স র জ মি ন: সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল

রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে দীর্ঘ অপেক্ষা

এক্সক্লুসিভ

মোহাম্মদ ওমর ফারুক | ৯ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৫৩
রেহানা আক্তার। দুই দিন আগে তিন ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে ডেঙ্গু পরীক্ষার জন্য রক্ত দিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রিপোর্ট দেয়ার কথা থাকলেও বুধবার পর্যন্ত তিনি রিপোর্ট পাননি। কেন পাননি, তাও জানেন না। রেহানা বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আসার পর তারা বলেছেন বুধবারে আসার জন্য। কিন্তু বুধবার বিকাল তিনটা বাজলেও কোনো সম্ভাবনা দেখছি না। শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে দেখা যায়, সেখানে প্রথম ও দ্বিতীয় তলায় সহস্রাধিক মানুষ ডেঙ্গু জ্বরের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও রিপোর্ট সংগ্রহের জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন। রোগীদের চাপ সামলানোর জন্য স্বেচ্ছাসেবকরা রয়েছেন।
তবে দায়িত্বরতদের বিষয়টি  সামাল দিতে হিমশিম খেতে দেখা যায়। বিষয়টি নিয়ে রোগীদের সঙ্গে কথা বললে তারাও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বলছেন, পরীক্ষা নিরীক্ষা ও রিপোর্ট দেয়ার ক্ষেত্রে অনেক সময় লাগছে। এদিকে গত পাঁচ দিনে হাসপাতালটিতে ডেঙ্গু পরীক্ষা করিয়েছেন প্রায় সাড়ে তিন হাজার। এর মধ্যে শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৩শ জনের মতো। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছেন, সরকার ডেঙ্গু টেস্টের ক্ষেত্রে সরকারি হাসপাতালে ফি ফ্রি ঘোষণার পর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে চাপ বেড়েছে ৫ গুণ। যে কারণে লম্বা সিরিয়ালে যেমন রোগী কিংবা রোগীর স্বজনদের দাঁড়াতে হচ্ছে, তেমনি প্যাথলজি বিভাগেও বেড়েছে ব্যস্ততা। একই জনবলে ৫ গুণ রিপোর্ট ডেলিভারি দেয়া অসাধ্য হয়ে পড়েছে। শুধু ডেঙ্গু টেস্টই নয় অতিরিক্ত চাপের কারণে রোগীদের থাকতে হচ্ছে মেঝেতে বা বারান্দায়। শিশু ওয়ার্ডে দেখা যায় বেশীরভাগ রোগীই মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। কথা হয় শিশু ওয়ার্ডে নাফিজা আক্তার নামে এক ডেঙ্গুর রোগীর অভিভবকের সঙ্গে। তিনি বলেন, তিনদিন ধরে মেঝেতে শুয়ে থাকতে হয়েছে। এখনো বাচ্চাটার কোনো ধরনের পরিবর্তন নেই। প্লাটিনেট ওঠানামা করছে। ধানমন্ডি ঝিগাতলার বাসিন্দা আতিকুর রহমান বলেন, ছেলের জ্বরের কারণে হাসপাতালে ডাক্তার দেখিয়েছি গতকাল। ডাক্তার ডেঙ্গু টেস্টসহ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা দিয়েছেন। রিপোর্ট নিয়ে দেখা করেতে বলেছে। বুধবার বিকালে রিপোর্ট হাতে পাওয়ার কথা ছিল, কিন্তু পাইনি। রিপোর্ট পাওয়ার আশায় সকালে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়েছি। রিপোর্ট পাওয়ার পর আবার ডাক্তার দেখাতে হবে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক উত্তম কুমার বলেন, সরকার ডেঙ্গু জ্বরের টেস্ট ফ্রি ঘোষণার পর জ্বরে আক্রান্ত মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়েছে হাসপাতালে। আমাদের স্বল্প জনবলে এই পরিস্থিতি সামাল দেয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। আমাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা মেশিনের যে ধারণ ক্ষমতা বা সক্ষমতা তাও কখনও কখনও অতিরিক্ত চাপে আউট অব অর্ডার হয়ে যাচ্ছে। যার কারণে প্রতিদিনের রিপোর্ট প্রতিদিন দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। ইতিমধ্যে এসব বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বরাবর চিঠি লিখছি। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে যেন দ্রুত অতিরিক্ত জনবলের ব্যবস্থা করা হয়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

হাইকোর্টের আরেক বেঞ্চে মিন্নির জামিন আবেদন

কেড়ে নেয়া হতে পারে জাকির নায়েকের মালয়েশিয়ায় বসবাসের অনুমতি: মাহাথির

আধা বেলায় ছাত্রদলের মনোনয়ন ফরম শেষ

আফগানিস্তানে কোনো নির্বাচন মানবে না তালেবান

ইসরাইলি সেনাদের গুলিতে ৩ ফিলিস্তিনি নিহত

আবারো সৌদি আরবের গুরুত্বপূর্ন তেলক্ষেত্রে হুতির ড্রোন হামলা

শহিদুল আলমের মামলা স্থগিতই থাকবে

ঢামেকে স্টাফদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ২৫

এবারের ঈদযাত্রায় ২০৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২২৪

দুই দিনে মনোনয়ন কিনলেন ১০৮ জন

দেশের মাটিতে মঈনুল ও তানিয়ার লাশ

রাজধানীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় বৃদ্ধাসহ নিহত ২

পাকিস্তানে তালেবান প্রধানের ভাইকে হত্যা শান্তি আলোচনার পথে সমস্যা নয়

অবরুদ্ধ কাশ্মীরে বাড়ছে নিরাপত্তা বাহিনীর নির্যাতন, চলছে বাছবিচারহীন গ্রেপ্তার

চামড়ার দরপতনের তদন্ত চেয়ে রিট

আফগানিস্তানে বিয়ের অনুষ্ঠানে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা, হতাহত ২৫০