জোটগত নির্বাচনের স্বীকৃতি রোববারের মধ্যে: ইসি সচিব

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১০ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:২২
যেসব দল জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করতে চায়, তাদের তিন দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে আবেদন করতে হবে বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। তিনি বলেন, অনিবন্ধিত কোনো দল নিবন্ধিত কোনো দলের সঙ্গে জোটগতভাবে নির্বাচন করতে চাইলে ইসির কিছু করার থাকবে না। এই বিষয়ে আইনে কোনো ব্যাখ্যা নেই। গতকাল শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিকদের এ কথা জানান ইসি সচিব। পরে জোটগত নির্বাচনের ব্যাপারে তথ্য চেয়ে ৩৯টি রাজনৈতিক দলকে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এতে রোববারের মধ্যে তথ্য দিতে বলা হয়েছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল করেছে ইসি। এই দলের সদস্যরা স্বতন্ত্র বা অন্য দলের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে কি না- জানতে চাইলে হেলালুদ্দীন বলেন, তারা অন্য দলের প্রতীকে বা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চাইলে তাদের আটকানোর মতো আইন বাংলাদেশে নাই। সচিবের বক্তব্যের পরপরই জনসংযোগ শাখা থেকে রোববারের মধ্যে আবেদনের নির্দেশ দিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়।
রোববার থেকে প্রার্থীরা অনলাইনে মনোনয়ন জমা দিতে পারবেন উল্লেখ করেন সচিব। তিনি বলেন, আগামী রোববার থেকে অনলাইনে প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। প্রার্থীরা চাইলে অনলাইন থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহও করতে পারবেন। সচিব জানান, নির্বাচন কমিশন (ইসি) আগামী শুক্রবারের মধ্যে সব ধরনের অবৈধ নির্বাচনী প্রচার উপকরণ অপসারণের নির্দেশ দিয়ে জেলা প্রশাসন, বিভাগীয় কমিশনার এবং সিটি ও পৌর প্রশাসনকে চিঠি দিয়েছে।

মাঠ প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়ে গতকাল ইসি সচিবালয় থেকে এই চিঠি পাঠানো হয়েছে। হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, আইন অনুযায়ী তফসিল ঘোষণার পর থেকে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত সব ধরনের প্রচার-প্রচারণা নিষিদ্ধ। সে জন্য আগামী সাত দিনের মধ্য জেলা, উপজেলা এবং সিটি করপোরেশন আওতাধীন এলাকায় যেখানে পোস্টার, ব্যানার, গেট, তোরণ এবং আলোকসজ্জা আছে, সেগুলো অপসারণের জন্য বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী এবং পৌরসভার মেয়রদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সম্ভাব্য কোনো প্রার্থী যদি তার প্রচার উপকরণ অপসারণ না করেন তাহলে তিনি নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে অভিযুক্ত হবেন এবং আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সচিব বলেন, সারা দেশের ৬৪টি জেলার জেলা প্রশাসকদের রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি এলাকায় স্থানীয় বিভাগীয় কমিশনারকে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার-ভূমি এবং জেলা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে ৫৮০ জনের মতো সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। সচিব বলেন, প্রতীক বরাদ্দের পর প্রার্থীরা প্রচারে নামতে পারবেন। এর আগ পর্যন্ত কোনো প্রার্থী বা রাজনৈতিক দল নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারবেন না। এ বিষয়ে প্রতিটি রাজনৈতিক দলের কাছে গতকাল চিঠি পাঠানো হয়েছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

চিরঘুমে জায়ান

সিপিডির বক্তব্য অগ্রহণযোগ্য

শ্রীলঙ্কায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৫৯

কার্যকর গণতন্ত্রে মানবাধিকার ও মিডিয়ার স্বাধীনতা গুরুত্বপূর্ণ

সাংবাদিকদের চোর বলিনি

প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধে রিট

আইসিডিডিআর’বিতে ঘণ্টায় ৩৬ নতুন রোগী

বাংলাদেশে ঝুঁকি এড়াতে সতর্কতার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের

ইউক্রেনে ডিটেনশন সেন্টারে ২০৮ বাংলাদেশি

দেশবাসীকে সজাগ ও সতর্ক থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

যুক্তরাষ্ট্রে সিপ্রোহেপটাডিন রপ্তানির অনুমোদন পেলো বেক্সিমকো ফার্মা

শেখ হাসিনা মিষ্টি পাঠান মমতা পাঠান কুর্তা

৩০শে এপ্রিল শাহবাগে ঐক্যফ্রন্টের গণজমায়েত

পুলিশের ৪ সদস্যের গাফিলতি খুঁজে পেয়েছে তদন্ত কমিটি

হুমকির অভিযোগ মিজানুরের

প্রতিবাদ আর কান্নায় পালিত হলো রানা প্লাজার ৬ষ্ঠ বার্ষিকী