রোহিঙ্গাদের অবস্থার উন্নতি ও নৃশংসতায় দায়ীদের বিচার চায় যুক্তরাষ্ট্র

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:২৬
রোহিঙ্গা শরণার্থী ও মিয়ানমারের সব মানুষের অবস্থার উন্নতি চায় যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে নৃশংসতা চালানোর জন্য যারা দায়ী তাদের বিচার দাবি করে তারা। যুক্তরাষ্ট্র এখনও এমন সব পদক্ষেপের ওপর দৃষ্টি রেখেছে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এবং স্পেশাল ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেছেন যথাক্রমে উপ মুখপাত্র রবার্ট পালাদিনো ও আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক এম্বাসেডর এট লার্জ সামুয়েল ডি ব্রাউনব্যাক। মঙ্গলবার পাকিস্তান, চীন সহ বেশ কতগুলো দেশকে ধর্মীয় স্বাধীনতা লঙ্ঘনের দায়ে কালো তালিকাভুক্ত করে মন্ত্রণালয়। ব্রিফিংয়ে এসব বিষয় উঠে আসে। রবার্ট পালাদিনোর কাছে একজন সাংবাদিক মিয়ানমারের রাখাইন ইস্যু তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালিয়েছে এমন দুটি রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর আমরা ব্রিফিং পেয়েছি।
মিয়ানমারে গণহত্যা চালানো হয়েছে কিনা তা নির্ধারণ করতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কি আরো তদন্ত করবে? আরো রিপোর্ট আছে যে, যেসব রোহিঙ্গা এখনো মিয়ানমারে আছেন তারাও রয়েছেন গণহত্যার হুমকিতে। এক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র কি পদক্ষেপ নিচ্ছে?
এ প্রশ্নের জবাবে রবার্ট পালাদিনো বলেন, মিয়ানমারের রাখাইনে ওই ভয়াবহ নৃশয়সতার বিষয়ে কথা বলেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ওইসব নৃশংসতাকে বলা হয়েছে জাতি নিধন। এখন যুক্তরাষ্ট্র যা করছে তা হলো, রোহিঙ্গা শরণার্থী ও মিয়ানমারের সব মানুষের অবস্থার উন্নতিতে যেসব পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে তার দিকে নজর রাখা। যারা নৃশংসতা চালিয়েছে তাদের বিচারের দিকে নজর দেয়া। আমরা এসব বিষয়েই নজর রাখছি। মিয়ানমারের সংঘাতগুলোর মূল কারণ ও এর দুর্ভোগের বিষয়ে আমরা সহজ করার পথ খুঁজছি। একই সঙ্গে মিয়ানমারে অধিক পরিমাণে মানবিক সহায়তার আহ্বান জানাচ্ছি। ওদিকে প্রায় একই রকম প্রশ্নের উত্তরে সামুয়েল ডি ব্রাউনব্যাক বলেন, মার্কিন প্রশাসন মিয়ানমার পরিস্থিতির বিরুদ্ধে কড়া ভাষায় কথা বলেছে। এমন কথা বলেছেন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স, পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও, জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি ও আমি নিজে। আমি বাংলাদেশে শরণার্থী শিবিরে গিয়েছিলাম। আমরা সম্প্রতি মিয়ানমারের ৫ জন জেনারেলের বিরুদ্ধে এবং দুটি সামরিক ইউনিটের বিরুদ্ধে অবরোধ দিয়েছি। এর আগে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নৃশংসতাকে জাতি নিধন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তাই এ বিষয়টিতে উচ্চ হারে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিনম্র শ্রদ্ধায় বীর শহীদদের স্মরণ

বিপর্যয়ের মুখে তেরেসা মে

অনেক বাস হাওয়া, দুর্ভোগে রাজধানীবাসী

জাপায় কেন এই অস্থিরতা?

অনলাইনে ডলার বিক্রির নামে প্রতারণা

হঠাৎ বেড়েছে গুলির ঘটনা

ওবায়দুল কাদেরকে কেবিনে নেয়া হয়েছে

ডাক বিভাগের ‘নগদ’-এর কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

সিনেটরকে ডিম মারা প্রসঙ্গে যা বললেন ‘ডিম বালক’

মুক্তি কিসে স্বৈরশাসনে নাকি গণতন্ত্রের পুনঃউদ্ভাবনে?

বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ বিশ্বদরবারে প্রতিষ্ঠিত হতো না

৪৮ বছর পরও আমরা এমনটি আশা করিনি

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে আবেগাপ্লুত মাহবুব তালুকদার

বিএনপি নেতিবাচক রাজনীতি না করলে দেশের আরো উন্নতি হতো

খালেদা জিয়াকে মুক্ত করাই বিএনপির অঙ্গীকার

বিনম্র শ্রদ্ধায় সারা দেশে স্বাধীনতা দিবস পালিত