নায্যমূল্যে কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনতে ডিসিকে মাশরাফির নির্দেশ

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ২০ মে ২০১৯, সোমবার, ১:১৮ | সর্বশেষ আপডেট: ১:২১
ধানের নায্যমূল্য নিশ্চিত করতে ডিসিকে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনার নির্দেশ দিয়েছেন নড়াইল-২ আসনের এমপি মাশরাফি বিন মুর্তজা। বাংলদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক ত্রিদেশীয় সিরিজের শিরোপা জিতে দেশে ফিরেছেন। আগামী বুধবার লন্ডনের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়বেন তিনি।

দেশে ফিরে তিনি জানতে পারেন কৃষকদের ধানের কম মূল্যের কথা। তাদের দুঃখ-দুর্দশার কথা জানতে পেরে রোববার রাতে ফোন দেন নড়াইল জেলা প্রশাসককে।  এ সময় তিনি কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয়ের নির্দেশ দেন ডিসিকে।

এর আগে গত শনিবার দেশে ফিরে রাতেই জানতে পারেন নিজ এলাকার কৃষকরা ধানের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এত কম দামে কৃষকদের ধান বিক্রি করতে হচ্ছে যে, তাদের উৎপাদন খরচও উঠছে না। যেখানে এক মণ ধান সরকার ক্রয় করছে ১ হাজার ৪০ টাকায়, সেখানে নড়াইলের হাটবাজারে কৃষকদের ধান বিক্রি করতে হচ্ছে সাড়ে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকায়। বিষয়টি জানার পর রোববার রাত ১০টার দিকে সংসদ সদস্য মাশরাফি জেলা প্রশাসক আনজুমান আরাকে ফোন করে এ বিষয়ে কথা বলেন।

কৃষকদের বাঁচাতে উদ্যোগ নিতে বলেন।
সরাসরি যাতে কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা হয়, সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। মাশরাফি বলেন, কোনো সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ধান ক্রয় করা হচ্ছে, এমন প্রমাণ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা মাশরাফির ফোনের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরাও চাই কৃষক যাতে তাদের কষ্টে উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য পায়। এ জন্য সবার সহযোগিতা কামনা করছি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

সাইফুল ইসলাম সরকার

২০১৯-০৫-২১ ০২:৫৮:০১

অবশ্যই কৃষকদের বাঁচাতে এগিয়ে আসতে হবে সরকারের।

Kazi

২০১৯-০৫-২০ ২০:১৪:২৭

Is an MP authorized to order DC to buy rice at fair price ( production costs). Where the fund will come from ? Is it not a decision to be taken by ministry of agriculture and will release fund by ministry of finance to do so ?

রিপন

২০১৯-০৫-২১ ০০:২১:৫৫

হাসবো, না কাঁদবো! কিচ্ছুটি না বলে চুপটি করে বসে ছিলাম এদ্দিন, দেখি হম্বিতম্বি নির্দেশ দেনেওয়ালারা কী করে! নির্দেশটি যেখান থেকে আসার কথা, এই এত এত দিন গড়িয়ে গেল, সেখান থেকে কোন নির্দেশই এল না ডিসিদের বরাবরে, দেখেশুনে মনে হয়, কৃষক মরে গেলেও যাক, ঊন নয়নের কোন ক্ষতিবৃদ্ধি নেই তাতে, আর এখন মাঠে বহু ধান পুড়ে যাবার পর নির্দেশটি এল কি-না এমন একজনের কাছ থেকে .... থাক্, আর কিছু বলতে গেলে ক্ষেদ-ক্রোধ বড্ডো বিশ্রীভাবে বেরিয়ে পড়বে। পুড়ছে মাঠ, পুড়ছে ধান, দধীচির চেয়েও মহান সাধকের স্বপ্ন পুড়ছে, ঊন নয়ুনে জাতির কপালটাই পুড়ছে প্রকারান্তরে, ক'দিন পর মন্বন্তরের উল্টোরথে যাত্রা শুরু হবে - এতসব বিশ্রীর মাঝে আর অধিক কিছু কুশ্রী যোগ করার কোন আবশ্যকতা আছে কি? নিজের আগুনেই পুড়ে মরবে দুর্ভাগা কপাল পোড়া নির্বিকার মহাপাপীর দল! মরুক গে! এরা বেঁচে থাকলেও যে জগতের কোন কল্যাণ দেখি নে!

মোহাম্মদ হারুন আল রশ

২০১৯-০৫-২০ ১৪:৫৯:১৯

প্রিয় মহোদয়, তা হলে সকল মাননীয় সংসদ সদস্যগন আমাদের নবীন এই এমপি সাহেবের মত স্ব স্ব ডি সি সাহেবদের নির্দেশ দিলে আপাতত চাষীরা বেঁচে যেত। আমাদের অনেক মাসরাফী চাই।

Nil

২০১৯-০৫-২০ ০১:৫৫:২১

Ei rokom order aage keho dey ni. Valo manusher ei porichoy.

আপনার মতামত দিন