আমরা ভুল থেকেই শিখছি: নায়েব

ক্রিকেট বিশ্বকাপ-২০১৯

স্পোর্টস ডেস্ক | ২৪ জুন ২০১৯, সোমবার
শেষ ওভারের থ্রিলারে ভারতের বিপক্ষে ১১ রানের হার দেখে আফগানিস্তান। এমন হারে হতাশ হলেও দলের মন ভাঙেনি বলে জানিয়েছেন আফগান অধিনায়ক গুলবাদিন নায়েবের। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, ‘আমরা দুঃখিত, কারণ ভারতের মতো দলকে হারানোর সুযোগ পেয়েছিলাম। বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে ভারতের সঙ্গে এমন পারফরমেন্স, এটা আমাদের বড় অর্জন। একটা সময় মনে হচ্ছিল ম্যাচটা আমরাই জিতবে। আজ (শনিবার) আমরা একটা সুযোগ হারালাম। ভারতের মতো সেরা দলকে হারানোর সুযোগ হাতছাড়া করলাম। আমরা ভুল থেকেই শিখছি’
টানা ছয় হারে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেছে আফগানিস্তান।
এখন পর্যন্ত আফগানদের ঝুলিতে কোনো পয়েন্ট নেই। আজ বিশ্বকাপে নিজেদের সপ্তম ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামবে আফগানিস্তান। এ ছাড়াও বাকি দুই ম্যাচে খেলবে পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। এবারের বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৭ উইকেটে হার দেখে। পরে টানা ছয় ম্যাচে হার দেখে আফগানরা। এ নিয়ে নায়েব বলেন, ‘আমাদের প্রথম চার ম্যাচে আমরা খুব বাজেভাবে হেরেছি। পরে ইংল্যান্ড ও ভারতের সঙ্গে হারলাম। তারা এবারের আসরে ফেভারিট। কিন্তু আমি মনে করে আমরা দিনে দিনে উন্নতি করছি। আমরা ভুল থেকেই শিখছি।’
ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে নায়েব বলেন, ‘একটা সময় মনে হচ্ছিল আমরা ভারতকে হারিয়ে দিবো। ভারত আমার প্রিয় দল, কোহলি আমার প্রিয় ক্রিকেটার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আমরা সুযোগটা হাতছাড়া করলাম।’
ভারতের বিপক্ষে আফগানদের হয়ে সর্বোচ্চ ৫২ রানের ইনিংস খেলেন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবী। কিন্তু তাতেও শেষ পর্যন্ত জয় তুলে নিতে পারেননি নবী। তবে ম্যাচ শেষে নবীর প্রশংসা করে নায়েব বলেন, ‘আজ (শনিবার) নবী তার সামর্থ্য দেখিয়েছে। কেন সে আফগানিস্তানের সেরা ক্রিকেটার এবং বিশ্বেরও। আসলে আমাদের পরিকল্পনা ছিল আমরা ম্যাচের শেষের পাঁচ ওভার পর্যন্ত খেলবো। নবী পরিকল্পনা অনুযায়ী ব্যাটিং করেছে।’






এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ওয়াশিংটনে ইমরান খান যা বললেন

ট্যাংকার জব্দ: ইরান-বৃটেন উত্তেজনা অব্যাহত

‘টিভি চ্যানেলগুলো নাচের শিল্পীদের যথাযথ মূল্যায়ন করে না’

বানভাসি মানুষের দুর্ভোগ বাড়ছে

নৈরাজ্য

১৯ জনকে গণপিটুনি নিহত ৩

মার্কিন দূতাবাসের দুরভিসন্ধি

মিন্নির জামিন মেলেনি

পুঁজিবাজারে একদিনেই ৫ হাজার কোটি টাকার মূলধন হাওয়া

মশায় অতিষ্ঠ মানুষ ঘরে ঘরে ডেঙ্গু আতঙ্ক

অর্থনৈতিক কূটনীতির ওপর গুরুত্ব দিতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলনে অচল ঢাবি

যে কারণে সিলেটে মহিলা কাউন্সিলর লাকীর ওপর হামলা

৬ ঘণ্টা বিদ্যুৎ ও পানিবিহীন শাহজালাল বিমানবন্দর

সাত দিনের মধ্যে প্রথম কিস্তি পরিশোধের নির্দেশ

এ যেন খোঁড়াখুঁড়ির নগরী