দিনহাটার পেয়ারার শেষ জনাজায় অংশ নিতে ভাইপোরা ঢাকায়

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৫ জুলাই ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:০১
ফাইল ছবি
পশ্চিমবঙ্গের দিনহাটার মানুষের কাছে তিনি পেয়ারা নামেই পরিচিত ছিলেন। সেই পেয়ারা তথা হুসেইন মহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর খবর রবিবার দুপুরেই পৌঁছেছিল দিনহাটায় এরশাদের ভাইয়ের পরিবার এবং বাল্য বন্ধুদের কাছে। সেই থেকে শোকস্তব্ধ ভাইয়ের পরিবার। রবিবার কোনও রান্নাই হয়নি সেই পরিবারে। এরশাদের শেষ জানাজায় যোগ দিতে জন্মভূমি থেকে রবিবারই গিয়েছেন ভাইপো আহসান হাবিব। আজ সোমবার পৌঁছেছেন আর এক ভাইয়ের ছেলে জাকারিয়া হোসেন ও বোন বেগম নাজিমা আসমানি। দিনহাটা শহরের পুরনো বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এরশাদের পৈতৃক বাড়ি। এই বাড়িতেই বসবাস করেন তাঁর দুই চাচাত ভাই তোজাম্মেল হোসেন, মোসাব্বের হোসেন ও তাদের পরিবার।
এরশাদের ভ্রাতৃবধূ জেবুন্নেসা বলেছেন, বড়দা বাড়িতে এলেই বরোলি মাছের ঝোল ও খেজুরের রসের মিস্টি খেতে ভালবাসতেন । কৈশোরের সহপাঠী ও বন্ধুদের মধ্যে যে কয়জন বেঁচে রয়েছেন তাদের মুখে এখন শুধুই পুরনো দিনের কথা। যতবার দিনহাটায় এসেছেন বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় মেতে থাকতেন। ছেলে এরিককে সঙ্গে নিয়ে আসতেন। শোনাতেন দিনহাটার গল্প। এমনকি ডুয়ার্সেও ঘুরে গিয়েছেন। এরশাদ নেই জানার পর দিনহাটায় এরশাদের আপনজনদের মধ্যে গভীর শূণ্যতা।

জেবুন্নেসাই বলছিলেন, পরিবারের ছাদ ছিলেন বড়দা। দুই মাস আগেই ভাইদের পরিবারের সকলে দেখা করতে গিয়েছিলেন। তখন থেকেই তিনি অসুস্থ ছিলেন। দিনহাটার পরতে পরতে এরশাদের অনেক স্মৃতি রয়ে গিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার দিনহাটাতেই এরশাদের জন্ম। কৈশোরের একটা বড় সময় কাটিয়েছেন দিনহাটাতেই। দিনহাটায় এরশাদের পিতা ছিলেন খুবই প্রভাবশালী ব্যাক্তি। তবে দেশভাগের সময় এরশাদের পিতা সীমান্তের ওপারে চলে গেলেও এরশাদের চাচারা থেকে গিয়েছেন দিনহাটাতেই। আর ছোটবেলায় কাটানো এই দিনহাটার টানে মাঝে মাঝেই চলে আসতেন তিনি দিনহাটায়।

প্রথমে ২০০৯ সালে এবং পরে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে তিনি দিনহাটায় এসেছিলেন। দিনহাটা হাই স্কুলে পড়াশোনা করার সময় তাঁর সহপাঠী ছিলেন রাজ্যের সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত কমল গুহ, চিকিৎসক প্রয়াত অসিত চক্রবর্তী, সংগীতশিল্পী প্রয়াত সুনীল দাস ছাড়াও দিনহাটা পুঁটিমারী হাই স্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক সুধীর সাহা প্রমুখ। দিনহাটায় এলেই বন্ধুদের সঙ্গে মেতে উঠতেন পুরনো দিনের আলোচনায়। সাইকেলে চড়ে দিনহাটা ঘুরে বেড়ানোর দিনগুলিতে ফিরে যেতে চাইতেন। এমনই জানিয়েছেন তার বাল্যবন্ধু সুধীর সাহা। দিনহাটায় এলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাকে সম্বর্ধনা দিলে তিনি খুশি হতেন। এরশাদের মৃত্যুতে শোকজ্ঞাপন করে দিনহাটার বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেছেন, বাবার সহপাঠী ছিলেন এরশাদ। যে কয়বার তিনি দিনহাটা এসেছেন ততবারই তার সাথে কথা হয়েছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Selina

২০১৯-০৭-১৫ ০৬:৫৫:৪১

Probably first time BBC bangla radio on air this wording . ..dinhatar peara. .(innaliahe. . ...razeun)

আপনার মতামত দিন

‘দর্শক কাঁদতে কাঁদতে হল থেকে বের হবে’

বুমরাহর তোপে ১০০ রানে অলআউট উইন্ডিজ, ভারতের রেকর্ড গড়া জয়

গ্রিজম্যান ২, বার্সেলোনা ৫, বেতিস ২

স্টোকসের অবিশ্বাস্য ইনিংসে ইংল্যান্ডের ইতিহাস গড়া জয়

শুল্কমুক্ত গাড়ি সুবিধা মুহিতের সুনামের সঙ্গে মানানসই হবে না: টিআইবি

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংককে আর কোনো অর্থ দেয়া হবে না

বিদেশগামীদের সঙ্গে প্রতারণা ঠেকাতে নজরদারি জোরদারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিকাহনামা থেকে কুমারি শব্দ বাদ দেয়ার নির্দেশ

মাহীকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ, যাননি স্ত্রী

ডেঙ্গুতে মৃত্যু থামছে না

স্কুল থেকে মেয়েকে নিয়ে ফেরা হলো না আফছারের

৬ মাসে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকা

কোনো ষড়যন্ত্রই উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না-সালমান এফ রহমান

দেড় মাসেও খোঁজ মেলেনি সিলেটের নাসিমার

নাগরিকত্ব দিলে একসঙ্গে ফেরার ঘোষণা

দায়বদ্ধতা ও প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে মনোনিবেশ করুন