থানায় গৃহবধূর সঙ্গে ধর্ষণকারীর বিয়ে, পাবনার ওসি প্রত্যাহার

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১:১৩ | সর্বশেষ আপডেট: ৪:০৫
পাবনায় গৃহবধূকে দলবেঁধে ধর্ষণ এবং থানায় তাদের একজনের সঙ্গে ভিকটিমের বিয়ে দেয়ার ঘটনায় সদর থানার ওসি ওবাইদুল হককে প্রত্যাহার ও এসআই একরামুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। জেলার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এছাড়া এ ঘটনায় মামলার আরও দুই আসামিকে সকালে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে এ ঘটনায় মোট চারজন গ্রেপ্তার হলো।

থানায় বিয়ে দেয়ার বিষয়ে পুলিশ কর্তৃপক্ষ ওসি ওবাইদুল হককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়। এছাড়া ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে পরে থানায় মামলা নেয়া হয়। ঘটনা তদন্তের জন্য তিন সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করে পুলিশ।

উল্লেখ্য, তিন সন্তানের জননী ওই নারীর বাড়ি পাবনা সদর উপজেলার দাপুনিয়া ইউনিয়নে। তার অভিযোগ, প্রতিবেশী রাসেল আহমেদ গত ২৯শে আগস্ট তাকে তার বাড়িতে নিয়ে এক সহযোগিসহ পালাক্রমে ধর্ষণ করে। দু’দিন পর তাকে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিসে নিয়ে তিনদিন আটকে রাখা হয় এবং সেখানে আরও ৪-৫ জন তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

ওই নারী বাড়ি ফিরে স্বজনদের বিষয়টি জানালে গত ৫ই সেপ্টেম্বর তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে নির্যাতিত গৃহবধূ নিজেই বাদি হয়ে পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ করলে পুলিশ রাসেলকে আটক করে।

কিন্তু মামলা নথিভুক্ত না করে পুলিশ ওই রাতেই রাসেলের সঙ্গে তার বিয়ের ব্যবস্থা করে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

গৃহবধূর বাবা সাংবাদিকদের বলেন, আমার মেয়ে অপহৃত হওয়ার কয়েক দিন পর তাকে খুঁজে পেয়ে হাসপাতালে ভর্তি করেছিলাম। পরে তার কাছে ঘটনার বিস্তারিত শুনে থানায় অভিযোগ দিই। কিন্তু পুলিশ আমার মেয়েকে থানা হেফাজতে রেখে আমাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেয়।

তিনি আরও বলেন, পরে জানতে পারি থানায় রাসেলের সঙ্গে ওর বিয়ে দেয়া হয়েছে। আমার মেয়ের তো স্বামী-সন্তান আছে। আমরা সামাজিকভাবে অপদস্থ হয়েছি।

দাপুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য  দৌলত আলী জানান, সদর থানার উপ-পরিদর্শক একরামুল হক আমার উপস্থিতিতেই রাসেলকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। পরে শুনি থানায় তাদের বিয়ে দিয়েছে। এটা তো কোনো নিয়মেই পড়ে না।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই পুলিশের এ ভূমিকা নিয়ে  ক্ষোভ প্রকাশ করে সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানান।

অভিযোগকারী ওই গৃহবধূ আরও জানান, রাসেলকে আটক করে থানায় আনার পর ওসি স্যার নিজেই কাজী  ডেকে এনে সেখানে আমাদের বিয়ে দিয়েছেন।

আর রাসেল জানান, আমি ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত নই, আমাকে পুলিশ মিথ্যা অভিযোগে গ্রেপ্তার করে মামলা ও রিমান্ডের ভয় দেখিয়ে জোর করে বিয়ে দিয়েছে, আমি ষড়যন্ত্রের স্বীকার। থানায় আমাদের বিয়ের সময় এসআই একরাম আমাদের ছবিও তুলেছে।

এ বিষয়ে ওই সময় এসআই একরাম সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আমি এ নিয়ে কিছু বলব না। যা বলার ওসি স্যার বলবেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

mohammed mashud

২০১৯-০৯-১২ ০৯:১৫:২৫

কাদের কাক্কুরা, তোরা দেখিস না , ৭১এর ধর্ষকের ফাঁসি হতে পারে এই ধর্ষকদের ফাঁসি হয় না কেন ? কাক্কুর সরকারের কাছে জবাব চাই l

Nixon

২০১৯-০৯-১২ ০৭:৫৩:৪৯

বাংলাদেশী পুলিশ তো বেশ বেপরোয়া। যদি ঐ ওসির বৌয়ের সঙ্গে এমন হতো তাহলে ও কি করতো ? আসলে ও তো ওসি সাহেব তাই সপ্নেও ভাবেনা ওর বৌয়ের সঙ্গে এমন হতে পারে । Extra smart

Reza

২০১৯-০৯-১২ ১৬:৪৫:২৬

বাংলাদেশ এখন উত্তর কোরিয়া যেখানে ধর্ষণের কোনো বিচার হয় না.এই তথ্যটি সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় পাওয়া, যেখানে দেখানো হয়েছে মাত্র ২% ধর্ষক শাস্তি পায় বাকি ৯৮% শাস্তির বাইরে!কেন ধর্ষণ হবেনা বলুন ?

হাবিবুর রহমান

২০১৯-০৯-১২ ০৩:৩৩:২৬

এসব পুলিশকে অবিলম্বে স্থায়ী বরখাস্ত করতে হবে,এরা পুলিশে চাকরি করার যোগ্যনয়।

আলপাজ প্রামানিক

২০১৯-০৯-১২ ১৬:১১:৫৭

এবারে ধর্ষণকারির বাড়ি বা মহাল্লা হতে একটি নারী কুকুর এনে ওই ওসির সংগে বিবাহ দেওয়া হোউক। অপরাধীদের শস্তি যা হওয়ার হবে, তবে রাতারাতি জোর করিয়ে তালাক আর তৎখনাত এক কুকুরতুল্ল্য ধর্ষকের সহিত মহিলার বিবাহ দেওয়ার মত জগন্ন্য কাজের উপুযক্ত পুরস্কারো তো পাওআ উচিত। নয় কি?

মোঃ নুরুল আলম

২০১৯-০৯-১২ ১৬:০৭:৪১

শাসকগোষ্ঠী যেভাবে প্রশাসনকেই ধর্ষণ করে ফেলেছে সেখানে .........

মোহাম্মদ হারুন আল রশ

২০১৯-০৯-১২ ১৩:৫৯:১৮

মহাশয়, নিকট অতীতে এমন পাপাচারে নিগৃত নির্দোষ মহিলারাই বেশী বেশী জুলুমের শিকার হতো গ্রাম্য শালিসে দেয়া ফতুয়ার মাধ্যমে।সে কারনে মহামান্য হাই কোর্ট ফতুয়া নিষিদ্ধ করেছেন। তা হলে পুলিশি ফুতুয়া মানে পুলিশকতৃক কথিত বিবাহ সংগঠন উক্ত রায়ের সরাসরি লঙ্ঘন। গুরুতর অপরাধের এমন সহজ (?) সমাধান ধর্ষকসৃষ্টিতে ইন্ধন জোগাবে। আর ধর্ষকরা সহজেই পার পেয়ে যাবে।

আপনার মতামত দিন

‘আমাদের নাটকের গল্পে বেশ পরিবর্তন এসেছে’

প্রাচীরে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, ইউপি সদস্য নিহত

এনআরসি’র নামে আসামে যা হচ্ছে তা বিপজ্জনক

ছয় মাসে মালয়েশিয়ায় ৩৯৩ বাংলাদেশি শ্রমিকের মৃত্যু

এবার প্রক্টর-ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ফাঁস

সিনেট থেকে শোভনের পদত্যাগ, কী করবেন গোলাম রাব্বানী

দৃশ্যত কাশ্মীর নিয়ে মন্তব্য করায় আমাকে ভিসা দেয়া হয়নি

বিদেশ মিশনে নিয়োগ চেয়ে পুলিশের প্রস্তাব

খালেদা জিয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে আটকে রাখা হয়েছে: মির্জা ফখরুল

আগুনে কি ইরানই ঘি ঢালছে?

আজ থেকে খোলাবাজারে পিয়াজ বিক্রি

জাপাকে ছেড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাহার

মেট্রোরেলের নিরাপত্তায় পুলিশ ইউনিট গঠনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ডেঙ্গুতে দুই শতাধিক মৃত্যুর তথ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে

নতুন ভিডিও ভাইরাল

সম্পাদক পরিষদের সভাপতি মাহফুজ আনাম, সম্পাদক নঈম নিজাম