খালেদার মামলায় নথি তলব

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১ মে ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৪৩
জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৭ বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছে হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ওই মামলায় নিম্ন আদালতের নথি তলব করেছেন আদালত। আগামী দুই মাসের মধ্যে নথি উচ্চ আদালতে প্রেরণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে এই মামলায় আদালত খালেদা জিয়াকে জামিন দেননি। গতকাল বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। এছাড়া ওই মামলায় বিচারিক আদালতে দেয়া জরিমানার আদেশ স্থগিত করে করা হয়েছে। সম্পত্তি জব্দের আদেশে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতেও বলেছেন আদালত। সেই সঙ্গে জামিন চেয়ে খালেদার করা আবেদনটি নথিভুক্ত করেছেন হাইকোর্ট।
এ সময় আদালত মামলার নথি আসার পর জামিনের বিষয়টি দেখা হবে বলে মন্তব্য করেন। শুনানিকালে আদালত খালেদার আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, অন্য একটি মামলায় বিচারিক আদালতের রায়ে তাঁর (খালেদা জিয়ার) পাঁচ বছরের সাজা হয়েছিল। উচ্চ আদালতে এ সাজা বেড়েছে। ওই মামলায় জামিন না হলে তিনি মুক্তি পাবেন না। তাই বিষয়টি জরুরি দেখছি না। নথি আসুক, তখন জামিনের আবেদনটি দেখা হবে।

এর আগে গত ২৩শে এপ্রিল বিষয়টি আদালতে উপস্থাপন করলে হাইকোর্টের একই বেঞ্চ গতকাল আপিলের গ্রহণযোগ্যতার ওপর শুনানির জন্য দিন ধার্য করেছিলেন। এর ধারাবাহিকতায় বিষয়টি শুনানির জন্য গতকাল কার্যতালিকায় ওঠে।

এদিন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। দুদকের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন খুরশীদ আলম। অপরদিকে আসামি পক্ষে আইনজীবী ছিলেন এডভোকেট জয়নুল আবেদীন।

এ সময় আদালতে খালেদার পক্ষে আরও ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার জমির উদ্দীন সরকার, খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, এ জে মোহাম্মদ আলী, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বলেন, খালেদা জিয়ার জামিন শুনানিতে বিএনপির আইনজীবীরা আবেদনময়ী কথাবার্তা বলেছেন। তিনি আরো বলেন, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাত বছরের সাজা ও অর্থদণ্ডের রায়ের বিরুদ্ধে শুনানিতে বাগবিতণ্ডার কিছু হয়নি। তারা আদালতে রাজনৈতিক মামলা বলতে চেয়েছিল। তারা বলছিল উনি (খালেদা জিয়া) পলিটিক্যাল লিডার, পলিটিক্যাল ভিকটিমাইজ এসব কিছু আবেদনময়ী কথাবার্তা বলেছেন। জামিনের আবেদনের বিষয়ে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, বিএনপির ৫ জন এই সংসদে যোগ দিয়েছেন। কী জন্য যোগ দিয়েছেন তা আমার জানা নেই। তবে অনেকের মতো আমারও মনে হয় ম্যাডামের জামিনের জন্যই তারা সংসদে যোগ দিয়েছেন। সেজন্য ভেবেছিলাম আজ (গতকাল) ম্যাডামকে আদালত জামিন দেবেন। কিন্তু কেন দিলনা , এ ব্যাপারে আমি নিজেও বিস্মিত।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বেনাপোলে বাসচাপায় ব্যবসায়ী নিহত

টীকার ওপর সবচেয়ে বেশি আস্থা বাংলাদেশ ও রোয়ান্ডার

শাহবাজপুরের ক্ষতিগ্রস্থ সেতুর সংস্কার শুরু হয়নি

আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি রানার জামিন

জন্মুদিনে রাহুলকে শুভেচ্ছা মোদির

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হলেন টুকু ও সেলিমা

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫৯০ কোটি টাকা দান করলেন মার্কিন ধনকুবের

বরিশালে রাতের আধারে যুবককে কোপালো অস্ত্রধারীরা

বাঙালী শ্রমিকদের হামলায় চীনা শ্রমিক নিহত

বায়তুল মোকাররম মসজিদ মার্কেটে আগুন

প্রেমের টানে জার্মান যুবতী বাংলাদেশে, ইসলাম গ্রহণ!

হোসেনপুরে চয়ন হত্যা মামলায় ৩ জনের ফাঁসি

মাদারীপুরের কলেজছাত্র হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

দিনে ৩৭০০০ মানুষ বাস্তুচ্যুত হচ্ছেন বিশ্বে

হত্যামিশনে গিয়ে গণপিটুনিতে নিহত, বোমা বিস্ফোরণে আহত ২

রাজধানীতে ছুরিকাঘাতে মুদি ব্যবসায়ীর মৃত্যু