প্রোটিয়াদের বিদায়, সেমির আশায় থাকলো পাকিস্তান

ক্রিকেট বিশ্বকাপ-২০১৯

বিশ্বকাপ ডেস্ক | ২৩ জুন ২০১৯, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:০৩
টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়নি। ব্যাটই করেছে। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে দুর্দান্ত ব্যাটিং সরফরাজ বাহিনীর। প্রোটিয়াদের ছুঁড়ে দেয়া লক্ষ্যমাত্রাও ছিল বেশ বড়। যা প্রোটিয়াদের বিশ্বকাপ মিশন থেকে ছিটকে পড়তে যথেষ্টই ছিল। পাকিস্তানের দেয়া লক্ষ্যে পৌছাতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। বিশ্বকাপের সেমিতে ওঠাও হলো না তাদের। পাকিস্তানের কাছে ৪৯ রানে হেরে বিদায় নিলো প্রোটিয়ারা।
অন্যদিকে বিশ্বকাপে সেমিতে ওঠার ক্ষীণ আশা বাঁচিয়ে রেখেছে সরফরাজের দল।

আসরের ৩০তম ম্যাচে টসে জিতে প্রথম ব্যাট করে ৩০৮ রান করে পাকিস্তান। ৩০৯ রানের লক্ষ্যে শুরুতেই উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে ফেরেন হাশিম আমলা। দলীয় ৪ আর ব্যাক্তিগত ২ রানে তাকে আউট করেন পেসার মোহাম্মদ আমির। এরপর ডি ককের উইকেট পান শাদাব খান। ক্যাট দেন ইমাম উল হকের হাতে। আউট হবার আগে করেন ৪৭ রান। অর্ধশত রান করা ডু প্লেসিও পথ ধরেন সাজঘরের। এই পথের পথিক হলেন ৭ রানে আউট হওয়া মার্করামও। ৩৫ ওভারের মধ্যেই প্রথম সারির চার উইকেট নেই প্রোটিয়াদের। এরপর ডেভিড মিলার, ডুসেন, মরিস কেউই দলের হাল ধরতে পারেননি। ৯ উইকেট হারিয়ে ২৫৯ রান করে ৫০ ওভার শেষ করে দক্ষিণ আফ্রিকা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ডুপ্লেসি করেন ৬৩ রার।

পাকিস্তানের পক্ষে বোলিংয়ে দুর্দান্ত পারফরম করেছেন ওহাব রিয়াজ ও সাদাব খান। তারা দুজনই প্রোটিয়াদের তিনটি করে উইকেট দখল করেন। এছাড়া বিশ্বকাপের সেরা বোলার মোহাম্মদ আমিরও পেয়েছেন দুটি উইকেট।

এর আগে হারিস সোহেল ও বাবর আজমের দুই অর্ধশতকে ভর করে দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানদের জন্য ৩০৯ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছুঁড়ে দেয় তারা। প্রোটিয়া বোলারদের ঢিলেঢালা বোলিংয়ে এই স্কোর হয়তো আরো বেশি হতেও পারতো। তবে শেষ পাঁচ ওভারে মাত্র ৪২ রান আসায় পাকিস্তানের স্কোর বোর্ড বেশি দীর্ঘ হয়নি।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে প্রথম দশ ওভারই রানের চাকা সচল রাখেন দুই পাকিস্তানি ওপেনার ফখর জামান ও ইমামুল হক। দুজনের ব্যাট থেকেই আসে ৮১ রান। কিন্তু হঠাৎ ইমরান তাহিরের বলে দ্রুত দুজন সাজঘরে ফেরেন। এসময় রানের চাকায় কিছুটা ধীরগতি চলে আসে। অবশ্য ফখর-ইমামের বিদায়ের পর হাল ধরেন হাফিজ-বাবর। ২০ রান করা হাফিজও ফেরেন সাজঘরে। এরপর অবশ্য ছন্দে ফেরেন পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানরা। গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে বাবর আজম ৬৯ রানের একটি ইনিংস খেলে দলকে বড় সংগ্রহের পথে এগিয়ে নেন। তবে এই ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর পাকিস্তানের আরেক কা-ারি বনে যান হারিস সোহেল। তার করা ৫৯ বলে ৮৯ রানের এক দুর্দান্ত ইনিংসই মূলত দলকে তিনশ রানের বেশি স্কোর গড়তে সহায়তা করে। এছাড়া পাকিস্তানের পক্ষে ইমামুল হক ৪৪, ফখর জামান ৪৪ ও ইমাদ ২৩ রান করেন।

অন্যদিকে বল হাতে দক্ষিণ আফ্রিকার বোলাররা বেশি আধিপত্য বিস্তার করতে পারেননি লডর্সের মাঠে। প্রোটিয়ারদের পক্ষে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট সংগ্রহ করেন লুঙ্গি এনগিডি। এছাড়া ইমরান তাহির ২, এবং মার্করাম ও ফেলুকায়ো পেয়েছেন ১টি করে উইকেট।

পাকিস্তান একাদশ
ইমাম-উল-হক, ফখর জামান, বাবর আজম, মোহাম্মদ হাফিজ, হারিস সোহেল, সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), ইমাদ ওয়াসিম, শাদাব খান, ওহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ আমির ও শাহীন আফ্রিদী।

দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ
কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), হাশিম আমলা, ফাফ ডু প্লেসিস (অধিনায়ক), এইডেন মার্করাম, রাসি ফন ডার ডুসেন, ডেভিড মিলার, আন্দিলে ফেলুকায়ো, ক্রিস মরিস, কাগিসো রাবাদা, লুঙ্গি এনগিডি ও ইমরান তাহির।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রংপুরেই এরশাদের সমাধি

লক্ষাধিক বিও অ্যাকাউন্ট বন্ধ

যে কারণে পুঁজিবাজারে পতন থামছে না

মিন্নি গ্রেপ্তার

হাসপাতালে হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের ভিড়

ছুরি নিয়ে কীভাবে গেল তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে

সব আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানো হবে

ঘাতকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি, মামলা ডিবিতে

উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে উপজেলা পর্যায়ে কারিগরি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হচ্ছে

বাসর হলো না নবদম্পতির

১১ কোম্পানির দুধে সিসা ও ক্যাডমিয়াম

চীনা ডেমু ট্রেন আর কেনা হবে না

বিচারকদের নিরাপত্তা চেয়ে রিট

আসাদকে পাল্টা জবাব আরিফের

৩ মাস পর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু

বাঁচানো গেল না সার্জেন্ট কিবরিয়াকে