ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২৫ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০১
তিন কোটি ৭ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন ও ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পুলিশের আলোচিত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান এবং তার স্ত্রী, ভাই ও ভাগ্নের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সংস্থাটির জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য এ তথ্য নিশ্চিত করেন। মামলার অন্য আসামিরা হলেন- ডিআইজি মিজানুর রহমানের স্ত্রী সোহেলিয়া আনার রত্না, ভাগ্নে পুলিশের এসআই মাহমুদুল হাসান ও ছোট ভাই মাহবুবুর রহমান। মামলার এহাজারে বলা হয়, আসামি মিজানুর রহমান অবৈধ অর্থ দিয়ে বিভিন্ন সময়ে তার নিকট আত্মীয়-স্বজনের নামে বিভিন্ন সম্পদ ক্রয় করে কৌশলে নিজেই ভোগদখল করে আসছেন। গতকাল দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ সংস্থাটির পরিচালক মনজুর মোর্শেদ বাদী হয়ে মামলাটি ( মামলা নম্বর ১) দায়ের করেন। এই মামলার মাধ্যমে দুদক নিজ কার্যালয়ে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া শুরু করল। এর আগে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশন সভায় মামলাটি অনুমোদন দেয়া হয়। আসামিদের বিরুদ্ধে দুদক আইন-২০০৪ এর ২৬ (২) ও ২৭ (১) ধারা ও মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২ এর ৪ (২) ও ৪ (৩) ধারা এবং দণ্ডবিধির ১০৯ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।
দুদক সূত্র জানায়, ডিআইজি মিজান তার ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানের নামে ২০১২ সালের ৭ই ফেব্রুয়ারি রাজধানীর গুলশান-১ এর পুলিশ প্লাজায় ২১১ বর্গফুট আয়তনের একটি দোকান (৩১৪) ২৪ লাখ ২১ হাজার টাকা দিয়ে বরাদ্দ নেন। এই দোকান তার স্ত্রী সোহেলিয়া আনারের নামে ভাড়া দেখিয়ে নিজের দখলে রাখেন মিজান। তার অর্থে এই দোকান কিনলেও তিনি তা গোপন করেন। আসামি মিজানুর রহমান নমিনী হয়ে মাহমুদুল হাসানের নামে ২০১৩ সালের ২৫শে নভেম্বরে ওয়ান ব্যাংকের কারওয়ান বাজার শাখায় এফডিআর অ্যাকাউন্ট খুলে ৩০ লাখ টাকা জমা করেন। দুদকের অনুসন্ধানকালে এই এফডিআর ভেঙে সুদ-আসলে ৩৮ লাখ ৮৮ হাজার ৮৭ টাকা উত্তোলন করে স্থানান্তর করেন। ডিআইজি মিজান তার ভাই মাহবুবুর রহমানের নামে ২০১৬ সালে নিউ বেইলী রোডে ৬৬ লাখ টাকায় ২৪০০ বর্গফুটের একটি ফ্ল্যাট কেনেন। এ ফ্ল্যাটটি ডিআইজি মিজানের দখলে রয়েছে। এটা তার অর্থে কেনা।
ডিআইজি মিজান তার ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানের নামে ২০১৬ সালে রাজধানীর কাকরাইলের ‘নির্মাণ সামাদ ট্রেড সেন্টার’ এ ১৭৭৬ বর্গফুটের একটি বাণিজ্যিক ফ্ল্যাট ১ কোটি ৭৮ লাখ টাকায় কেনেন। ডিআইজি মিজান অবৈধভাবে অর্থ উপার্জন করে এভাবে তার স্বজনদের নামে সম্পদ কিনে তার তথ্য গোপন করেন বলে এহাজারে বলা হয়। একই সাথে ডিআইজি মিজানসহ চার আসামির বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দুদক। মামলা করার পর তারা যাতে বিদেশে না যেতে পারেন সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ইমিগ্রেশনের বিশেষ পুলিশ সুপারের বরাবর চিঠি দিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মনজুর মোর্শেদ। এছাড়া, ঘুষ কেলেঙ্কারির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে পুলিশের আলোচিত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান ও দুদকের বরখাস্তকৃত পরিচালক এনামুল বাছিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুদক। তাদেরকে আগামী ১লা জুলাই হাজির হতে বলা হয়েছে।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

MRR Khan

২০১৯-০৬-২৫ ১০:৫১:৩১

মিজানুর রহমান , ডিঅইজি, কি সুন্দর তেল চকচকে চেহারা !!!

আপনার মতামত দিন

৮দিন পর বান্দরবানের সঙ্গে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ চালু

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ট্রাকের ধাক্কায় বাইসাইকেল আরোহী নিহত

চৌদ্দগ্রামে ৩দিনেও সন্ধান মেলেনি অটোরিকশা চালকের

৪ দফা দাবিতে ৭ কলেজের শিক্ষার্থীদের শাহবাগ অবরোধ

আগামীতে বিদ্যুৎচালিত ট্রেন চলবে: প্রধানমন্ত্রী

মার্কিন পার্লামেন্টে ভোটের মাধ্যমে ট্রাম্পের বর্ণবাদী মন্তব্যের নিন্দা

এইচএসসিতে পাসের হার ও জিপিএ-৫ বেড়েছে

মুম্বইয়ে শতবর্ষী ভবনধসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৩

কাজিপুরে রিং বাঁধ ধসে ৩ গ্রাম প্লাবিত, পানিবন্দী ৩০০ পরিবার

৪১ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাস করেননি কেউ

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একরাতে নারীসহ নিহত ৩

একই উত্তর ৯৫৯ পরীক্ষার্থীর খাতায়

এরশাদের সংসদীয় আসন শূন্য ঘোষণা

যেভাবে জানা যাবে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল

‘গান আগের মতো স্থায়িত্ব পাচ্ছে না’

নিরাপত্তা জোরদার আইনের শাসন নিশ্চিতের তাগিদ