সিলেটে ইজতেমা নিয়ে উত্তেজনা

এক্সক্লুসিভ

ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে | ২৩ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:১৬
সিলেটের বদিকোনায় তাবলীগ জামাতের একাংশ সাদপন্থিদের ইজতেমাকে ঘিরে উত্তেজনা তৈরি হচ্ছে। অবিলম্বে এই ইজতেমা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন দেওবন্দি তাবলীগ জামাতের নেতারা। এ দাবি নিয়ে তারা সিলেটের প্রশাসনেরও দ্বারস্থ হয়েছেন। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে গতকাল পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এদিকে- সাদপন্থিদের জেলা ইজতেমার প্রস্তুতি চলছে। শহরতলির দক্ষিণ সুরমার বদিকোনা জামে মসজিদ সংলগ্ন মাঠে জেলা ইজতেমার জন্য প্যান্ডেল তৈরি করা হচ্ছে। সাদপন্থিরা দাবি করেছেন- প্রশাসনের অনুমতি নিয়েই তারা সিলেটে ইজতেমার এই আয়োজন করছেন। আগামী বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া তাবলীগের জেলা ইজতেমা আগামী শনিবার সকালে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে। ঢাকার কাকরাইলের তাবলীগ জামাতের বিভক্তির ঢেউ অনেক আগেই এসে ভর করে সিলেটে। এর কারণ, সিলেটে রয়েছে বিপুল সংখ্যক কওমি মাদরাসার। আর এই কওমি মাদরাসারকেন্দ্রিক এলাকাগুলোতে তাবলীগ জামায়াতের প্রসার বেশি। এ কারনে গত দুই বছর আগে সিলেটের সুনামগঞ্জ বাইপাসে তাবলীগ জামাতের একত্রিত ইজতেমার আয়োজন ব্যাপক সাড়া ফেলেছিল। প্রায় এক বছর আগে কেন্দ্রীয়ভাবে তাবলীগের মধ্যে বিভক্তির কারণে সিলেটেও দুটি পক্ষ হয়ে পড়ে। এর মধ্যে সুয়েজ আফজাল খান নামের সিলেটের এক নেতা তার অনুসারীদের নিয়ে সাদপন্থি বলয়ের পক্ষে অবস্থান নেন। আর কওমি মাদরাসারকেন্দ্রিক নেতারা আলাদা অবস্থান নেন। সিলেটে তাবলীগের মারকাজ হচ্ছে দক্ষিণ সুরমার খোজারখলা জামে মসজিদ। এ মসজিদকে কেন্দ্র করেই চলে জামাতের কার্যক্রম। বিভক্তির পর সুয়েজ আফজাল খান তার অনুসারীদের নিয়ে ওই মসজিদ ত্যাগ করে চলে যান। প্রথমে তারা শহরতলির বরইকান্দি এলাকায় অবস্থান নিতে চাইলে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে ওখান থেকে সরে তারা চলে যান বদিকোনা জামে মসজিদে। সাদপন্থিদের সম্মিলনস্থল হিসেবে এখন বদিকোনা জামে মসজিদকে মনে করা হয়। কয়েক দিন আগে সিলেটের সাদপন্থিরা বদিকোনা জামে মসজিদ সংলগ্ন মাঠে জেলা ইজতেমার ঘোষণা দেন। আর এই ঘোষণায় সিলেটে নতুন করে বিতর্ক দেখা দিয়েছে। ক্ষুব্ধ হয়েছেন দেওবন্দি অনুসারী আলীম-উলামা। তারা এ জেলা ইজতেমার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। জানিয়ে দিয়েছেন- এই জেলা ইজতেমার আয়োজনকে ঘিরে সিলেটে উত্তেজনা সৃষ্টি হচ্ছে। বড় ধরনের দুর্ঘটনারও আশঙ্কা করছেন তারা। রোববার সিলেটের জেলা প্রশাসক ও মহানগর পুলিশ কমিশনারের কাছে দেওবন্দি আলিম-উলামারা সাদপন্থিদের আয়োজন বন্ধ করতে প্রশাসনকে অনুরোধ জানিয়েছেন। স্মারকলিপিতে উলামায়ে কেরাম উল্লেখ করেন- ভারত উপমহাদেশে সুচিত ও দারুল উলুম দেওবন্দের শীর্ষ ওলামাদের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত দ্বীন ইসলামের দাওয়াতি কাফেলা ‘তাবলীগ’ এর মাধ্যমে এর সদস্যরা বিশ্বব্যাপী তাবলীগের মেহনত করে আসছে। বাংলাদেশেও এ নিয়মেই কাফেলার কাজ চলছে। কিন্তু বিগত ৪-৫ বছর থেকে কিছু বিপথগামী লোক মুসলমানদের মধ্যে বিবাদ সৃষ্টি করে এই কাজের কর্তৃত্ব নিজ আয়ত্তে নেয়ার প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তারা বলেন- ‘আমাদের সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বদিকোনায় ওই সকল বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীরা  আগামী ২৫, ২৬ ও ২৭শে এপ্রিল জেলা ইজতেমা আহ্বান করেছে। আমার সিলেটের ওই ইজমেতায় বিশৃঙ্খলার আশংকা করছি। হজরত শাহজালাল (রহ.) ও হজরত শাহপরান (রহ.) সহ আলীম ওলামা ও ধর্মপ্রাণ মানুষের আবাসভূমি হচ্ছে সিলেট। এই ভূমিকে শান্ত রাখতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী সাদপন্থিদের কথিত ইজতেমা বন্ধের জন্য সহযোগিতা কামনা করা হয়। স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন, দরগাহ মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিবুল হক গাছবাড়ি, ভার্থখলা মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মজদুদ্দিন আহমদ, বন্দরবাজার জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা ওলিউর রহমান, খতিব মাওলানা মোস্তাক খান, জাতীয় ইমাম সমিতি সিলেটের সভাপতি হাবিব আহমদ শিহাব, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, সিলেট তাবলীগ জামাতের উপদেষ্টা তৈয়বুর রহমান, নয়াসড়ক জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা শামসুল ইসলাম, পাঠানটুলা জামে মসজিদের ইমাম-খতিব ও জালালাবাদ ইমাম সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা হুসাইন আহমদ, নয়াসড়ক মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা সাইফুল্লাহ, মাওলানা লুৎফুর রহমান, মাওলানা ওবায়দুল্লাহ, মাওলানা শাহিরুজ্জামান, ঝেরঝেরিপাড়া মাদ্রাসার শিক্ষা সচিব মাওলানা হারুনুর রশীদ, ভার্থখলা মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা শামসুদ্দিন মোহাম্মদ ইলিয়াছ প্রমুখ। এদিকে- সাদপন্থি গ্রুপের তাবলীগ জামাতের সিলেটের বর্তমান দায়িত্বশীল ও আমির সুয়েজ আফজাল খান গতকাল মানবজমিনকে জানিয়েছেন- গোটা দেশের ৬৪ জেলায় তাবলীগ জামায়াতের পক্ষ থেকে ইজতেমার আয়োজন করা হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে ২৫ থেকে ২৭শে এপ্রিল পর্যন্ত সিলেটেও আয়োজন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে সিলেটের প্রশাসনের কর্মকর্তাদের চিঠি দেয়া হয়েছে। প্রশাসনও সার্বিক সহযোগিতায় আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি বলেন প্রশাসন আমাদের সহযোগিতা করছে। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে এ জেলা ইজতেমার আয়োজন করে চলেছি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

তেরেসা মে’র চোখে তখন পানি

২৮শে মে শপথ নিতে পারেন নরেন্দ্র মোদি

সরকার এত অমানবিক নয়

খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার

ধারণা পাল্টে দিতে চায় অভিজ্ঞ বাংলাদেশ

গান্ধী পরিবারের রাজনীতির সমাপ্তি?

দোহার-নবাবগঞ্জকে আধুনিক উপজেলায় পরিণত করবো

তৃতীয় দিনেও ট্রেনের টিকিট পেতে ভোগান্তি

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এলাম

চট্টগ্রামে মাদক নিয়ন্ত্রণে ‘কিশোর গ্যাং’

বাংলাদেশে মানব পাচার রোধে কাজ করছে আইওএম

মোদির সামনে যেসব চ্যালেঞ্জ

জৈন্তাপুরে এখন নয়া ‘ধান্ধা’ চোরাকারবার

ড্যাবের নির্বাচনে ডা. হারুন-সালাম প্যানেলের নিরঙ্কুশ জয়

ছয় শতাধিক কারখানায় বেতন বোনাস নিয়ে সমস্যা

এক সপ্তাহ আগে মোটরসাইকেলটি কিনেছিলেন মেহেদী