নানিয়ারচরে পর্যটকবাহী বাসে গুলি

দেশ বিদেশ

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি | ২০ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার
 রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরে পর্যটকবাহী গাড়িতে ইউপিডিএফ সন্ত্রাসীদের গুলির ঘটনায় উদ্ধার তৎপরতা চালাতে যাওয়া সেনাবাহিনীর গাড়ি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। গাড়িটি একশ’ গজ গভীর খাদে পড়ে যায়। এতে ৮ সেনা ও আনসার সদস্য আহত হয়। আহতদের মধ্যে গুরুতর তিনজনকে হেলিকপ্টারযোগে প্রথমে চট্টগ্রাম সিএমএইচ পরে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেই তিনজন হলো, সৈনিক মামুন, মোজাম্মেল ও সাজু।
রাঙ্গামাটি সেনানিবাসের একজন ঊর্ধ্বতন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, আহত অন্যদের মধ্যে চারজন আনসার সদস্য ও একজন সেনা সদস্যকে রাঙ্গামাটিস্থ রুমা সিএমএইচে চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম সিএমএইচে পাঠানো হয়েছে। গতকাল সকাল সাড়ে নয়টা থেকে পৌনে দশটার সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে।
রাঙ্গামাটি রিজিয়ন ও নানিয়ারচর জোন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার সময় নানিয়ারচর জোনের অধীন কেংড়াছড়ি এলাকায় পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সশস্ত্র সন্ত্রাসী সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট ইউপিডিএফ-এর সশস্ত্র শাখার নেতা অগ্রসর চাকমার নেতৃত্বে পাঁচ-ছয়জনের একদল সন্ত্রাসী রাঙ্গামাটি-খাগড়াছড়ি সড়কের কেংড়াছড়ি এলাকায় অবস্থান নেয়।
এ সময় খাগড়াছড়ি থেকে রাঙ্গামাটি অভিমুখে আসা হানিফ পরিবহনের দু’টি বাস ও দু’টি মাইক্রোর একটি বহর কেংড়াছড়ি এলাকা অতিক্রমকালে সশস্ত্র দলটি গাড়িগুলো থামানোর চেষ্টা চালায় তারা।
এ সময় বিষয়টি বুঝতে পেরে গাড়িগুলো না থামিয়ে চলে আসলে সন্ত্রাসীরা গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এতে হানিফ বাস (ঢাকা মেট্রো-ব- ১৪-৫৭২৯) এর পেছনের বডিতে তিনটি গুলি লাগলেও কেউ হতাহত হয়নি। এই ঘটনার খবর পেয়ে নানিয়ারচর জোন থেকে একটি টহল দলকে ঘটনাস্থলে পাঠানোর সময় বগাছড়িস্থ বউ বাজার এলাকা অতিক্রমকালে সেনাবাহিনীর জিপ গাড়িটি দুর্ঘটনায় কবলিত হয়।
এদিকে পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের ধাওয়া খাওয়া পর্যটকবাহী গাড়ির বহরটিকে ঘিলাছড়ি আর্মি ক্যাম্পে এনে তাদের কাছে ঘটনার বিবরণ শুনা হয়। পরে তাদের স্কট দিয়ে রাঙ্গামাটির প্রবেশমুখ মানিকছড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেয় সেনাবাহিনী।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, পেছনে থাকা বাসটিকে থামানোর সংকেত দেয়ার পরও সেটি না থামালে সন্ত্রাসীরা গুলি করে। সূত্রটির দাবি, মূলত পর্যটকদের অপহরণ করার জন্যই সন্ত্রাসীরা গাড়িটি থামানোর চেষ্টা করেছিল। এই লক্ষ্যেই সন্ত্রাসীরা ভারী অস্ত্রশস্ত্র নিয়েই রণপ্রস্তুতি নিয়ে রাস্তায় নেমেছিল। গুলি লাগা বাসটিতে ৩৯ জন যাত্রী ছিলো। তারা সকলেই রাজশাহীর একটি ক্রীড়া সংগঠনের পক্ষ থেকে রাঙ্গামাটি সফরে এসেছিলো।
নিরাপত্তা বাহিনীর দায়িত্বশীল একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আমরা তাদের নিরাপত্তা দিয়ে রাঙ্গামাটি পর্যন্ত এনে দিয়েছি। কিন্তু তারা রাঙ্গামাটিতে অবস্থান না করে চট্টগ্রামে চলে গেছে। এই ব্যাপারে আইনানুগ প্রক্রিয়ায় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন ঐ কর্মকর্তা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

গণভবনে এরশাদ-বি. চৌধুরী

এবারের নির্বাচনে বিশেষ কোনো দলের প্রতি সমর্থন নেই ভারতের

প্রার্থী তালিকায় বড় পরিবর্তনের সম্ভাবনা কম

আমাদের নির্বাচনের দিনটি চুরি-ডাকাতির দিন হয়ে গেছে

সচিব, ডিএমপি কমিশনারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা দাবি

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) আজ

রফিকুল ইসলাম মিয়া গ্রেপ্তার

এতোগুলি মানুষের স্বাধীনতাকে ভালোবাসাই আশার জায়গা

ইশতেহারে ডিজিটাল আইন সংশোধনের প্রতিশ্রুতি অন্তর্ভুক্তির আহ্বান

নির্বাচন সামনে রেখে পর্যবেক্ষণে বিনিয়োগকারীরা

বিএনপি’র মনোনয়ন প্রত্যাশীদের শপথ

সশস্ত্র বাহিনী দিবস আজ

ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিতে পারেন সামাদ আজাদপুত্র ডন

দশ মাসে ৪৩৭ বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড

‘আমি বেশি দিন রাজনীতি করমু না’ -শামীম ওসমান

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘুরে গেলেন মিলার