ব্যারিস্টার আমিনুল হকের দাফন আজ

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী থেকে | ২৩ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:২২
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হক ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন)। গত রোববার   সকাল ১০টার দিকে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৭৬ বছর। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক  মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। এরআগে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতাল থেকে তাঁকে ফেরত পাঠানো হয়। আজ মঙ্গলবার তানোর ও গোদাগাড়ী উপজেলায় নামাজে জানাজা শেষে তাঁকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হবে।

পারিবারিক ও দলীয় সূত্র জানায়, ব্যারিস্টার আমিনুল হক দীর্ঘদিন থেকে উচ্চ রক্তচাপ ও শ্বাসকষ্টসহ কয়েকটি রোগে আক্রান্ত ছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর তিনি সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভর্তি হন। তার অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় সেখান থেকে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। এরপর বৃহস্পতিবার সকালে ব্যারিস্টার হককে বাংলাদেশে এনে ঢাকার ইউনাইটেড হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়।

তানোর উপজেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মিজানুর রহমান মিজান মানবজমিনকে জানান, ব্যারিস্টার আমিনুল হকের মরদেহ ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালের হিমাগারে রয়েছে। সকাল ১০টার দিকে তাঁর মরদেহ রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা হবে। প্রথমে বাদ জোহর তানোর উপজেলার ডাকবাংলাতে নামাজে জানাজা এবং বিকেল ৫টায় গোদাগাড়ী উপজেলার ডিগ্রি কলেজের পার্শ্বে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। নামাজে জানাজা শেষে তাঁকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হবে। এরআগে সোমবার ঢাকায় ইউনাইটেড হাসপাতাল, হাইকোর্ট, সংসদ ভবন এবং বিএনপি পার্টির অফিসের সামনে মোট ৪টি নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।  প্রসঙ্গত, ব্যারিস্টার আমিনুল হক রাজশাহী-১ আসন থেকে বিএনপির মনোনয়নে তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯১ থেকে ১৯৯৬ এবং ২০০১ থেকে ২০০৬ সালে বিএনপি  নেতৃত্বাধীন সরকারের সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী ছিলেন। সর্বশেষ বিএনপি সরকারের ডাক ও  টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ছিলেন তিনি

সুপ্রিম কোর্ট চত্বরে আমিনুল হকের প্রথম জানাজা

এদিকে, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার  মো. আমিনুল হকের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দুপুর ২টার দিকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সামনের চত্বরে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে প্রধান বিচারপতি মো. সৈয়দ মাহমুদ  হোসেন ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। জানাজায় অংশ নেন প্রধান বিচারপতি মো সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিরা।

এ ছাড়াও সাবেক প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক, সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার বিচারপতি আব্দুর রউফ, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, আব্দুল মতিন খসরু, শফিক আহমেদ, অ্যাটর্নি  জেনারেল মাহবুবে আলম, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ এফ হাসান আরিফ, এ জে মোহাম্মদ আলী, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল বাসেত মজুমদার ও অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এ এম আমিন উদ্দিন, সম্পাদক এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন, সাবেক সভাপতি ব্যারিস্টার এম. আমির-উল-ইসলাম, রোকন উদ্দিন মাহমুদ ও অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীনসহ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবীরা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

তেরেসা মে’র চোখে তখন পানি

২৮শে মে শপথ নিতে পারেন নরেন্দ্র মোদি

সরকার এত অমানবিক নয়

খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার

ধারণা পাল্টে দিতে চায় অভিজ্ঞ বাংলাদেশ

গান্ধী পরিবারের রাজনীতির সমাপ্তি?

দোহার-নবাবগঞ্জকে আধুনিক উপজেলায় পরিণত করবো

তৃতীয় দিনেও ট্রেনের টিকিট পেতে ভোগান্তি

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এলাম

চট্টগ্রামে মাদক নিয়ন্ত্রণে ‘কিশোর গ্যাং’

বাংলাদেশে মানব পাচার রোধে কাজ করছে আইওএম

মোদির সামনে যেসব চ্যালেঞ্জ

জৈন্তাপুরে এখন নয়া ‘ধান্ধা’ চোরাকারবার

ড্যাবের নির্বাচনে ডা. হারুন-সালাম প্যানেলের নিরঙ্কুশ জয়

ছয় শতাধিক কারখানায় বেতন বোনাস নিয়ে সমস্যা

এক সপ্তাহ আগে মোটরসাইকেলটি কিনেছিলেন মেহেদী