প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনা

মৃতদেহের স্তূপ, রক্ত আর রক্ত, দিশাহারা মানুষ

এক্সক্লুসিভ

মানবজমিন ডেস্ক | ২৩ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:২৬
চারদিকে শুধু রক্ত আর রক্ত। এখানে ওখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে মানুষের ছিন্নভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ। এলোমেলো পড়ে আছে মৃতদেহ। একটি দুটি নয়। সারি সারি মৃতদেহ। তার মধ্য দিয়ে যারা বেঁচে আছেন, জীবন নিয়ে দিশাহারা হয়ে ছুটছিলেন তারা। কারো হাত উড়ে গেছে। কারো শরীর থেকে রক্ত ঝরছে। শার্টে রক্ত। এ এক ভয়াবহ অবস্থা। শ্রীলঙ্কার সাংগ্রি-লা হোটেলে অবস্থান করা ইমপিরিয়াল কলেজ লন্ডন বিজনেস স্কুলের প্রফেসর কিয়েরেন আরাসারাত্নম সেখানে চালানো সন্ত্রাসী হামলার বর্ণনা দিয়েছেন এভাবেই। তিনি বিবিসিকে বলেছেন, হামলার সঙ্গে সঙ্গে হোটেল সাংগ্রি-লায় সবার মধ্যে ভয়াবহ এক আতঙ্ক দেখা দেয়। বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে সব কিছু। আমি ডানদিকে রুমের দিকে তাকালাম। দেখলাম সর্বত্রই রক্ত আর রক্ত। সবাই দৌড়াচ্ছে। সেসব মানুষ জানেন না কি ঘটছে। অনেকের শার্টে রক্ত। তাদের কেউ একজন একটি বালিকাকে নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সে উঠাচ্ছেন। দেয়াল আর মেঝেতে তখন রক্তের বন্যা। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কায় তামিলদের সঙ্গে গৃহযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর এটাই সেখানে সবচেয়ে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা। এর ফলে দ্বীপরাষ্ট্রটিতে সেই সময়ের ভীতি আবার ফিরেছে। রোববারের ওই হামলায় নিহতের সংখ্যা কমপক্ষে ২৯০-এ দাঁড়িয়েছে। প্রায় ৫০০ আহত ব্যক্তির মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ফলে নিহতের সংখ্যা আরো বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। নিহতের মধ্যে ৫জন বৃটিশ রয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছেন অনিতা নিকোলসন (৪২) ও তার ১১ বছর বয়সী ছেলে অ্যালেক্স। তারা সাংগ্রি-লা হোটেলে সকালে যখন নাস্তা করছিলেন তখনই ওই হামলা হয়। অনিতার লিঙ্কডইন প্রোফাইল অনুযায়ী, তিনি সিঙ্গাপুরে খনি ও ধাতব কোম্পানি অ্যাঙ্গলো আমিরাকানে ম্যানেজিং কাউন্সেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।
ওই হামলায় আটকা পড়েছিলেন বেশ কিছু বৃটিশ নাগরিক। তারা ঘটনার ভয়াবহতা সম্পর্কে বর্ণনা দিয়েছেন। তার মধ্যে বৃটেনের সারের জাতীয় স্বাস্থ্য স্কিমের ডাক্তার জুলিয়ান ইমানুয়েল অন্যতম। তিনি ছিলেন সিনামন গ্রান্ড হোটেলে। তিনি অনলাইন দ্য সানকে বলেছেন, এত ভয়াবহতা আমি জীবনে কখনোই দেখিনি। আমার স্ত্রী ও সন্তানরা এটা দেখে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এ দৃশ্য কোনোদিন ভুলবো না। শুধু এই কারণটির জন্য সারা জীবন ইস্টার সানডে’কে স্মরণ করবো আমরা।






এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

তেরেসা মে’র চোখে তখন পানি

২৮শে মে শপথ নিতে পারেন নরেন্দ্র মোদি

সরকার এত অমানবিক নয়

খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার

ধারণা পাল্টে দিতে চায় অভিজ্ঞ বাংলাদেশ

গান্ধী পরিবারের রাজনীতির সমাপ্তি?

দোহার-নবাবগঞ্জকে আধুনিক উপজেলায় পরিণত করবো

তৃতীয় দিনেও ট্রেনের টিকিট পেতে ভোগান্তি

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এলাম

চট্টগ্রামে মাদক নিয়ন্ত্রণে ‘কিশোর গ্যাং’

বাংলাদেশে মানব পাচার রোধে কাজ করছে আইওএম

মোদির সামনে যেসব চ্যালেঞ্জ

জৈন্তাপুরে এখন নয়া ‘ধান্ধা’ চোরাকারবার

ড্যাবের নির্বাচনে ডা. হারুন-সালাম প্যানেলের নিরঙ্কুশ জয়

ছয় শতাধিক কারখানায় বেতন বোনাস নিয়ে সমস্যা

এক সপ্তাহ আগে মোটরসাইকেলটি কিনেছিলেন মেহেদী