সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে বিধি লঙ্ঘন করে নিয়োগ

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ৭ জুলাই ২০১৯, রোববার
একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প, যা বর্তমানে আমার বাড়ি আমার খামার প্রকল্প নামে পরিচিত এবং প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের জন্য প্রতিষ্ঠিত পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. মিহির কান্তি মজুমদার এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আকবর হোসেনের বিরুদ্ধে আইন ও বিধি লঙ্ঘন করে প্রতিষ্ঠানটিতে বিদ্যমান জনবলকে উপেক্ষা করে নতুন নিয়োগ দেয়াসহ নানান অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।
গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ তুলেন আমার বাড়ি আমার খামার প্রকল্প ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারী সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. সোলাইমান। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রকল্প ও ব্যাংকের আইন ও নিয়োগ বিধি অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অগ্রাধিকার দেয়ার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু এসব বিধান উপেক্ষা করে ব্যাংকে বাইরে থেকে এনজিও কর্মী ও বিভিন্ন ব্যাংক থেকে কর্মী নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। এ প্রক্রিয়া বন্ধে উচ্চ আদালতের আদেশ থাকা সত্ত্বেও সম্প্রতি ব্যাংকটিতে প্রায় ১৪৯ জনকে রাতের আঁধারে অবৈধভাবে সিনিয়র অফিসার পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এমনকি তারা তড়িগড়ি করে তাদের এই সপ্তাহেই বিভিন্ন উপজেলায় পদায়নের চেষ্টা করা হচ্ছে। ফলে ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের হেয়ালিপনায় বর্তমান প্রকল্পে দীর্ঘ ৮ বছর ধরে এবং পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে ৩ বছর ধরে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।
তিনি বলেন, পুরনো কর্মীদের বাদ দিয়ে নিয়োগ বাণিজ্যের মাধ্যমে ব্যাংকটিতে সম্প্রতি ৪৮৫ জন ক্যাশ সহকারী নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এমনকি ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার তোফায়েল আহমেদ ঘুষ বাণিজ্যের ৪৪ লাখ টাকাসহ পুলিশের কাছে গ্রেপ্তার হয়েছেন। বিভিন্ন সুবিধা নিয়ে চুক্তিভিত্তিক ৩০ জন উপ-আঞ্চলিক অফিসার নিয়োগ দিয়েছেন, যার ৭৫ ভাগই এনজিও কর্মী।
সোলায়মান বলেন, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের ৪০,৫০০ সমিতির ২২ লাখ সদস্য পরিবারের ১.২০ কোটি দরিদ্র মানুষের সঞ্চয় ও সরকারের অনুদান ২,১৪০ কোটি টাকাসহ প্রকল্পে বর্তমানে প্রায় ৩,৩৯৫ কোটি টাকার তহবিল রয়েছে। এই তহবিল থেকে ১,০০০ কোটি টাকা নিয়ে গঠিত হয়েছে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক। যেখানে সুবিধাভোগীরা ৪৯ শতাংশ এবং সরকার ৫১ শতাংশের শেয়ার হোল্ডার। এ অর্থ বিভিন্ন ব্যাংকে গচ্ছিত রেখে ইউএনও-দের সহায়তায় এতদিন মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা তহবিল পরিচালনা ও ঋণ বিতরণ করলেও বর্তমানে এই তহবিল কেন্দ্রে পুঞ্জিভূত করা হয়েছে। ফলে এই তহবিলের অপব্যবহারের শঙ্কা দেখা দিয়েছে বলেও দাবি করেন।
সংবাদ সম্মেলনে কর্তৃপক্ষের এসব সিদ্ধান্ত বাতিল এবং প্রকল্পের বিদ্যমান জনবল স্থায়ীকরণসহ ৭ দফা দাবি মেনে নেয়ার আহ্বান জানান। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণারও হুমকি দেন। এর আগে প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনে বক্তারা বলেন গরিব ও অসহায় জনগণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেয়া পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকটিকে চেয়ারম্যান এনজিও করার পরিকল্পনায় লিপ্ত আছেন। আমরা তার এই পরিকল্পনা সফল হতে দেবো না। ৮ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী চাকরি স্থায়ীকরণ অবিলম্বে কার্যকর করতে হবে। অন্যথায় আমরা গণআন্দোলনের ডাক দিবো।
এজন্য আমরা প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী এবং সচিবের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

৯৪ চিকিৎসকসহ ৩০০ স্বাস্থ্যকর্মী ডেঙ্গু আক্রান্ত

এভাবে কতদিন?(ভিডিও)

বিএনপিকে ধ্বংসের চক্রান্ত করছে সরকার: রিজভী

২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত ১৫৯৭ জন হাসপাতালে ভর্তি

মেসির সঙ্গে ডিনারে যেতে চান রোনালদো

বিজেপির অনুষ্ঠানে অশ্লীল নাচ

মোদির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভ করবে পিটিআই

‘আমরা জোর করে কিছু করতে চাই না’(অডিও)

মোবাইল অ্যাপে পাওয়া যাবে বিমানের টিকিট

ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ : শিক্ষক বরখাস্ত

শেরপুরে বৃদ্ধাকে গলা কেটে হত্যা

‘দুই পারমাণবিক শক্তিধর দেশ কথা বলছে চোখের ওপর চোখ রেখে’

যাত্রা শুরু হলো ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ গাঙচিলের

বেরোবিতে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর

‘কথা বললেই ১ হাজার টাকা জরিমানা'

চিদাম্বরমকে রাতভর জেরা, আজ তোলা হবে আদালতে