শ্রীলঙ্কায় হামলাকারীরা সুশিক্ষিত, মধ্যবিত্ত পরিবারের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২৪ এপ্রিল ২০১৯, বুধবার
শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ বোমা হামলাকারীদের একজন পড়াশোনা করেছে বৃটেন ও অস্ট্রেলিয়ায়। এ কথা বলেছেন দেশটির উপ প্রতিরক্ষামন্ত্রী রুয়ান বিজেওয়ার্ধনে। হামলাকারীদের বেশির ভাগই সুশিক্ষিত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের। এর মধ্যে একজন নারীও ছিল। তবে তারা কেউ বিদেশী নয়। ওদিকে শ্রীলঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্রের দূত আরো সন্ত্রাসী হামলার ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সতর্ক করেছেন। রোববারের ওই হামলার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত পুলিশ আটক করেছে ৬০ জনকে। শ্রীলঙ্কার পুলিশ ও সরকারি সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে অনলাইন বিবিসি।

বুধবার সংবাদ সম্মেলন করেছেন রুয়ান বিজেওয়ার্ধনে। তিনি বলেছেন, আমরা বিশ্বাস করছি আত্মঘাতী হামলাকারীদের একজন পড়াশোনা করেছে বৃটেনে। তারপর সে পোস্টগ্রাজুয়েট করেছে অস্ট্রেলিয়ায়। এরপর শ্রীলঙ্কায় ফিরে থিতু হয়েছিল। তিনিই জানিয়েছেন হামলাকারীদের বেশির ভাগই সুশিক্ষিত, মধ্য ও উচ্চ মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। তারা আর্থিকভাবে সচ্ছল। তাদের পরিবারও আর্থিকভাবে স্বচ্ছল।

পুলিশ সূত্র বলেছে, হামলাকারীদের দু’জন ভাই। তারা কলম্বোর মশলা ব্যবসায়ী এক সম্পদশালীর সন্তান। তারাই সাংগ্রি-লা এবং সিনামন গ্রান্ড হোটেলে বোমা হামলা করেছে। আইএস হামলার দায় স্বীকার করলেও কর্তৃপক্ষ স্থানীয়দের সম্ভাব্য যোগসূত্র থাকার বিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছে। আইএসের সঙ্গে এসব আত্মঘাতীর কোনো সম্পর্ক আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে কর্তৃপক্ষ। হামলার জন্য শ্রীলঙ্কা সরকার দায়ী করেছে স্থানীয় ইসলামপন্থি গ্রুপ ন্যাশনাল তাওহিদ জামায়াতকে (এনটিজে)। তবে প্রধানমন্ত্রী রণিল বিক্রমাসিংহে মনে করেন না শুধু স্থানীয়রা এই হামলা করেছে। তিনি বলেছেন, হামলাকারীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে সমন্বয় করা হয়েছে, যা এর আগে আমরা কখনো দেখি নি।

আরও হামলা প্রতিরোধের উপায় হিসেবে এখনও বহাল রয়েছে জরুরি অবস্থা। বিক্রমাসিংহে বলেছেন, রোববার চতুর্থ একটি হোটেলে বোমা হামলা পরিকল্পনা ভন্ডুল করা হয়েছে। তবে আরো বিস্ফোরক নিয়ে সেখানে সন্ত্রাসীরা থাকতে পারে বলে তিনি মনে করেন। এ অবস্থায় শ্রীলঙ্কায় উত্তেজনা রয়েছে। পুলিশ সন্দেহভাজনদের দিকে দৃষ্টি রেখেছে। এ পরিস্থিতিতে শ্রীলঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্রের দূত অ্যালেইনা টেপলিটজ বলেছেন, কোনো সতর্কতা না দিয়েই হামলা করে বসতে পারে সন্ত্রাসীরা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

ওবাইদুল

২০১৯-০৪-২৬ ২০:৪৬:৫২

এই সব সন্ত্রাসীদেরকে কে মাইন্ড কন্ট্রোল করছে তা খুঁজে বেড় করা উচিৎ। যারা শরীরে বোমা বেঁধে বিস্ফোরণ ঘটাচ্ছে, এরা আর যাই হোক নিজস্ব মনের নিয়ন্ত্রনে থেকে তা করছে বলে মনে হয় না । মাইন্ড কন্ট্রোল করা নিয়ে উন্নত বিশ্বে এমনকি হালের কিছু নতুন পরাশক্তিও গবেষণা করে যাচ্ছে ।

আপনার মতামত দিন

তেরেসা মে’র চোখে তখন পানি

২৮শে মে শপথ নিতে পারেন নরেন্দ্র মোদি

সরকার এত অমানবিক নয়

খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার

ধারণা পাল্টে দিতে চায় অভিজ্ঞ বাংলাদেশ

গান্ধী পরিবারের রাজনীতির সমাপ্তি?

দোহার-নবাবগঞ্জকে আধুনিক উপজেলায় পরিণত করবো

তৃতীয় দিনেও ট্রেনের টিকিট পেতে ভোগান্তি

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এলাম

চট্টগ্রামে মাদক নিয়ন্ত্রণে ‘কিশোর গ্যাং’

বাংলাদেশে মানব পাচার রোধে কাজ করছে আইওএম

মোদির সামনে যেসব চ্যালেঞ্জ

জৈন্তাপুরে এখন নয়া ‘ধান্ধা’ চোরাকারবার

ড্যাবের নির্বাচনে ডা. হারুন-সালাম প্যানেলের নিরঙ্কুশ জয়

ছয় শতাধিক কারখানায় বেতন বোনাস নিয়ে সমস্যা

এক সপ্তাহ আগে মোটরসাইকেলটি কিনেছিলেন মেহেদী