টিআইবির প্রতিবেদন সিইসির প্রত্যাখ্যান

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ জানুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৭
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। গতকাল আগারগাঁওয়ের নির্বাচনী প্রশিক্ষণ    ইনস্টিটিউটে (ইটিআই) এক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির সমাপনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এমন প্রতিক্রিয়া জানান তিনি। টিআইবির প্রতিবেদন প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, আমি পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করছি। এগুলো ঠিক রিপোর্ট না। গণমাধ্যম থেকে যে তথ্য পেয়েছি তাতে কোথাও এ বিষয়ে কোনো রকমের কোনো অভিযোগ আসেনি।

নির্বাচনে কমিশনের ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ টিআইবির এমন বক্তব্যের বিষয়ে কে এম নূরুল হুদা বলেন, এটা অসৌজন্যমূলক বক্তব্য। লজ্জাজনক এ কথাগুলো বলা ঠিক হয়নি। টিআইবির প্রতিবেদনের বিপরীতে কোনো পদক্ষেপ নিবেন না বলেও এ সময় সাংবাদিকদের জানান সিইসি।
আরেক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, গণমাধ্যম, আমাদের কর্মকর্তা, নির্বাচনী তদন্ত কমিটি, ম্যাজিস্ট্রেটদের কাছ থেকে তথ্য নিয়েছি। এমন হয়নি। টিআইবি যে রকম বলেছে তার সত্যতা নেই। তার আগে আনুষ্ঠানিক বক্তব্যে মার্চে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরশেন (ডিএনসিসি) নির্বাচনের ইঙ্গিত দেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার। ডিএনসিসি’র নির্বাচন নিয়ে আইনি বাধা কেটে যাওয়ায় আগামী মার্চ মাসে নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হতে পারে বলে জানান সিইসি। নির্বাচনের পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে কমিশনের সঙ্গে বসতে হবে। আমরা তাড়াতাড়ি এই নির্বাচন করে ফেলবো।

এদিকে, আগামী মার্চে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা রয়েছে। এতে কোনো সমস্যা হবে কি না জানতে চাইলে সিইসি বলেন, মার্চে শুরু হতে যাওয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের মাঝে ডিএনসিসির ভোটগ্রহণ করা হবে। তবে এ বিষয়ে কমিশনে আরো বিস্তারিত আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে বলেও মত জানান কে এম নূরুল হুদা। তিনি বলেন, এখানে পুনঃতফসিল করা হবে। সবার সঙ্গে আলোচনা করে তাড়াতাড়ি করে ফেলবো।

উপজেলা নির্বাচন এতে কোনো প্রভাব ফেলবে না। ২০১৮ সালের ১৭ ও ১৮ই জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটির নির্বাচনের বিষয়ে স্থগিতাদেশ দেন হাইকোর্ট। ওই বছর ৯ই জানুয়ারি ডিএনসিসি’র মেয়র পদে উপ-নির্বাচন, নতুন ১৮টি ওয়ার্ডের সাধারণ নির্বাচন ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) নতুন ১৮টি ওয়ার্ডের সাধারণ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তফসিল ?অনুযায়ী গত বছরের ১৮ই জানুয়ারি ছিল মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময়। আর ভোটগ্রহণের কথা ছিল ২৬শে ফেব্রুয়ারি। কিন্তু একটি রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে ছয় মাস নির্বাচন স্থগিত রাখতে আদেশ দিয়েছিল দেশের উচ্চ আদালত।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kama

২০১৯-০১-১৬ ২১:৫৭:১৪

যেমন সরকার তেমন তাদের নিযুক্ত নির্বাচন কমিশন।তাদের একই জবাব।

হাবিবুর রহমান

২০১৯-০১-১৭ ০৮:৫৬:১১

পৃথিবীর সবচেয়ে বেহায়া ও নির্লজ্জ্ব বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন

Md. Zamanur Rasheed

২০১৯-০১-১৭ ০৮:৫৩:১৩

নির্বাচনের পর একটি বিদেশি পত্রিকা বলেছিলো, উত্তর কোরিয়ার মতো দেশে এমন নির্বাচন হতে পারে। এটা পৃথিবীর কোনো মানুষই বিশ্বাস করবে না যে, লাখ লাখ ভোটারের মধ্যে সবাই ভোট দিয়েছে এবং সবাই আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়েছে। অন্য দলের প্রার্থীরা একটি ভোটও পাননি, এমনকি নিজের ভোটটিও না। এগুলো কীভাবে সম্ভব?

sm mozibur

২০১৯-০১-১৭ ০৫:২০:২৫

প্রত্যাখান করতে পারেন। তবে আপনাদের কৃত কর্মের জন্য আপনাদের দেশের মানুষ ঘৃনা সাথে সরণ করবে।

জাফর আহমেদ

২০১৯-০১-১৬ ১১:১১:২০

মানুষের বিবেক আজকে কোথায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে তাহার এই কমিশনার কে দেখলে বুঝা যায় ‌

আপনার মতামত দিন

আইএস গার্ল শামিমাকে নিয়ে ঢাকায় চিঠি চালাচালি

অমর একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ

ভারতের নাগরিকত্ব বিল কেন?

থাইল্যান্ডে বাংলাদেশি পরিবার নিখোঁজ

পর্নোগ্রাফির বিরুদ্ধে যুদ্ধ, বাংলাদেশে ২০,০০০ সাইট বন্ধ

পদকজয়ীদের অনুসরণে আগামী প্রজন্ম নিজেদের গড়ে তুলবে: প্রধানমন্ত্রী

বিএনপির আলোচনা সভায় হট্টগোল

নাইকো মামলার শুনানি পেছালো

বইমেলায় কেনাকাটার ধুম

ইমরানের পর মোদিও

সৌদিকে পরমাণু প্রযুক্তি দিচ্ছেন ট্রাম্প!

ফকির আলমগীরের ৬৯তম জন্মদিন আজ

সাংবাদিকদের আদালত কক্ষে প্রবেশ নিশ্চিত করতে হবে- প্রধান বিচারপতি

চতুর্থ ধাপে ১২২ উপজেলায় ভোট ৩১শে মার্চ

প্রেমিকার ছেলের ছুরিকাঘাতে প্রেমিক নিহত

কার্যকর ওয়ান স্টপ সার্ভিস দেখতে চায় ডিসিসিআই