ফিক্সিং কেলেঙ্কারিতে ভারতীয় ক্রিকেটার গ্রেফতার

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ৭ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:২৫
কর্ণাটকা প্রিমিয়ার লীগে (কেপিএল) ফিক্সিং কেলেঙ্কারিতে আজ দুইজন ভারতীয় ক্রিকেটারকে গ্রেফতার করেছে ভারতীয় পুলিশ। এছাড়া গতকালও একজনকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। শুধুমাত্র ক্রিকেটার নয় কোচ ও মালিক ফিক্সিংয়ে সরাসরি জড়িত থাকায় তাদেরও গ্রেফতার করা হয়।
গতমাসে হাবলি টাইগার্সের ব্যাটসম্যান এম বিশ্বনাথকে ম্যাচ ফিক্সিং ও জুয়ারিদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার দায়ে গ্রেফতার করে সেন্ট্রাল ক্রাইম ব্রাঞ্চ অফ বেঙ্গালুরু (সিসিবিবি)। এবার বেঙ্গালুরু ব্লাস্টার্সের ব্যাটসম্যান নিশান্ত সিং শিখওয়াতকে একই অপরাধে গ্রেফতার করে তারা। নিশান্তকে গতকাল গ্রেফতার দেখানো হয়। আর আজ গ্রেফতার হলেন বেলারি টাস্কার্সের দুজন খেলোয়াড়কে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন অধিনায়ক সিএম গৌতম ও আবরার কাজী। তারা দুজনে সরাসরি ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।
টুর্নামেন্টের ফাইনালে হাবলি টাইগার্সের বিপরীতে মাঠে নেমেছে গৌতমের টাস্কার্স। এই ম্যাচে ধীরগতির ব্যাটিংয়ের জন্য তাদের ২০ লাখ রুপি প্রস্তাব করা হয়। এবং তারা সেটাই করেন। তাই টাস্কার্স ম্যাচটি হারে ৮ রানে। এছাড়াও আরো ম্যাচে তারা ফিক্সিং করে বলে প্রমাণ পাওয়া যায়। যদিও দুজনে এখন দল ছেড়েছেন।
ক্রিকেটার ছাড়া কেপিএলে অংশ নেয়া ফ্যাঞ্চাইজি বেঙ্গালুরু ব্লাস্টার্সের বোলিং কোচ ভিসু বিনোদ ও বেলগাভি প্যান্থার্সের মালিক আলি আসফাক থারাকেও ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকায় গ্রেফতার করে সিসিবিবি। বেলগাভি প্যান্থার্সকে নিষিদ্ধ করেছে কেপিএল কর্তৃপক্ষ।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

পেট্রোলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ, ইরানে নিহত ২

পিয়াজ বিমানে উঠে গেছে, আর চিন্তা নেই

ক্যাসিনো কাণ্ড: দু’মাসে ৫০ অভিযান, এরপর কি?

এবার চালবাজি

বিয়েতে পিয়াজ উপহার

শ্রমিক নিয়োগে সিঙ্গাপুর মডেল

অতি মুনাফার পিয়াজ এবার ময়লার ভাগাড়ে

চুয়াডাঙ্গায় পিয়াজের বাজারে অভিযান অবরুদ্ধ ম্যাজিস্ট্রেট

ছাই থেকে জ্বালানির খোঁজে মুমিনুল

সারা দেশে বিএনপি’র প্রতিবাদ সমাবেশ কাল

ম্যাজিস্ট্রেট আসার খবরে ৭০ টাকা কমে গেল পিয়াজের দাম

কৃষ্ণা রায়কে চাপা দেয়া বাসচালকের সহকারী গ্রেপ্তার

পদ পেতে মরিয়া সিলেট আওয়ামী লীগের নেতারা

ছুরিকাঘাতে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে চবি ভর্তিচ্ছু ছাত্রী

রাবি শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগের মারধর

সাড়ে ৪ বছরেও ‘ভালো’ ঋণ গ্রহীতাদের প্রণোদনায় অগ্রগতি নেই