটা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)।   

বৃহস্পতিবার আদালতের তিন বিচারক বিশিষ্ট একটি প্যানেল এই অনুমোদন দিয়েছে। ২০১৭ সালে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালায় মিয়ানমার। ওই অভিযানে মানবতাবিরোধী অপরাধ ও নির্যাতনের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে জুলাই মাসে পূর্ণ তদন্তের অনুমোদন চেয়ে আবেদন করেছিলেন আদালতের প্রধান প্রসিকিউটর ফাতো বেনসুদা। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে এই অনুমোদন দিয়েছে আদালত। এ খবর দিয়েছে অনলাইন আল জাজিরা।

খবরে বলা হয়, সমপ্রতি রোহিঙ্গা নির্যাতন নিয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়ছে।
সোমবার দ্য হেগে জাতিসংঘের শীর্ষ আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে গাম্বিয়া। এরপর বুধবার আর্জেন্টিনায় মিয়ানমারের বেসামরিক নেত্রী অং সান সুচি ও শীর্ষ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মিয়ানমারের সামরিক নৃশংসতা থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে কমপক্ষে সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা।

২০০২ সালে বিশ্বের সবচেয়ে নিকৃষ্টতম অপরাধগুলোর বিচারের জন্য আইসিসি প্রতিষ্ঠিত হয়। হেগ-ভিত্তিক আদালতটি বৃহসপতিবার মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আনা অপরাধ অভিযোগের তদন্তের অনুমোদন দিয়েছে। আদালতের তথ্য অনুসারে, মিয়ানমারের বিরুদ্ধে পদ্ধতিগত সহিংস কর্মকাণ্ড এবং জাতি বা ধর্ম বিবেচনায় রোহিঙ্গাদের নির্যাতন করার অভিযোগ রয়েছে। আদালতের তিন বিচারক বিশিষ্ট প্যানেল বলেছে, এমনটা বিশ্বাস করার যৌক্তিক ভিত্তি রয়েছে যে, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ব্যাপক ও পদ্ধতিগত সহিংস কর্মকাণ্ড সংঘটিত হয়ে থাকতে পারে। যেগুলো মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্তে পাড়ি দেয়া মানুষদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে গণ্য হতে পারে। এছাড়া, জাতি ও ধর্ম বিবেচনায়ও তাদের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে, আইসিসি’র সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে একাধিক আন্তর্জাতিক সংগঠন। দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেনের শিশু ও সশস্ত্র সংঘাত বিষয়ক পরিচালক জর্জ গ্রাহাম বলেন, মিয়ানমার নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যে মাত্রা ও তীব্রতার সহিংসতা চালিয়েছে তা একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ শুনানির দাবি রাখে। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা বালক-বালিকাদের হত্যা করা হয়েছে, ধর্ষণ করা হয়েছে। তারা গর্হিত মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার হয়েছে।

জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্র সহ একাধিক আন্তর্জাতিক সংগঠন ও দেশ মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা গণহত্যা বা জাতিগত নিধনের চালানোর অভিযোগ এনেছে। তবে মিয়ানমার এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে। দেশটি আইসিসি’র সদস্য নয়। তবে গতবছর এক রায়ে আইসিসি জানিয়েছে, মিয়ানমারে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধ তাদের বিচারিক এখতিয়ারের মধ্যে পড়ে। কেননা, মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গারা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। আর বাংলাদেশ আইসিসি’র সদস্য। এক্ষেত্রে দেখা হবে অপরাধগুলো আদালতের এখতিয়ার ভুক্ত কিনা বা অন্তত এটি বাংলাদেশের ভূখণ্ডের কোথাও সংশ্লিষ্ট কিনা বা অন্য সদস্য দেশের ভূখণ্ডের মধ্যে কিনা বা এটা বাংলাদেশ রোম সনদে স্বাক্ষরের পর হয়েছে কিনা।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে রোহিঙ্গা নির্যাতন নিয়ে একটি প্রাথমিক তদন্ত করার অনুমোদন পেয়েছিলেন আইসিসি’র প্রধান প্রসিকিউটর বেনসুদা। পরবর্তীতে চলতি বছরের জুলাইয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে একটি পূর্ণ মাত্রার তদন্তের আবেদন করেন তিনি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রোহিঙ্গা নির্যাতনের ন্যায়বিচার চায় অক্সফ্যাম

বিক্ষোভ মোকাবিলায় উত্তর-পূর্ব ভারতে নামানো হল সেনা

বৃটেনে সাধারণ নির্বাচন আজ

কেরানীগঞ্জে কারখানায় আগুন

খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি আজ কড়া নিরাপত্তা

টিসিবি’র পচা পিয়াজ নিয়ে ক্রেতাদের ক্ষোভ

কুষ্ঠরোগীদের জন্য ওষুধ তৈরি করতে দেশি প্রতিষ্ঠানের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান

হাইকোর্ট মোড়ে ৩ মোটরসাইকেলে আগুন

ভিন্নমতের কারণে ১০ বছরে নিহত ১৫২৫, গুম ৭৮১

ভারতীয় নাগরিকপঞ্জীর সমালোচনায় রানা দাসগুপ্ত

ইউএনডিপি’র মানব উন্নয়ন সূচকে এক ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

দুদুসহ বিএনপি’র পাঁচ নেতার ৮ সপ্তাহের আগাম জামিন

বিশ্ববিদ্যালয়ে সান্ধ্য কোর্স বন্ধসহ ১৩ নির্দেশনা ইউজিসি’র

শাজাহান খানকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম ইলিয়াস কাঞ্চনের

লোকসভার পর রাজ্যসভাতেও পাস হয়ে গেল বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল

‘ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ অবস্থান পদস্খলন হলে ঐতিহাসিকভাবে দেশটির অবস্থান দুর্বল হবে’