দুর্নীতির প্রতিবাদে বালিশ বিক্ষোভ

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ মে ২০১৯, সোমবার, ১:২৯ | সর্বশেষ আপডেট: ২:৪৩
রূপপুর পারমাণবিক বিদুৎকেন্দ্রের দুর্নীতি নিয়ে বালিশ হাতে করে অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছে   ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও’ নামের একটি সংগঠন। আজ সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ প্রতিবাদী মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। সংগঠনটির সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন বলেন, উন্নয়নের অন্তরালে লুটপাটের মহাউৎসব চলছে। তারই জঘন্য উদাহরণ রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে দুর্নীতি। ইতিহাসে এমন মহা দুর্নীতি কেউ করেছি কিনা সন্দেহ।

রিপন বলেন, উন্নয়নের অন্তরালে মহালুটপাটে মহাব্যস্ত মহাজোট সরকার। আমি নতুন প্রজন্মের একজন রাজনীতিক কর্মী হিসেবে যখন দেখি মেগা প্রজেক্টে মহা লুটপাটের উৎসব চলছে তখন আমি হতাশ হই।

তিনি বলেন, ইতিহাসে যদি লক্ষ্য করি, ১৯৭১ সালে বৈষম্য দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ হয়েছিল। লক্ষ্য ছিল মানুষের অধিকার থাকবে, ভোটের অধিকার থাকবে, গণতন্ত্র থাকবে, হবে একটি সুন্দর বাংলাদেশ। কিন্তু সব কিছুই আজ বনবাসে গিয়েছে।
মানুষ কথা বলতে পারছে না, ভোট দিতে পারছে না। এ সুযোগ নিয়ে মহালুটপাটে মেতে উঠেছে সরকার। মানুষের ঘৃনা তাদের চোখে পড়ে না।

রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে যখন দেখি বুয়ার বেতন, গাড়ী চালকের বেতন, প্রকল্প পরিচালকের বেতন, সর্বশেষ বালিশের দাম ও তোলার দাম আকাশ চুম্বি, তখন জাতি হিসেবে আমরা লজ্জিত।

যখন দেখি কৃষক ধানের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে ধানক্ষেতে আগুন দেয়, বিশ্বজিতকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার পর বিচার হয় না, যখন ফেলানির লাশ কাটা তারে ঝুলে থাকে। বিচার কার কাছে চাইবো কূল পাই না।

বাংলাদেশ গণঐক্য সভাপতি আরমান হোসেন পলাশ বলেন, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুত কেন্দ্রে যে হরিলুট তা ইতিহাসে সেরা। দুর্নীতির কালো মেঘ বাংলাদেশকে ঘিরে ফেলেছে। একইসঙ্গে সোচ্চার প্রতিবাদি হতে হবে, এই মহামারির বিরুদ্ধে। দেশে দুর্নীতির সাথে বাড়ছে বেকারের সংখ্যা, কৃষকের হাহাকার।
বাংলাদেশ গণঐক্য সভাপতি আরমান হোসেন পলাশের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম, জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস ফেডারেশনের সভাপতি বাহারানে সুলতান বাহার, জাতীয় বিপ্লবী পার্টির আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ, গণঐক্যের প্রচার সম্পাদক জাহাঙ্গির আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

md. shahadat

২০১৯-০৫-২২ ১৬:২৯:১২

তদন্ত করলে প্রতিটি সেকটরে প্রচুর দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া যাবে!!!

Md Harun al Rashid

২০১৯-০৫-২০ ১৪:৩৮:৪১

প্রিয় মহোদয়, এক সময় জেনে ছিলাম আলপিনকে Pointed Steel Bar নাম দিয়ে প্রতিটি আলপিনের জন্য ৫০০০/টাকা মূল্য ধরে সরকারি অফিসে সরবরাহ হয়ে ছিল। এবার তা হলে Anti Radiation Mega Pillow হয়ে থাকবে যাকে প্রয়োজনে তদন্তের তেজক্রীয়তা ঠেকাতে কাজে লাগাবে।

Muhammad Talut

২০১৯-০৫-২০ ১৪:২৮:৩১

একটা ভাল মানের বালিশের দাম কিন্তু ৫০০০-৬০০০ টাকার মধ্যেই। আর সরকার চায় ভাল জিনিস কিনতে।

আপনার মতামত দিন